নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

Story:-বউয়ের অবহেলা

Story:-বউয়ের অবহেলা 


Part:-3(last part)

Witter:-Johny Ahmed.

সকাল বেলা আমার ঘুম ভেঙ্গে যায়।আমি এখন ও ঈশিতার বুকে শুয়ে আছি।ঈশিতা ও আমাকে জড়িয়ে রেখেছে তার বাহুডোরে।ওর শরীরে কোনো কাপড় নেই।আমি ঈশিতার থেকে নিজেকে ছাড়িয়ে নিলাম এরপর ওর কপালে একটা চুমু দিলাম।আমার স্পর্শ পেয়ে ঈশিতার ঘুম ভেঙ্গে যায়।আমাকে ওর রুমে দেখতে পেয়ে অনেক অবাক হয় এবং আমাকে জোরে চিৎকার করে বলল...........!!!
>তুই আমার রুমে কি করিস?আর আমার জামা কোথায়?[রেগে বলল]
-আমি তো আপনার রুমে থাকতে চাইনি?আপনি নিজেই আমাকে বাধ্য করছো।আর তা ছাড়া আপনি আমার বউ আমি আপনার সাথে থাকতেই পারি।আপনার উপর আমার অধিকার সব চেয়ে বেশি।
>এই শুয়োরের বাচ্চা কি বললি তুই?কোনো ছোটলোক আমার স্বামী হতে পারে না।আর তোকে না বললাম আমার কাছে স্বামীর অধিকার চাইবি না।আমার সব তো নষ্ট করে দিলি?আর কি বাকি রাখছত?আর আমি তোকে কি বাধ্য করেছি?
-কালকের ঘটনা ভুলে গেলেন নাকি?আপনার জন্যই সব হইছে।আর আমি আমার বউকে আদর করছি অন্য কাউকে না।আমি যদি জানতাম আপনি কালকে ওই রকম কিছু করবেন তাহলে কোনদিনও ওই পার্টিতে যেতে দিতাম না।জানেন কালকে আপনার সাথে কি হয়েছিলো?
>কি হইছে?আমি তো ডান্স করছিলাম।এরপর কিছু তো মনে করতে পারছি না।
-হুমমমম ওইটাই।জানতে চান কি হয়েছে কালকে রাতে?
>হুমমম বল।
এরপর আমি ঈশিতাকে সব বললাম।
>আমি তোর কথা বিশ্বাস করি না।তুই মিথ্যা কথা বলতেছত আমার সাথে।তুই কি ভাবিস আমি কিছু বুঝি না?মিথ্যা কথা বলে তুই আমাকে ভোগ করলি?[কান্না করতে লাগলো।]
-সত্যি কথা আমি মিথ্যা বলতেছি না।আমাকে বিশ্বাস করুন।কি করলে আপনাকে বিশ্বাস করানো যাবে?
>বিশ্বাস করতে পারি তবে আমার একটা কথা শুনতে হবে।
- কি কথা বলেন?
>যদি তুই আমাকে সত্যি ভালোবাসিস
তাহলে তোর ওই ভালোবাসার কছম তুই আমার থেকে অনেক দূরে চলে যাবি।অনেক দূরে।
-মুচকি হেসে বললাম"ও এই কথা?আপনাকে সত্যি অনেক ভালোবাসি।নিজের জীবনের চাইতে ও বেশি।যা বলে প্রকাশ করতে পারবো না।তবে আপনার কথা রেখে বুঝাতে পারবো কতটা ভালোবাসি।ভালোবাসা মানে এই নয় প্রিয় মানুষটির সাথে থাকতে হবে,দূর থেকেও ভালোবাসা যায়।
>হুমমম চলে যা।আর আসিস না আমার কাছে।
-হুমমম যাচ্ছি।

এই বলে আমি আমার রুমে চলে আসলাম।ভাবতেই পারিনি আমার জীবনে এমন একটা দিন আসবে।প্রিয় মানুষটির থেকে আলাদা হতে হবে।বিধাতা কেনো আমাকে এমন পরীক্ষার সম্মুখীন করলেন?কেনো এতো অবহেলিত আমি ঈশিতার কাছে?কেনো বুজে না ওকে সত্যি ভালোবাসি।তবে ওর থেকে দূরে গিয়ে ও যদি ওকে আমার ভালোবাসা বুঝাতে পারি তাহলে তাই করবো।চলে যাবো অনেক দূরে।আর আসবো না ওর কাছে।আর কাউকে ছোটলোক বলতে হবে না।আর কাউকে গালাগালি করতে হবে না।
ফ্রেশ হয়ে নিলাম।বসে আছি খাটের উপর।আর কালকের কথা গুলো ভাবতে লাগলাম।কি থেকে কি হয়ে গেলো?সামান্য ভুলের জন্য এতো বড় শাস্তি পেতে হচ্ছে।কালকে রাতে যদি নিজেকে একটু কন্ট্রোল করতে পারতাম তাহলে আর এমন একটা সময় দেখতে হতো না।
বুক ফেটে কান্না আসতে লাগলো।ভাবতেই কেমন জানি লাগে,জীবনে পথ চলে হবে একা।
ব্যাগে প্রয়োজনীয় জিনিস গুলো নিলাম।সাথে ঈশিতার একটা ছবি নিলাম....।
ব্যাগ গুছিয়ে বাসা থেকে বের হয়ে গেলাম।আন্টি-আংকেল কে কিছু বললাম না।জানি তারা কষ্ট পাবে।হয়তো আমাকে অনেক খুঁজবে।একটা দীর্ঘশ্বাস ফেললাম।পিছন ফিরে বাসাটা কে একবার ভালোভাবে দেখে নিলাম।কতো গুলো বছর ছিলাম এই বাড়িতে।ঈশিতার অবহেলায় আর আন্টি-আংকেলের ভালোবাসায় দিন গুলো কেটে যায়।
আমার চোখদুটো ঝাপসা হয়ে আসছে,,চারদিক অন্ধকার হয়ে আসছে।আমি চোখ ঢলতে ঢলতে রাস্তা পার হতে লাগলাম।হঠাৎ একটা গাড়ি এসে আমাকে ধাক্কা দেয়।আমি ছিটকে গিয়ে রাস্তার ওপারে পড়ে গেলাম।চোখ দিয়ে দু ফোঁটা অশ্রু গড়িয়ে পড়লো।পাওয়া হলো না বউয়ের ভালোবাসা।চোখ গুলো ধীরে ধীরে বন্ধ হয়ে আসলো।

#সমাপ্ত।

আমি সবার কমেন্টই পড়ি কিন্তু উত্তর দিতে পারি না।তাই মাফ করবেন।অপেক্ষা করুন পরের গল্পের।ধন্যবাদ সবাইকে।

[বিঃদ্রঃএকটা গল্প না হয়ে Sad ending দিলাম?]

Up coming "বউয়ের অবহেলা"সিজন 2.
Share:

No comments:

Post a Comment

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label