নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

গল্প: ২ বউ এর ১ স্বামী পর্বঃ১ (dui bow ak sami)

গল্প: ২ বউ এর ১ স্বামী
*
রাইটার:মাছুম পারভেজ
*
পর্বঃ১



আজ শুক্র বার মনটা খুব খারাপ আমার তাই
নমাজ পরে একটু ঘুড়তে বের হলাম।

আমাদের বাড়ির পাশেই একটা নদি আছে
এবং তার উপর দিয়ে রয়েছে একটি বিশাল
বড় আকারের ব্রিজ

প্রতি দিন ও খানে অনেক মানুষ আছে ওই
যায়গা টার দৃশ্য গুলো উপভোগ করতে।

আমার ও মন খারাপ থাকলে ওখানেই গিয়ে
বসি। তাই আগের দিনের মত আজকে ও
ব্রিজে এসে আমি বসে পড়লাম ব্রিজের
ডালাতে।

আমি আন মনে বসেই আমার ফোন টা
টিপতেছি।

হঠাত করেই কিসের সাথে ধাক্কা খেয়ে
আমার ফোন টা মাটিতে পরে গেলো।

আমি ফোন টা মাটি থেকে তুলেই দেখতে
পেলাম একটা মেয়ে আমার সামনে
দাড়িয়ে আছে।
(মেয়েটা দেখতে কিন্তু অনেক সুন্দর ছিলো)

আমি দাড়িয়ে মেয়ে টাকে বললাম

আমি: সরি ম্যাম

( আমি সরি বলার কারন হচ্ছে আমি গরিভ
ওদের কে অপমান করার ক্ষমতা আমার নাই

মেয়েটি: আরে আপনি কেনো সরি বলছেন।
সরি তো আমার বলা দরকার

আমি: না ম্যাম ভুল টা আমার ছিলো

মেয়েটি: আরে বাদ দেনতো সেটা কথা
আপনার ফোন টা ভেংগে গেছে তো

আমি: না ম্যাম ওটা কোন ব্যাপার না।
আমি ফোন টা ঠিক করে নিবো পরে।

মেয়েটি: আরে ওটা আর ঠিক করা লাগবে
না। আপনি আমার ফোন টা নিন। আমি পরে
একটা কিনে নিবো

আমি: সরি ম্যাম আমি কখনেই এটা করতে
পারবো না

মেয়েটি: তাহলে আমি যে আপনার ক্ষতি
করলাম এটা পরিশোদ করবো কি ভাবে

আমি: যদি কোনো দিন দেখা হয় তাহলে
একটু নাস্তা করাবেন
তাহলেই হবে

মেয়েটি: ওকে আমি মিম

আমি: শাহরিয়ার ।

মিম: কি করেন আপনি?

আমি: পড়ালেখা আপনি

মিম: আমি ও কিসে পড়েন আপনি

আমি: ইন্টার আপনি।

মিম: আমি ও

যাইহোক আপনার সাথে কথা বলে আমার
অনেক ভালো লাগলো।

মিম: আপনার বাসা তো এই খানেই তাই না

আমি: হুম

মিম: যাই হোক পরে আবার আপনার সাথে
তাহলে দেখা হবে

ওই যে আমার আব্বু আম্মু চলে এসেছে যাই
এখন বাই

আমি দেখলাম ওর আব্বু আম্মু একটা কার
নিয়ে এসে ওর সামনে দাড়ালো আর ও
সেখানে চরে চলে গেলো

আমার আর বুঝতে বাকি রইলো না যে ও
বড়লোকের ধনির দুলালি

আমি সেখান থেকে উঠে মন খারাপ করে
বাড়ির দিকে রহনা দিলাম

কারন আমি ওই ফোন টা দিয়ে ফেসবুকে গল্প
লিখতাম।

আমার আর কোন ফোন কিনার মতো ও টাকা
ছিলো না( ফোনটা একে বারেই ভেংগে
গেছে ওটা আর ঠিক হবে না) তার কারন
আমরা গরিব।

আমি বাড়িতে এসে কিছু না খেয়েই শুয়ে
পড়লাম

আম্মু অনেক বার ডাক ছিলো ভাত খেতে
কিন্তু আমি খাই নাই

আমার একটা ছোট বাটন ফোন ছিলে সেটে
বের করে আমি ফেসবুকে ডুকলাম

ফেসবুকে ডুকতেই দেখতে পেলাম জয়া
ম্যাসেজ করছে।

ও হ্যা আপনারা আবার ভাবতেছেন এই
জয়াটা আবার কে তাই না চলেন ওর পরিচয়
দেই।

ওর নাম হচ্ছে জিন্নাত জয়া ও এবার ইন্টার
এ পড়তেছে ওর সাথে আমার ফেসবুকেই
পরিচয়।

আমার গল্প নাকি ওর খুব ভালো লাগে তাই
ও বন্ধুত্ব করছে তবে ওকে কখনো আমি দেখি
নি এবং ও আমাকে দেখে নাই।

আমি ম্যাসেজ ওপেন করেই দেখতে পেলাম

জয়া: শাহরিয়ার আমাকে নিয়ে আজকে
একটা গল্প লিখবা

আমি: কেনো তোমার নাকি জীবনের কোন
কাহিনি নাই। আজ আবার কই থেকে
কাহিনি বার হলো

জয়া: আরে আজকেই ঘটনা টা ঘটেছে

আমি: হুম সেটাই বলো

জয়া: বলো তো লিখবা কিনা

আমি: না গো পরবো না

জয়া: কেনো

আমি: আজকে দুপুরে আমার ফোন টা
ভেংগে গেছে

জয়া: কি ভাবে ভাংলো

আমি: আমি আমাদের বাড়ির সামনের
ব্রিজটা তে বসে বসে ফোনটা টিপছিলাম।
আর ওই সময়ে একটা মেয়ে এসে ধাক্কা
দিয়ে আমার ফোন টা নষ্ট করে দায়

জয়া: এই দারাও দারাও মেয়েটা গায়ে ওমুক
ড্রেজ ছিলো মেয়েটা তোমাকে ওর নিজের
ফোন দিতে ধরছিলো তাই না

আমি: আরে হুমতো কিন্তু তুমি কিভাবে
জানলে

জয়া: আরে গাধা ওটাই.......
,
চলবে,,,
,
টাইমলাইন আরো গল্প আছে,ভালো লাগলে এডড বা follow করতে পারেন
Share:

No comments:

Post a Comment

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label