নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

গল্প: লাভ ইমার্জেন্সি

গল্প: লাভ ইমার্জেন্সি

*
রাইটার:মাছুম পারভেজ
*
পাট-১
*
- এ্যাও আপনি আমার পাশে কি করছেন?(নিলিমা)
চিৎকার করে উঠলো মেয়েটা।
- আমাকে জড়িয়ে ধরছেন কেনো আপনি?(নিলিমা)
আমি সুযোগ বুঝে ভাবলাম একটু মজা নেই।
- আজকে রাতে তুমি শুধুই আমার সুন্দরি।(আমি)
একটু ভিলেন এর পার্ট নিলাম।
- প্লিজ ছেড়ে দেন আমাকে প্লিজ।(নিলিমা)
-আজকে ছাড়াছাড়ি নাই আর বাড়ি থেকে পালানোর সময় মনে ছিলোনা এসব কিছু।(আমি)
- বাবা বিয়ে ঠিক করছে আমি কি করবো আমি বিয়ে করবো না তাই পালাইছি।(নিলিমা)
আমি ছেড়ে দিয়ে বললাম,
- বয়ফ্রেন্ড আছে?(আমি)
- না।(নিলিমা)
- তাহলে কোথায় যাবেন।(আমি)
- কেনো আপনাকে পাইছি না আপনার সাথে যাবো।(নিলিমা)
- আমি কিন্তু মানুষ ভালো না যখন তখন কিছু একটা করে ফেলতে পারি।(আমি)
- আপনি অনেক ভালো।(নিলিমা)
- কিভাবে জানলেন?(আমি)
- আপনি এখনো আমাকে কিছু করেন নাই। রাতে খেতে দিছেন আর এখন থাকার ও ব্যাবস্থা করে দিছেন।(নিলিমা)
- থাকার ব্যাবস্থাটা খুব ভালো হইছে এক ঘরে দুজন অবিবাহিত ছেলে মেয়ে।(আমি)
- আমি ঘুমাবো। আর আপনি যদি আবার উল্টা পাল্টা কিছু করছেন তাহলে আপনার খবর আছে?(নিলিমা)
- ওরে বাবা ভয় পাইলাম তাহলে আপনি ঘুমান।(আমি)
বলেই বাল্ব টা নিভালাম।
- এই আপনি বাল্ব জালান আমি অন্ধকারে ভয় পাই।(নিলিমা)
- আমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমান এতো রাতে বাল্ব জালানো থাকলে সবাই উল্টা পাল্টা ভাববে।(আমি)
,
মেয়েটা চুপচাপ ঘুমিয়ে গেলো কিছুক্ষন পর আমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমালো।
গার্লফ্রেন্ড ও না বউ ও না তবুও কেমন জানি ফিলিংস আসতাছে।
মেয়েটা দেখতে পরির মতো।
কিন্তু আমার সাথে আসলো কিভাবে সেটাই জানতে ইচ্ছা হচ্ছে আপনাদের তাইনা।
চলুন একটু ফ্লাসব্যাক এ ঘুরে আসি।
সন্ধা ৬টা,
ট্রেন এর জন্য অপেক্ষা করতাছি।
বাড়িতে যাবো তাই।
ঢাকায় থাকি টাংগাইল যাবো।
বসে বসে গান গাইতাছি এমন সময়
মেয়েটা এসে পাশে বসলো।
কিছুক্ষন পর মেয়েটা উঠে চলে গেলো।
আমার পাশে মেয়েটার ব্যাগ রাখা।
আমি ভাবলাম একটু হেল্প করি ।
তাই মেয়েটার পিছন পিছন যেতে
লাগলাম।
হঠাৎ মেয়েটা একটা ট্রেনে উঠে পড়লো।
আমিও উঠলাম ট্রেনটা ছাড়লো আমি ভাবলাম
টাংগাইল এর ট্রেন কিন্তু একটু পর বুঝলাম এটা
সিলেট এর ট্রেন।
মেয়েটার পাশেই বসে আছি আমি।
টিকেট এর জন্য আসলে আমি টিকেট দেখালাম কিন্তু কাজ হলোনা তারপর সামনের একটা স্টেশন এ দুজনকে নামিয়ে দিলো।
তারপর থেকেই পিছু নিছে মেয়েটা তারপর এক সাথে হোটেল এ থাকা।
বাকি কাহিনি তো জানেন ই।
,
মেয়েটা আমাকে জড়িয়ে ধরে আছে।
আমি আর কি করবো ওভাবেই ঘুমালাম।
পরের দিন সকালে উঠে বড় সড় একটা ধাক্কা খেলাম।
আমি যা দেখলাম তা দেখে যে কেউ ক্রাশ খাাবে।
মেয়েটা আমাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে আছে সাথে তার
এলোমেলো চুলগুলা তার মুখের ওপর এসে পড়েছে।
জিবনের প্রথম বারের মতো আমি কোনো মেয়েকে এতোটা
কাছে থেকে দেখলাম।
,
আর এই প্রথম বার ই ক্রাশ নামক জিনিসটা খেয়ে ফেললাম।
আমি নিজেকে ছাড়িয়ে নিয়ে ফ্রেস হলাম।
কিছুক্ষন পর মেয়েটাও উঠলো।
,
ফ্রেস হয়ে দুজন এ একসাথে বসে আছি,
- কালকে রাতে আমি আপনাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমাইছি??(নিলিমা)
- হুমম। (আমি)
- আপনি কিছু করেন নাই তো?(নিলিমা)
- না কি করবো?(আমি)
- সত্তি ?(নিলিমা)
- হুমম(আমি)
,
তারপর দুজন এ খেয়ে আসলাম।
সবকিছু গুছিয়ে রওনা দিলাম আবার।
,
রাস্তার পাশ দিয়া হাটতাছি আর ওর সাথে কথা
বলতাছি। আরে আমি না ওই বলতাছে এতো কথা বলতে
পারে মেয়েটা।
উফফ কানের বারোটা বাজিয়ে দিলো।
,
কিছুক্ষন পর আমার ফোন এ কল আসলো,
- হ্যালো ?(আমি)
- হুম কেমন আছিস?(আম্মু)
- ভালো তুমি?(আমি)
- ভালো। তা তুই তো কালকে আসতে চাইলি আসলিনা কেনো?(আম্মু)
- আসতাছি আম্মু আজকে পৌছে যাবে।(আমি)
এমন সময় ও আমার হাত থেকে ফোন নিয়ে বললো,
- আমিও পৌছে যাবো আম্মু?(নিলিমা)
বলেই ফোনটা কেটে দিলো।
হায় হায় এইটা কি করলো ও এবার বাসায় গেলে নিশ্চিত গুলি করে মারবে।
,
আমি রাগি লুক নিয়ে তাকালাম ওর দিকে,
- কি কি ব্যাপার ওইভাবে তাকাচ্ছেন কেনো?(নিলিমা)
- আপনাকে যে কি করবো আমি।(আমি)
*
চলবে,,,,,,,,
,
গল্প পড়তে চাইলে টাইমলাইন দেখতে পারেন এডড ও করতে পারেন
Share:

1 comment:

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label