নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

সিনিয়র_বউয়ের_ভালবাসা Golpo পর্বঃ৮

সিনিয়র_বউয়ের_ভালবাসা
# রিফাত_আলি
# পর্বঃ৮
রাফি শুধু শর্টস পড়ে আছে।
আমার যা বুঝার বুঝে গেছি।
রাফি আমাকে দেখে কাঁপছে।
ভিতর থেকে
বৃষ্টিঃ এই কে এসেছে?
রাফিঃ---।
বৃষ্টিঃকি হলো? তাড়াতাড়ি আসো তো।
.
আমি রাফিকে টেনে রুমের বাইরে বের
করে দিলাম।
রুমে ঢুকে দরজা লক করলাম।
বৃষ্টিঃরররিফাত তততুমি এখানে?
আমিঃআরে সোনা এরকম কেন করছো?
বৃষ্টিঃনন্না মানে।
আমিঃকি হলো বলো।
বৃষ্টিঃনা মানে রাফির সাথে আছি
এখানে তাই।
আমিঃথাকলে সমস্যা কি? নিশ্চই কোন
কাজ আছে তোমার এখানে তাইনা?
বৃষ্টিঃহ্যাঁ আসলে আমার শরিরটা খারাপ
তো তাই।
আমিঃঠাসসসস। শা* তোর লজ্জা
করেনা হাতে নাতে ধরার পরেও মিথ্যা
বলছিস?
বৃষ্টিঃনা মানে।
আমিঃতোর এতই শখ হলে আমাকে বলতি।
কেন আমার সাথে ছলনা করলি?
বৃষ্টিঃতো কি করবো? তুইতো তাও
সিমির সাথে এসব করেছিস। তখন কেন
আমার কথা ভাবিসনি?
আমিঃসব তো তুই করতে বলেছিলি।
বৃষ্টিঃহ্যাঁ বলেছিলাম যাতে তোর বাবা
তোকে বাসা থেকে বের না করে দেয়।
আমিঃআমাকে বের করলে তোর সমস্যা
কি?
বৃষ্টিঃতোকে বের করা মানে তোর
সম্পত্তির ভাগ শেষ। আর তোর টাকা না
থাকলে তোকে রেখেই কি হতো?
আমিঃতারমানে তুই আমার টাকাকে
ভালবাসিস?
বৃষ্টিঃহ্যাঁ হাঁ হ্যাঁ। টাকায় সব। টাকা
আছে তো সব আছে।
.
আমার কেমন যেন লাগছে।
মাথাটা গরম লাগছে।
মানে আমার রাগ চরম পর্যায়ে।
আমিঃঠাসস ঠাসস। আর কোনদিন যদি
আমার সামনে আসিস তাহলে সেদিনই
তোকে খুন করে ফেলব। তোর কারনে একটা
সহজ সরল মেয়েটে কষ্ট দিয়ে আসছি।যে
কিনা কোন স্বার্থ ছাড়াই আমাকে
ভালবাসে। আর তুই।
ছিহ তোরর ব্যাপারে কথা বলতেও ঘৃনা
করছে।
.
.
দরজা খুলে বাইরে এলাম।
রাফি কোনায় বসে আছে যাতে কেউ
সহজে দেখতে না পায়।
সেখানে আর কিছু না বলে হসপিটালে
এলাম ।
ভাইয়া আর আব্বুও চলে এসেছে।
সিমির দিকে তাকাতেও লজ্জা করছে।
কেন এতদিন তার নিঃস্বার্থ
ভালবাসাকে বুঝতে পারলাম না? যত
তাড়াতাড়ি সম্ভব সিমির কাছে ক্ষমা
চেয়ে নিব।
সিমিঃকি হয়েছে তেমার?
আমিঃকই?
সিমিঃতাহলে মুখ কালো করে আছো
কেন?
আমিঃএমনি।ভাবির কি হয়েছে?
সিমিঃতুমি চাচা হতে চলেছো।
আমিঃসত্যি!!
সিমিঃহুম।
আমিঃআলহামদুলিল্লাহ। অবশেষে
ভাইয়ার মনথেকে কষ্টটা দুর হলো।
.
ভাইয়ার বিয়ে হওয়া হয়েছে ৪ বছর। কিন্তু
কোন সন্তান হয়নি। তবে ভাইয়া-ভাবি
দুজনকে খুব ভালবাসে। তাই এত ধৈর্য্য
ধরে একসাথে ছিল।অবশেষে তারা সফল
হলো।
.
হসপিটাল থেকে বাসায় এলাম সবাই।
ভাইয়ার সে কি যত্ন!
কোলে করে রুমে নিয়ে গেল।
আমি গাড়িটা গ্যারেজে রেখে আমি গাড়িটা গ্যারেজে রেখে আমার
রুমে আমি গাড়িটা গ্যারেজরুমে আমি গাড়িটা গ্যারেজে রেখে
আমার রুমে এলাম।
সিমি শুয়ে আছে।
হয়তো ক্লান্ত।
আমি দরজাটা লক করে বাথরুমে গিয়ে
ফ্রেশ হয়ে রুমে এলাম।
বিছানার পাশে দাঁড়িয়ে আছি।
কিভাবে সিমির কাছে ক্ষমা চাইবো?
সিমিঃওভাবে দাঁড়িয়ে আছো কেন?
আমিঃতোমাকে একটা কথা বলবো?
সিমিঃবলো।
.
আমি সিমির উপর শুয়ে গেলাম।
যাতে রাগ করে কোথাও যেতে না পারে।
সিমিঃএই কি করছো?
আমিঃএকটু আদর।
সিমিঃউহুম এখন না।
আমিঃসিমি।
সিমিঃহুম।
আমিঃআমাকে ক্ষমা করে দাও প্লিজ।
সিমিঃক্ষমা কেন চাইছো?
আমিঃএতদিন তোমার সাথে খারাপ
ব্যাবহার করেছি। অন্য মেয়েদের সাথে
ঘুরেছি।আরো কত কি।
সিমিঃএখন থেকে ওসব বাদ দিবা
তাহলেই হবে।(জড়িয়ে ধরে)
আমিঃথ্যাংকস। (গালে চুমু দিয়ে)
সিমিঃএত দুষ্টু কেন তুমি?
আমিঃকই?
সিমিঃশুধু চুমু দাও।
আমিঃআমার চুমু ভাললাগেনা বললেই
হতো।আর খাব না।
সিমি কিছু বললো না।
দুমিনিটের জন্য ঠোটটা নিজের দখলে
নিয়ে নিল।
সিমিঃআমার বরের প্রত্যেকটা ছোঁয়া
ভাল।
আমিঃবিশ্বাস করিনা।
সিমিঃকেন?
আমিঃএমনি।
সিমিঃআরো চাও বললেই পারো।
----------
দিনকাল ভালই যাচ্ছে।
ভাবির সাথে দুষ্টুমি,, ভার্সিটিতে
সিমির সাথে গিয়ে মজা।
সন্ধ্যা বেলা পড়ার জন্য সিমির কাছো
ঝাড়ি খাওয়া। আর রাতের বেলা আমার
নিয়মমত রোমান্স করা।
.
৭ মাস পর ভাবির বিদায় হলো।
ভাইয়া ভাবিকে একা ছাড়বে না। তাই
নিজেও গেল।
.
কিছুদিন পর
আমি সিমি আব্বু-আম্মু বসে আছি।
আম্মুঃকিছুদিনের জন্য আমরা তোর
দাদির বাসায় যাব কাল।
আমিঃও।
আব্বুঃবউমা আমার ছেলেটাকে দেখে
রাখিও।
সিমিঃআচ্ছা।

কি বাঁশ দিল আব্বু।

আব্বু আম্মু দাদির বাসায় চলে গেল।
কাজের মেয়েটা কিছুদিন ছুটিতে আছে।
ভাই-ভাবিও নেই।
শুধু সিমি আর আমি।
ভাবতে পারছেন কি হতে পারে!
তাড়াতাড়ি ফার্মেসি থেকে বাসায়
এলাম।
এমনিতেই সিমি কিছুদিন ধরে রাগ করে
আছে।
আমার দোষ হলো ফেসবুকে মেয়েদেআমার দোষ হলো ফেসবুকে মেয়েদের
রিপ্লায় আমার দোষ হলো ফেসবুকে
মেয়েদের রিপ্লায় দেয়া ।
সে যাইহোক আজ সবঠিক করেই ছাড়বো।
রুমে গিয়ে সিমিকে পিছনথেকে জড়িয়ে
ধরলাম।
বাসায় কেউ নেই তাই থ্রি পিচ পরে
আছে।
ঘাড়ে চুমু দিতে সমস্যা হচ্ছে না।
কিন্তু সিমি এখনো রেগে আছে।
সিমিঃছাড় ত।
আমিঃএত রাগ কেন?
সিমিঃবুঝতে হবে না।
সিমিকে আমার দিকে ঘুরিয়ে তার ঠোঁটে
ঠৌঁট রাখলাম।
আমিঃআর রাগ আছে?
সিমিঃহালকা।
আবার দিলাম।
আমিঃআর আছে?
সিমিঃনা।
সিমিকে কোলে করে বিছানায় গেলাম।
সিমির উপর শুয়ে আছি।
আমিঃসিমি ?
সিমিঃহুম।
আমিঃভালবাসি।
সিমিঃকাকে?
আমিঃআমার সিনিয়র বউকে।
সিমিঃআমিও ভালবাসি আমার
জুনিয়রটাকে।
.
সিমির কাঁধে হালকা করে কিস করলাম।
আস্তে আস্তে তার কানের লতিতে কিস
করলাম।
তারপর যা হবার হয়েছে। এতকিছু বলা
নিষেধ।
---------
সিমিকেজড়িয়ে ধরে শুয়ে আছি।
হঠাৎ কে যেন কলিংবেল বাজালো।
সিমিঃযাও দেখ গিয়ে কে এসেছে ।
আমিঃতুমি যাও।
সিমিঃদেখতে পাচ্ছ না কিছু পরে নেই।
আমিঃযাচ্ছি ত।
Share:

No comments:

Post a Comment

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label