নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

গল্পঃবেস্ট ফ্রেন্ড যখন অফিসের বস

গল্পঃবেস্ট ফ্রেন্ড যখন অফিসের বস ❤❤
লেখকঃইমন
পর্বঃ০৭/অন্তিম পর্ব
আমি ছোয়ার হাত টা টেনে ধরলাম,,,
ঠাসস
তখন ও আমাকে একটা থাপ্পড় মেরে দিল,,,
আমি ছোয়ার এমন
ব্যবহার দেখে বেস অবাক হলাম কিন্তু ঠোঁটের অনেক একটা ছোট্ট হাসি ফুটে উঠলো,,,
ভালোবাসায় বিশ্বাস এর প্র‍য়োজন হয় যেটা তোমার মধ্যে নেই,,, তুমি আমাকে বিশ্বাসই করো না তাহলে ভালোবাসাবে কি করে,,,, যদি ভালোবাসতে তাহলে বিশ্বাস করতে,, আর তোমাকে ভালোবাসার কথা বলে লজ্জা দিব না ধন্যবাদ তোমাকে এই ব্যবহারটা উপহার দেওয়ার জন্য,,, আর এই ভালোবাসার ভনিতাটা না করলেও পারতেন
কথাগুলো বলে সেখাব থেকে চলে আসলাম
চলে যাব হয়তো এই চেনা শহর ছেরে এই শহর শুধু আমাকে কষ্টই দিয়েছে ভালোবাসা না,,, চলে যাব হয়তো এই শহর ছেড়ে আর হয়তো আসা হবে না ছোয়ার কথা অনেক মনে পরবে কিন্তু কিছু করার নেই আমার,,, ভালোবাসার মর্যাদা সে দিতে পারে না যার কারনে আজ আমাদের ভালোবাসার নৌকা আজ মাঝ নদীতে ডুবে যাচ্ছে,,,,
শুধু এটাই চাইব ছোয়া যেন ভালো থাকে।। আমার থেকে হাজার গুন ভালো ছেলে ও পাবে,,,,
কথা গুলো ভাবতে ভাবতে চোখ দিয়ে অঝোরে বৃষ্টি পরতে লাগল,,,
সারা রাত না ঘুমিয়ে ছোয়ার সাথে কয়েকটা দিনের কথা ভাবছিলাম,,,,
ওর পাগলামো,,, নিজের হাতে খাইয়ে দেওয়া ওর শাসন গুলো খুব মিস করবো,,,,
ও হয়তো এগুলা ভূলে যাবে কিন্তু আমি ভূলতে পারব না মরার আগের মুহুর্ত পর্যন্ত আমি ছোয়াকে ভালোবেসে যাব আর ওর কথাগুলো সরন করে যাব,,,,
হাজারো কথা মনে বাসা বেধে ছিল,,, কিন্তু সেগুলো যাকে বলতে চেয়েছিলাম আজ সেই দূরে এইসব কথার আর কোনো মানে হয় না  আজ তার আর আমার পথ দুটো দুইটা বাকে এসে থেমেছ আজ থেকে তার আর আমার পথ হয়তো আলাদা হয়ে যাবে চিরতরে,,,,
সারাটা রাত  ছাদেই কাটিয়ে দিলাম,,,,
পরের দিব শরীরে হালকা জর আসল,,,,
তাই আর অফিসে গেলাম না,,,

দুই দি পর অফিসে গেলাম
কেবিনে গিয়ে  রেজিক নেশন লেটারটা টাইপ করলাম৷
টাইপ করে ছোয়ার রুমে সামনে এসে দারালাম,,,,
তারপর দরজায় নক করলাম,,,,
ভিতর থেকে  কোনো শব্দ আসছিল না,,,
তাই দরজা টা খুলে ভিতরে গেলাম,,,
ছোয়া আনমনা হয়ে কি যেন ভাবছে,,
চোখের নিচে কালো দাগ পরে গেছে,,,
চেহারা একদম শুকিয়ে গেছে।।
চোখ দিয়ে পানি বেয়ে পরছে
আমি ওকে ডাক দিলাম,,,,
ম্যাম((আমি))
আমার কথা শুনে ওর ধ্যান ভাংলো,,,
সাথে সাথে নিজের চোখটা মুছে নিল
কি ব্যাপার আপনি এই সময়ে আর এতদিন পর অফিসে আসছেন সমস্যা টা কি ((,,ছোয়া))
আমি কিছু না বলে শুধু লেটার টা ওর হাতে দিলাম,,
কি এইটা (+ছোয়া))
আমাএ রেজিগনেশন লেটার,,,,
কথাটা বলার পর ছোয়া আমার দিকে কাদো কাদো চেহারায় তাকালো,,,,
ওর মায়াবী চোখ দুটো কিছু বলতে চাইছে।। কিন্তু ও মুখ ফুটে তা বলছে না,,,,
ম্যাম আমি কিছুদিন পর এই শহর ছেড়ে চলে যাব আর ফিরে আসব না হয়তো,,, তাই চাকরিটা করা সম্ভব হবে না,,,,
ভালো থাকবেন((আমি))
বলেই চলে আসলাম,,,
আজ খুব কষ্ট হচ্ছে।। এক সময় ওর কথায় ওর থেকে দূরে চলে গিয়েছিলাম,,,
আজ হয়তো আমার ভালোর জন্য যাচ্ছি আর ওর আমার ডিবোর্স হয়ে গেছে তাহলে আমি এত ভাবছি কেন এত কষ্ট পাচ্ছি কেন।। সে ত আর আমার নয়,,,
তাহলে এত কেন ভাবছি তাকে নিয়ে আর ভাববো না কিন্তু এই নিষ্ঠুর মনটা যে কোনো কথা শোনে না বার বার আমার সাথে বেইমানি করে৷,,,,
পাচদিন লাগলো  সবকিছু গুছিয়ে নিতে,,, সব কাজ সেরে নিলাম কারন এই শহরে আর কোনোদিন হয়তো আশা হবে না,,,
কিন্তু ছোয়াকে আমি দূর থেকেই ভালোবেসে যাব,,,
হয়তো এখানে সে আমার আর হলো না কিন্তু পর পারে হয়তো তুমি আমার হবে,,,,।
রাত ১১ টা বাজে বাসা থেকে বের হতে যাব,,, তখন একটা ফোন আসল,,,,
হ্যালো কে বলছেন((আমি))
আমি ছোয়ার বাবা বলছি((ওপাশ থেকে))
হ্যা আংকেল বলেন ((আমি))
আমি জানি তোমাদের মধ্যে কি হয়েছে কিন্তু মেয়েটা তোমাকে অনেক ভালবাসে,,, আজ সাত দিন ধরে কিচু খায় না পাচদিন আগে দরজা বন্ধ করে দিয়েছে হাজার ডাকার পরো দরজা খুলে না,,,,
জানো যখন তুমি ফিরে আস,,,
সেদিন রাতে ও আমাকে জড়িয়ে ধরে অনেক কেদেছিল কারন ও  তোমাকে ফিরে পেয়েছিল,,,,
প্লিজ সিয়াম আমার মেয়েটাকে দূরে ঠেলে দিও না,, ওর থেকে দূরে চলে গেলে ও হয়তো আর বাচবেই না আমার উপর দয়া করো আমার মেয়েটাকে আপন করে নেও,,,
কথাগুলো বলেই আংকেল কেদে দিলেন,,,
আমি এখুনি আসছি আপনি টেনশন নিবেন না
তারাতারি করে ছোয়াদের বাসায় গেলাম,,,
আংকেল বসে কাদছেন,,,,
আমাকে দেখে উঠে আসলেন,,
আপনি টেনশন নিয়েন না আমি দেখছি
ছোয়ার রুমের কাছে গিয়ে ডাক দিলাম কিন্তু কোনো সারা শব্দ নেই তাই দরজাটা ভেংগে ফেললাম,,,,
ভিতরে ঢুকে দেখি ছোয়া ঘরের এক কোনে বসে কাদছে,,,,
আমি গিয়ে ওর পাশে বসলাম,,,
ওর মুখে কোনো কথা নেই শুধু চুপচাপ কেদে যাচ্ছে,,,
আমি একটা কাশি দিলাম৷
কি হলো কথা বলবে না তাহলে আমি চলে যাই
বলেই যখন ঊঠতে যাব
তখুনি হাতটা ধরে টান দিলো,,
ঠাসসস, ঠাসস
দুইটা থাপ্পড় মেরে দিল,,,,
ভাবলাম একটা কিস পাবো কিন্তু শেষ পর্যন্ত থাপ্পড় পেলাম কপাল আমার(+আমি))
আর কোনোদিন যদি ছেরে যাওয়ার কথা বলেছিস তাহলে মেরে ফেলবো,,,
বলেই জড়িয়ে ধরে কাদতে লাগলো,,,
কিছুক্ষন পর,,
এতদিন ধরে খাওয়া করোনি কেন চল খাবে ((আমি))
না পরে খাব এখন এভাবেই থাকব (ছোয়া))
না খেলে ত শরীর আরো খারাপ করবে আর আমি চাইনা আমার বউকে খারাপ দেখাক,,,,
আগে কিস খাব ((ছোয়া))
কি ((আমি))
তখুনি ওর ঠোঁট দুটো আমার ঠোঁটের সাথে লাগিয়ে দিল৷ ,,,,,
কিছুক্ষন পর ছেরে দিল৷,,,
দুজনে হাপাতে লাগলাম,,,
এখন চল খেওয়া করবা,,, ((আমি))
কোলে করে নিয়ে চলো((ছোয়া))
এই আটার বস্তা কোলে নিলে ত মরেই যাব ((আমি))
কি বললি ((ছোয়া))
সরি সরি,,
আমী অকে কোলে তুলে নিয়ে নামতে লাগলাম,, নামতে নামতে   ও তাকিয়ে আছে আর বার বার একটা করে গালে কিস দিচ্ছে,,,
আমি ওর কান্ড দেখে মুচকি মুচকি হাসতে লাগলাম৷
ওকে খাইয়ে দিলাম,,,
তারপর ওকে কোলে করে নিয়ে ছাদে আসলাম,,,
দুজনে দোলনায় বসে আছি আমি ছোয়ার কোলে শুয়ে আছি ও মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে আর মাঝে মাঝে একটা করে পাপ্পি দিচ্ছে,,,
হটাত করেই ডিবোর্স পেপার টার কিথা মনে পরল৷

আমি উঠে বসলাম,,,
ছোয়া আমার কাধে মাথা রাখলো,,,
ডিবোর্স পেপারটা ((আমি))
পুরিয়ে ফেলেছি((ছোয়া))
এরপর দুজনে কিছুক্ষন চুপ করে থাকলাম,,,,
হটাৎ করেই ছোয়া বল্ল
আমাকে আর ছেড়ে যেবে না ত,,,,
জীবনের শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত তোমার হাত ধরে পাশে থাকব,,,, ((আমি))
আমাকে মাফ করে দেও,,,, ((ছোয়া),)
কেন ((আমি))
তোমাকে এত কষ্ট দেওয়ার জন্য ((ছোয়া))
মাফ চাইতে হবে না ভালোবাসা দিয়ে পুশিয়ে নিব আমি,,,,
জড়িয়ে ধরলাম ছোয়াকে দুজনে চান্দি রাতটা উপভোগ করতে লাগলাম,,,,,,
পরিপূর্ণ হলো আমাদের ভালোবাসার গল্পটা,,,,

সমাপ্তি ঘটলো আরেকটি প্রেম কাহিনির,,,, 🔚🔚🔚🔚🔚

এতদিন ধরে পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ কেমন লাগলো জানাতে ভূলবেন না

🙏🙏🙏🙏
Share:

No comments:

Post a Comment

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label