নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

# Ex এর প্রতিশোধ
পাটঃ১
#লেখকঃ নীরির আব্বু

(জীবনের প্রথম লেখা গল্প। খারাপ হলে বলবেন আর লিখবো না।)

বসে আছি অফিসের বাহিরে। আজকে একটু আগেই আমাকে অফিস থেকে বের করে দিয়েছে। কারন আমার নাকি এই অফিসে কাজ করার যোগ্যতা নাই। আজ প্রায় ৩ বছর থেকে এই অফিসে কাজ করছি। কখনো কেউ আমাকে বলে নি যে আমার কাজের কোনো ত্রুটি আছে। হঠাৎ করেই অফিসের বসের কি হলো। সেই তো বলছিল সে আমার কাজে খুশি হয়েছিল। আজকে সেই বসই নাকি বলেছে যে,, আমার এই অফিসে চাকরি করার যোগ্যতা নাই। তাই পিয়ন এসে আমাকে বরখাস্ত করার চিঠিটা হাতে ধরিয়ে দিলো। কি দোষ ছিল আমার তা জানারও সুযোগ দিলো না।

আমি নীল। ৩ বছর আগেই অনার্স পাশ করে এই অফিসে চাকরি নিয়েছি। আমার পরিবারে মা,আর একটা ছোট বোন আছে।বাবা মারা গেলো আমি যখন অনার্স ২য় বর্ষে পরি। মা আমাকে আমাদের যতটুকু সম্পতি ছিল তা বিক্রি করে আনার্স পাশ করিয়েছে।
পরিবারের অর্থিক অবস্থার ওপর ভিওি করে অনার্সে পাশ করেই চাকরিতে যোগ দিয়েছিলাম।

একটু আগেই চাকরিটা চলে গেল। কি করবো এখন আমি। আবার কি অফিসে যাব গিয়ে আ
অফিসের বসের সাথে কথা বলবো। না থাক যেখানে থেকে আমাকে বের করে দিয়েছে সেখানে কোন মুখ নিয়ে যাব। আগের বস তো এমন করেনি।
নতুন একটা কাজ খুজতে হবে। এসব ভাবতে ভাবতে কখন যে বিকাল হয়ে গেছে নিজেও যানি না।

চলে আসলাম বাসায়। আমি আর আমার কলিগ জয় মিলে এই। বাসা ভাড়া নিয়েছি। কিছুদিন আগেই ওর সাথে পরিচয়।
বাসায় এসে শুয়ে আছি। এমন সময় ছোট বোন ফোন দিলো।কেটে দিয়ে কল বেক করলাম,,,,
আমিঃ হ্যালো রিয়া।(বোনের নাম)
রিয়াঃহুমম ভাইয়া কেমন আছিস।
আমিঃ ভালোরে তুই আর মা কেমন আছিস।
রিয়াঃ ভালো কিন্তু মাযের তো সব ঔষুধ প্রায় শেষের পথে।
আমিঃ আর ক দিন যাবে।
রিয়াঃ এক দিন।
আমিঃ ওওও চিন্তা করিস না। আমি টাকা পাঠিয়ে দিব।
রিয়াঃ আচ্ছা ভাইয়া একটা কথা বলবো।
আমিঃ হুমমম বল।
রিয়াঃ বলছিলাম কি আমি তো কলেজে উঠেছি তাইইই,,,
আমিঃ তাই কি বল।
রিয়াঃ না মানে একটা স্মাট ফোন কিনে দিলে,,,,,
আমিঃ ওওও ফোন নিবি।
রিয়াঃ হুমমম। তোর কাছে টাকা না থাকলে দিতে হবে না।
আমিঃ কিযে বলিস না এই প্রথম কিছু চাইলু আমার কাছে আমি কি না করবো। আচ্ছা কিনে দিবো নি।
রিয়াঃ আচ্ছা রাখছি তাহলে। আর টাকা তারাতারি পাঠাস।
আমিঃ মায়ের খেয়াল রাখিস।

কথা বলে ফোনটা রেখে দিলাম। আজকে প্রথম রিয়া আমার কাছে কোন কিছু চাইলো। রিয়ার বয়স প্রায় ১৬ বছর হবে। এই ১৬ বছরে আমার কাছে আজকে প্রথম কিছু চাইলো কেমনে না করি। কেমনে বলি যে আমার চাকরিটা নাই। এদিকে মাসের শুরুতেই চাকরিটা নাই। কি করে রিয়ার জন্য একটা ফোন কিনবো। চাকরিটা থাকলে সহজেই কিনে দিতে পারতাম। কাছে আছে মাএ ৫৬০০ টাকা। মায়ের ঔষুধ কিনতে লাগবে ২০০০ টাকা।বাজার খাওয়ার জন্য কম করে হলেও ৩০০০ টাকা লাগবে। তাহলে আমার কাছে টাকা থাকবে মাএ ৬০০ টাকা। তাহলে রিয়ার জন্য ফোন কিনবো কি দিয়ে। এসব ভাবছি এমন সময় জয় আসল অফিস থেকে। জয় জানে না আমাকে অফিস থেকে বের করে দিয়েছে।
জয়ঃ কিরে দুপুরের পরে অফিসে দেখলাম না কেন।
আমিঃ আর দেখতে পাবি না রে।
জয়ঃ কেন কি হইছে।
আমিঃ আমাকে বরখাস্ত করেছে। আর বলেছে
আমার নাকি ওই কাজ করার যোগ্যতা নাই।
জয়ঃ কে বলেছে।
আমিঃ বস।
জয়ঃ আরে বস তো অফিসে আসে নি। আজকে তার মেয়ে এসেছিল। আর বস কালকে এসে সবাইকে তার মেয়ের সাথে পরিচয় করিয়ে দেবে।
আমিঃ ওওও। তো আমাকে বরখাস্ত করল কেন।
জয়ঃ যানি না তো। দেখি কালকে স্যারের সাথে কথা বলবো।
আমিঃ আচ্ছা।

রাত ৮ টার দিকে বাসায় ৫০০০ টাকা পাঠিয়ে দিলাম। তারপর রিয়াকে ফোন দিলাম।
আমিঃ হ্যালো টাকা পাঠাইছি আর আমি কিছুদিন পর তোর ফোন কিনে বাড়িতে আসবো
রিয়াঃ আচ্ছা।
আমিঃরাখলাম।
রিয়াঃ ভালো থাকিস।
আমিঃহুমম।

চলে আসলাম বাসা,,,,,,

চলবে....
আমাকে আপনাদের ফ্রেন্ট বানাতে পারেন। আর গল্প পরতে চাইলে রিকু দেন
Share:

No comments:

Post a Comment

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label