নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

গল্প: হারিয়ে ফেলা ভালোবাসা . আবেগি ছেলে চঞল . #পর্ব:০২

গল্প: হারিয়ে ফেলা ভালোবাসা
.

আবেগি ছেলে চঞল

.
#পর্ব:০২
.
.
.
.
.
.
তারপর তিনজন দৌড়ে চলে আসলাম,এসে কলা কিনলাম,, তিনজন মিলা কলা খায়ইতাছি আর ক্যাম্পাস দিয়ে হাটতাছি,,একটু পরে কিসের জানি পরার আওয়াজ পাইলাম,, পিছে তাকাইয়া দেখি আমরা যে কলার খোসা ফালাইছি ওটাতে পা-পিছলে কেডা জানি পইরা গেছে,,
.
ও মা এটা দেহি একটা মাইয়া,,উঠা আমাগো দিকেই আায়তাছে,,,তারপর..আমি ওগো কইলাম,, হালারা খারাইয়া আছোত কেন দৌড়া...
.
এক দৌড়ে বাসায় চলে এসেছি.. তারপর খাওয়া দাওয়া করে এক গুমে রাত,, রাতে ফ্রেশ হয়ে ডিনার করে এসে গিটারটা হাতে নিয়ে বসে সুর তোলার চেষ্টা করতেছি এমন করতে করতে কখন গুমিয়ে গেছি বলতে পারবো না,,
.
.
.
বা কী সুন্দর মেয়ে,,এই মেয়ে না কী আমার সাথে প্রেম করে আমার বিশ্বাসই হইতাছে না,,ও মা মেয়ে দেখি আমারে জড়িয়ে ও দরেছে, আবার কিস করতেও আসতাছে,, আহা কী ফিলিংস, হঠাৎ করে বৃষ্টি শুরু হয়ে গেলো সাথে সাথে পরিবেশটা আরো রোমান্টিক হয়ে গলো,,এখোনি কিস করবে আমায়,,
.
ওমা গো ঔ কিডা কিডা,, চেয়ে দেখি আমার আম্মাজান তার প্রিয়ো অস্ত্র ঝাটা নিয়ে আমার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে,, তারমানে এতোক্ষন যা দেকলাম সব স্বপ্ন,কবে যে স্বপ্ন গুলো পূরণ হবে,আল্লাহ মালুম জানে,,যাই কলেজে যাই,তারপর ফ্রেশ হয়ে নাস্তা করে কলেজে চলে আসলাম,,কলেজের গেটে রিমান আর জিহাদ  দাড়িয়ে আছে ওদের নিয়ে ভেতরে যেতেই কালকের সেই মেয়েটা সামনে এসে দাড়ালো,আমি দৌড় দাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিছি এমন সময় মেয়েটা আমার হাত দরে বলতে লাগলো,,
.
মেয়ে:: ঐ কৈই পালাস,,কাল কলা খেয়ে, কলার খোসা আমার দিকে ছুড়ে মার ছিলি কেনো..??
.
আমি:: ইয়ে মানে আন্টি,
.
মেয়ে:: ঐ আমাকে তোর কোন দিক দিয়ে আন্টি মনে হয়..
.
আমি:: আচ্ছা ঠিক আছে তাহলে খাল্লামা ঢাকি তাহলে..??
.
মেয়ে:: তোরে তো আমি
.
আমি:: না না আপু মারবেন না,, আসলে আমি না ঐ আমার পিছে যারা দাড়ি আছে ওরা ফেলেছে..
.
মেয়ে:: তোর পিছে তো কেউ নাই
.
মেয়েটার কথা শুনে পিছে তাকিয়ে দেখি ২ হারামি পালাইছে,ভাবলাম ওগো উপরে দোষ দিয়ে পারপামু তা আর হইলো না..
.
আমি:: আপু ইয়ে মানে,, মাফ করে দিন আর এমন হবে না..
.
মেয়ে:: ঔ আমি তোর কোণ কালের আপুরে গাইয়া ক্ষেত,,
.
আমি:: তাহলে ক্ষেতের হাত ধরছেন কেনো, আপনার হাত ময়লা হয়ে যাবে,,হাত ছাড়েন,,
.
হাত ঝাড়া দিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে চলে আসলাম,,
.
আর অন্য দিকে মেয়েটা ভাবলো আগে এসে কথা বলাতে আমাকে অপমান করলি এর প্রতিশোধ আমি নেবোই,,
.
মেয়েটা ক্লাসে যেয়ে দেখে তানভির মেয়েটার ক্লাসে বসে আছে,,মেয়েটা ভাবলো তার মানে ক্ষেতটা আমাদের ক্লাসে পরে,,দাড়াও তোর খবর আমি করেই ছাড়বো,,
.
অন্য দিকে তানভির আজ বলে চান্দু স্যারের ক্লাস হবে না,,যাক ভালাই হইলো কথা শুনতে হবে না,,
.
একটু পরে সামনে তাকিয়ে দেখি ঐ মেয়েটা আমাদের ক্লাসে, তারমানে অহংকারিটা আমাদের ক্লাসে পরে,,
.
আমি:: রিমান মেয়েটাকে চিনিস..??
.
রিমান:: হুম, কাল যে স্যার তোকে অপমান করলো তার মেয়ে,,তার জন্যই তো তখন দৌড় দিছি..
.
আমি:: ও অহংকারি বাবার অহংকারি মেয়ে,,অহংকারে যেনো মাটিতে পা পরে না..
.
কিছুক্ষণ পরে দেখি মেয়েটা যেখানে টিচার্সরা দাড়িয়ে লেকচার দেয় সেখানে এসে দাড়ালো,,আর বলতে লাগলে..
.
Hey Everyone আমি মেঘলা আমি তোমাদের হাবিব স্যারের মেয়ে, আজ যেহেতু ক্লাস নেই তাহলে আজ আমারা সকলে মিলে আনন্দ করি,,,
.
সাবাই:: ঠিক আছে
.
মেঘলা:: আজ তাহলে আমাদের গান গেয়ে শোনাবে তানভির ( বন্ধুদের কাছ থেকে নাম জেনে নিছি,,দেখেতো মনে হয় গানে গ পারে না এবার বুঝো ঠেলা আমাকে অপমান করার মজা,, গান না পারলে এখন সবাই মিলে তোকে অপমান করবে ক্ষেত, মনে মনে বল্লো মেঘলা,)
.
আমার নাম শুনে সবাই আমার দিকে তাকালো মনে হচ্ছে এলিয়েন দেখতাছে,,আমাকে অপমান করার ভালোই রাস্তা খুজেছে মেয়েটা কিন্তু.....
.কিন্তু আমি ভয় না পেয়ে রিমন আর জিহাদের দিকে তাকিয়ে একটু হাসি দিয়ে সামনের দিকে যেতে লাগলাম, রিমন আর জিহাদ ও মুচকি মুচকি হাসতেছে,,
.
.
আমি সামনে যেতেই আমার হাতে একটা গিটার দিলো, আমি গিটারটা নিয়ে বসলাম,
.
মেঘলা মনে মনে বলতেছে গিটার এমন ভাবে ধরেছে জেনো টাকি মাছ,,আর তাছাড়া ক্ষেত থেকে উঠে এসেছে কোনো দিন তো গিটার দেখেইনি বাজাবে কী,,
.
আমি গিটারটা আবোলতাবোল বাজাতে লাগলাম,, মেঘলার মুখ দেখে মনে হচ্ছে ওটাই চাচ্ছে,,সবাই হাসা-হাসি করতে লাগলো, আর অনেকে তো বলেই ফেল্লো,লাঙ্গল দিয়ে হাল চাষ করতেছি না কী...
.
অনেকক্ষন মজা নাওয়ার পর মেঘলা ক্লাস থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে এমন সময় অনেক মধুর সুর তার কানে এসে লাগলো,পিছে তাকিয়ে দেখে তানভির অনেক করুণ একটা সুর গিটারে বাজাচ্ছে,,অনেক সময় নিয়েই সুর বাজালো তার পর হঠাৎ করেই গাইতে সুরু করলো,,
.
.
আমার অগুনের ছাই
জমে জমে -
কতো পাহার হয়ে যায়...!!
আমার ফাগুনেরা দিন
গনে গনে -
আর উধাও হয়ে যায়...!!
যতো পথের বাধা
সবি তো কালো-সাদা
কবে ঠিকানা পেয়ে
হবে রঙ্গিন....
চেনা নামেরই ঢাকে
আমি কী পাবো তাকে..??
কবেরে আসবে সে
রোদেলা দিন..??
আমার অগুনের ছাই
জমে জমে -
কতো পাহার হয়ে যায়...!!
আমার ফাগুনেরা দিন
গনে গনে -
আর উধাও হয়ে যায়...!!
ফেরাবো তোকো আর
চেনাবো তোকেই
পৃথিবী নতুন করে...
 মেলাবো তোকে আজ
 আমারি রঙ্গেতেই
 বসাবো নতুন সুরে..
 যতো পথের বাধা
সবি তো কালো-সাদা
কবে ঠিকানা পেয়ে
হবে রঙ্গিন....
চেনা নামেরই ঢাকে
আমি কী পাবো তাকে..??
কবেরে আসবে সে
রোদেলা দিন..??
আমার অগুনের ছাই
জমে জমে -
কতো পাহার হয়ে যায়...!!
আমার ফাগুনেরা দিন
গনে গনে -
আর উধাও হয়ে যায়...!!
......
গান শুনে সবাই মুগ্ধ হয়ে তানভিরের দিকে তাকিয়ে রইলো,,আর আমি মেঘলার সামনে দাড়িয়ে বলতে লাগলাম..
.
.
.
চলবে..
.
.
.
ভুল গুলো সবাই ক্ষমার দুষ্টিতে দেখবেন,,আর গল্পটা আপনাদের কেমন লাগছে বলবেন সবাই
.
আগের পর্ব না পরে থাকলে আমার টাইমনাইন থেকে পরে নিবেন,
Share:

No comments:

Post a Comment

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label