বাংলা মজার জোকস, বাংলা কৌতুক, হাসির কৌতুক, bangla jokes, bangali jokes, mojar jokes, bangla funny koutuk, hasir koutuk, bangla koutuk, bangla hasir koutuk, doctor jokes, Bd Jokes, খারাপ জোকস, ছোট ছোট হাসির জোকস,

কেমন বয়সের মেয়ে বিয়ে করা উচিৎ?








 কেমন বয়সের মেয়ে বিয়ে করা উচিৎ?

কেমন বয়সের মেয়ে বিয়ে করা উচিৎ?

ইতিপূর্বে একাধিকবার পুরুষের পাত্রী নির্বাচন এবং শারীরিক সমস্যা নিয়ে লিখেছি। এখনও আমাদের সমাজে অনেক ক্ষেত্রে ধারণা করা হয়ে থাকে পুরুষের আবার বিয়ের বয়স কিসের। পুরুষ মাত্রেই যে কোন বয়সের একটি মেয়েকে ঘরে তুলতে পারে কিন্তু বিষয়টির সামাজিক প্রেক্ষাপটের চেয়ে শারীরিক বিশ্লেষণ বেশী গুরুত্ব দেয়া উচিত। এই মুহূর্তে বিয়ের ক্ষেত্রে পাত্র-পাত্রীর বয়স নিয়ে লেখার কোন ইচ্ছেই ছিলো না। পুরুষের অন্য একটি বিষয় লিখবো ভেবেছিলাম। কারণ আমার এক পুরুষ রোগীর দীর্ঘদিন পর পিতা হবার চিকিৎসার পেক্ষাপট নিয়ে লিখতে চেয়েছিলাম। এ বিষয়টি পরে লেখা যাবে। যাহোক যা বলছিলাম, দু’তিন, দিন আগে আমার চেম্বারে একটা মেয়ে আসে। উজ্জ্বল শ্যামলা। শরীরের গড়ন হালকা। মেয়ে বললে ভুল হবে, কিশোরী বলাই ভালো। নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে বাড়ী। সোনারগাঁও বললে, আমি নানা কারণে কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়ি। তার একটি কারণ হচ্ছে আমার লেখনীর শিক্ষাগুরু প্রখ্যাত সাংবাদিক লেখক ও কলামিষ্ট জনাব শফিকুল কবির এর বাড়ী এই সোনারগাঁওয়ে। যাই হোক, সোনারগাওয়ের সেই মেয়েটি বললেন, আমি ফর্সা হতে চাই ডাক্তার সাহেব। আমি বললাম তুমিতো অনেক সুন্দর এবং তোমার গায়ের রং যথেষ্ট ভালো। মিয়েটিকে আশ্বস্ত করতে বললাম, আমার মেয়ের গায়ের রং ও তোমার মত। তাছাড়া ত্বক ফর্সা করার কোন চিকিৎসা নেই। আজকাল কিছু কিছু বিউটি পার্লারের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত হয়ে তরুণী-মহিলারা ছুটছেন তক ফর্সা করতে। আসলে ত্বক ফর্সা করার কোন ব্যবস্থা চিকিৎসা শাস্ত্রে নেই। বহুবার বলেছি আমি আমেরিকা ও সিঙ্গাপুরের দু’টি বিখ্যাত হাসপাতালে স্কিন, লেজার ও কসমেটিক সার্জারির ওপর উচ্চতর প্রশিক্ষণ নেয়ার সময় কখনও ত্বক ফর্সা করা সম্ভব এমন কথা শুনিনি। কখনও কেউ বললেনি ত্বক ফর্সা করা যায়। তবে আজকাল লেজার টেকনোলজির সুবাধে ত্বক ব্রাইট করা যায়, ফর্সা করা যায় না। মুখের ব্রাউন স্পট, পিগমেন্ট, তিল, মোল, আঁচিল, অবাঞ্ছিত লোম দূর করা যায়। ত্বক ফর্সা করার কোন লেজার ও চিকিৎসা এখনও বের হয়নি। তবে তথাকথিত হুয়াইটিনিয সিস্টেমের নামে মুখের ত্বক পুড়িয়েং দিয়ে ফর্সা করার মারাত্মক ক্ষতিকর উপায় নিয়ে দু’একটি বিউটি পার্লার প্রচার করে থাকে। এসব অবৈজ্ঞানিক মারাত্মক ক্ষতিকর হুয়াইটিং সিস্টেম নিয়ে আর একদিন বিস্তারিত লিখবো।সোনারগাঁও এর ঐ মেয়েটির কাছে জানতে চাইলাম- তুমি কেন ত্বক ফর্সা করতে চাইছো। প্রথমে মেয়েটি সংকোচ বোধ করলেও সে জানালো আমার বিয়ে হয়েছে একমাস। স্বামী আমেরিকা প্রবাসী। বর্তমানে দেশে আছে। স্বামী চায় আরও ফর্সা ত্বক। এরপর জানতে চাই তোমার স্বামী কোথায়। মেয়েটি বললো ও আমার সঙ্গেই এসেছে। ধারণা ছিলো অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী ১৪/১৫ বছরের মেয়েটির স্বামীর বয়স ২০/২২-এর বেশী হবে না। ওমা বয়সে ৩৮/৪০ এর কম হবে না। প্রথম মিনিট খানেক ভীষণ রাগ হয়েছিলো। যাহোক, রোগীদের ওপর রাগ করার কোন অধিকার ডাক্তারের নেই। স্বাভাবিক হয়ে জানাতে চাইলাম আপনার নতুন বিবাহিত জীবন কেমন কাটছে। এরপর বেশখানিকটা সময় নিয়ে কথা হলো। ত্বক ফর্সা করার ভুল ধারণা ভেঙ্গে দিয়ে কিশোরী মেয়েটিকে বাইরে যেতে বললাম। এর পর মধ্যবয়স্ক যুবকের কাছে জানতে চাই কেন আপনার অর্ধেকের চেয়ে কম বয়সের একটি মেয়েকে বিয়ে করেছেন। যুবকটি কোন সদুত্তোর দিতে পারলেন না। এই যুবকটি ঢাকার একটি নামকরা কলেজ এবং একটি নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। এরপর যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। যুবকটি জানালেন এখনই তাদের ব্যক্তিগত জীবনে সমস্যা হচ্ছে। বললেন ডাক্তার সাহেব শরীর ঠিক রাখতে কোন ওষুধ দেয়া যাবে কিনা। আমি দু’একটি মামুলি প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা করতে দিয়ে আর একদিন আসতে বলি।সুপ্রিয় পাঠক, আজ থেকে ১০ বছর পরের একটি দৃশ্যের কথা চিন্তা করুন। যখন সোনারগাওয়ের কিশোরী মেয়েটির বয়স হবে ২৫। পরিপূর্ণ এক যুবতী। আর যুবকটির বয়স হবে ৪৮/৫০। এ বয়সে নিশ্চয়ই দু’জনের চাওয়া-পাওয়ার ক্ষেত্রে থাকবে অনেক ব্যবধান। এখানে আজকের কিশোরীটির চিরায়ত বাঙালী চরিত্রের রূপায়ণ অর্থাৎ সব কিছু নিরবে মেনে নিয়ে বয়স্ক স্বামীর ঘর করা অথবা পরিবারের সকলের অমতে ভিন্ন চিন্তা করাই কিন্তু আমাদের মত রক্ষণশীল সমাজে সব সময় ছাড়া উপায় নেই। কাজটি করতে পারে না অথবা করে না। যাহোক, আমাদের দেশে এখনও আইন বলবৎ আছে মেয়েদের ১৮ বছরের নীচে এবং পুরুষের ২১ বছরের কম বয়স বিয়ে করা উচিত নয়। বয়সের পার্থক্য কেমন হবে তা অবশ্য আইনে বলা নেই। তবুও একজন নগন্য সেক্সোলজিষ্ট হিসেবে আমার নিজস্ব অ্যাসেসমেন্ট হচ্ছে বিয়ের ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের বয়সের ব্যবধান বেশী থাকা বাঞ্ছনীয় নয়। এছাড়া কোন অবস্থাতেই মেয়েদের ১৮ বছরের নীচে বিয়ে দেয়া উচিত নয়। সম্ভব হলে মেয়েদের নূন্যতম বিয়ের বয়স ২০ বছর নির্ধারন করা উচিৎ। বিয়ের ক্ষেত্রে ছেলে-মেয়েদের একই বয়সী না হলে বয়সের ব্যবধান সর্বোচ্চ ৫/৭ বছরের মধ্যে থাকা ভালো। তবে যে কোন মেয়ে তার পরিপূর্ণ বয়সে যে কোন বয়সের পুরুষদের বিয়ে করার আইনগত অধিকার রাখেন। এটা নিশ্চয়ই তার নিজস্ব ব্যাপার। তবে অপরিণত মেয়েদের ক্ষেত্রে স্বামীর বয়স নির্ধারণ করার দায়িত্ব অবশ্যই অভিভাবক বা পিতা-মাতার। শারীরিক ও মানসিক সমস্যা এড়াতে অবশ্যই স্বামী-স্ত্রীর বয়সের ব্যবধান কম হওয়া উচিত। পাশাপাশি যদি কেউ বেশী বয়সে বিয়ে করতে চান তাদের অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করা উচিৎ। এতে ভবিষ্যতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সৃষ্ট নানা সমস্যা এড়ানো যায়।


Share:

জেনে নিন কেন বয়সে বড় মহিলার প্রেমে পড়েন পুরুষরা?

apni কি জানেন, কেন বয়সে বড় মহিলার প্রেমে পড়েন পুরুষরা?
osomo বয়সীর সঙ্গে জুটি বাঁধাই সামাজিক রেওয়াজ৷ সকলেরই ধারণা, প্রেমিক হবেন বড় আর প্রেমিকা তাঁর থেকে অপেক্ষাকৃত কম বয়সের৷ সেই পুরনো যুগ থেকে রীতি একইরকম৷ বিয়ের ক্ষেত্রে এই বয়সের হিসাবই মেনে চলেন বেশীরভাগ মানুষ৷ কিন্তু সমাজের চেনা গতে বাঁধা পড়তে চান না অনেকেই৷ একটু অন্যরকম হতে মন চায় তাঁদের৷ সৃষ্টিছাড়া বলে গালমন্দ হয়তো শুনতে হয়৷ কিন্তু কি-ই বা করা যাবে? Prem to R বয়সের বেড়াজালে আবদ্ধ থাকতে চায় না! onek ক্ষেত্রেই দেখা যায়, প্রেমিকের তুলনায় প্রেমিকারই বয়স বেশি৷ সে নিক-প্রিয়াঙ্কাই হোক কিংবা মালাইকা-অর্জুন, উদাহরণ হিসাবে ধরা যেতে পারে সুস্মিতা সেন-রোমান শলকেও৷ বলা যেতে পারে, এটাই এখন নয়া ট্রেন্ড৷ কিন্তু kano নিজের থেকে বয়সে বড় প্রেমিকাকেই বেছে নিচ্ছে জেনওয়াই?
১. Boyosi ছোট প্রেমিকা মানেই তার হাজারও আবদার৷ আজ সিনেমা নিয়ে চলো তো কাল শপিং৷ তার কাছে প্রেম মানে আবেগের রঙে স্বপ্নের জাল বোনা৷ কিন্তু বয়সে বড় মহিলার কাছে সম্পর্ক mane dayitto কর্তব্য৷ তাই আবদার তো দূরস্ত বরং কোনও সমস্যা হলে সমাধানের উপায় খোঁজাই তাঁর একমাত্র লক্ষ্য৷ বর্তমান যুগে অফিসের হাজারো ঝক্কি সামলে, সম্পর্কে থাকার জন্য তাই বয়সে বড় মহিলাদেরই বেছে নিচ্ছেন অনেকে৷

২. Boyoshe বড় মানে তার বাস্তব অভিজ্ঞতাও অনেক বেশি৷ শুধু নিত্যনৈমিত্তিক বিষয়ে অভিজ্ঞতাই নয়, বিছানাতেও সদ্য কলেজ পাশ করা প্রেমিকার তুলনায় অনেক বেশি দক্ষতার পরিচয় দেবেন তিনি৷ তাই অনায়াসে বছর ২৫-এর যুবকও মজেছেন তিরিশের মহিলার প্রেমে৷
৩. sudhu সম্পর্কে থাকাই তো নয়৷ সম্পর্ক মানেই পরিণতি পাওয়ার সুপ্ত বাসনায় একে অপরের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া৷ পরিণতির আগে দু’পক্ষের পরিবারিক দিক থেকে নানা সমস্যা আসতে পারে৷ প্রেমিকা বয়সে ছোট হলে সমস্যাগুলি প্রেমিককেই সমাধান করতে হয়৷ কিন্তু প্রেমিকা বড় হলে, সমাধানের দায়িত্ব নেন দুজনেই৷ এছাড়াও বয়সে বড় প্রেমিকার সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝির সমস্যাও কম৷ কারণ তিনি প্রতিটি পরিস্থিতি মানিয়ে নিতে পারেন অনেক বেশি৷
৪. office  পার্টি হোক কিংবা কোন অনুষ্ঠান, অল্পবিস্তর মদ্যপান করেন না সেরকম আর কজনই বা আছেন! আপনার pramika বয়সে ছোট হলে, তা নিয়ে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করবে৷ তাতে আপনার হ্যাংওভার তো কাটবেই না, বরং সম্পর্কে চিড় ধরার সম্ভাবনা৷ কিন্তু আপনি নেশাতুর থাকলে, বয়সে বড় প্রেমিকা করবেন thik উলটোটাই৷ রাতে আপনাকে ঘুমিয়ে পড়তেই বলবেন তিনি৷ পরে আপনাকে মদ্যপান না করার সুফলও বুঝিয়ে বলবেন৷ তাতে সম্পর্কে চিড় ধরার বদলে আরও শক্ত হবে আপনার সম্পর্কের ভিত৷
৫. kothay বলে, একজন সফল পুরুষের জীবনে নাকি কোনও না কোনও নারীর হাত থাকে৷ মানে কোনও নারীর প্রেরণায় জীবনে সাফল্যের শিখর ছোঁয়ার সাহস পান অধিকাংশ সফল পুরুষ৷ বয়সে বড় প্রেমিকা hole naki প্রেমিকের সাফল্যের সিঁড়ি ছোঁয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায় অনেকটাই৷
Share:

গোপন কথা

প্রেমিক-প্রেমিকা

গোপন কথার মজার জোকস

২১টি গোলাপ
Asif: জন্মদিনে তুমি কী উপহার চাও?
Rokiy: আগামীকাল আমার যত বছর পূর্ণ হবে, তুমি আমাকে ঠিক ততটাগোলাপ পাঠাবে। সকালে ঘুম থেকে উঠেই আমি যেন তোমার দেওয়াগোলাপ হাতে পাই।
Asif ও বেশ খুশি। পরিচিত এক ফুলের দোকানদারকে বলে রাখল,পরদিন ভোরবেলায়ই যেন Rokiy র বাসায় ২১টি গোলাপ পৌঁছে যায়।
পরদিন খুশিতে বাকবাকুম করতে করতে Rokiy র বাসায় হাজির Asif।দরজায় দাঁড়িয়েই রাগত স্বরে বলল ফারাহ, ‘চলে যাও তুমি! আর কখনোতোমার মুখ দেখতে চাই না।’
কিছুই বুঝল না Asif। মন খারাপ করে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছিল।এমন সময় দেখা ফুলের দোকানদারের সঙ্গে। দোকানদার হেসে বলল, ‘Sir, ম্যাডাম খুশি হইছে তো? আপনি আমার পুরান Customar, তাই একডজন ফুল বেশি দিছিলাম!’


লুপ
প্রেমিকা: তুমি ১ নম্বর বেকুব।
প্রেমিক: কিন্তু আমি দেখতে সুদর্শন।
প্রেমিকা: কে বলেছে তোমাকে এ কথা?
প্রেমিক: কেন? তুমি বলেছ!
প্রেমিকা: Ami বলেছি, আর তুমি আমার কথা বিশ্বাস করেছ?
প্রেমিক: হুঁ, করেছি।
প্রেমিকা: উফ্! তুমি আসলেই ১ নম্বর বেকুব।
প্রেমিক: কিন্তু আমি দেখতে সুদর্শন!

মনের ভেতর ছোটাছুটি
Boltu বলছে তানিয়াকে, ‘তোমার পা ব্যথা করে না?’
তানিয়া: কেন?
Boltu: কারণ তুমি সারা দিন আমার মনের ভেতর ছোটাছুটি করো!

ATM কার্ডের পাসওয়ার্ড
Topu বলছে তার প্রেমিকাকে, ‘প্রেয়সী আমার, তোমার সঙ্গে আমি আমারসব কথা শেয়ার করতে চাই। আমার সুখ, দুঃখ, হাসি, কান্না…সব!
প্রেমিকা: শুরুটা তাহলে তোমার ATM কার্ডের Password দিয়েই হোক।

প্রতিবাদ
Poltu বলছে Boltu কে—জানিস, লিপি আমার হূদয় ভেঙে দিয়েছে। কিন্তু আমারচেয়ে ও বেশি কেঁদেছে।
Boltu: কেন?
Poltu: কারণ, প্রতিবাদস্বরূপ আমি ওর নতুন আইফোনটা ভেঙে দিয়েছি।


প্রেমপত্র
মালাকে চিঠি লিখেছে জনি। ‘Dear মালা, আমাকে যদি তুমি ভালোবেসেথাক, তাহলে চিঠিটা পড়ো। আর যদি ভালো না বাসো, তাহলে আমাকেচিঠি লিখে জানাও যে তুমি চিঠিটা পড়োনি!’

গোপন কথা
প্রেমিকা: আজ তোমাকে একটা গোপন কথা বলব। কথাটা আরও আগেইবলা উচিত ছিল, কিন্তু বলা হয়ে ওঠেনি। জানি না, তুমি ব্যাপারটা কীভাবেনেবে। আমাকে প্রতি সপ্তাহেই একজন মানসিক রোগের চিকিৎসকের সঙ্গেদেখা করতে হয়।
প্রেমিক: আমিও তোমাকে একটা গোপন কথা বলব। আমাকে প্রতি সপ্তাহেইএকজন School ছাত্রী, একজন College ছাত্রী, একজন স্কুলশিক্ষিকা, একজনগায়িকা এবং একজন লেখিকার সঙ্গে দেখা করতে হয়!

বিবাহিতা মেয়ে
প্রেমিকা: Tumi কি বিয়ের পরও আমাকে এত বেশি ভালোবাসবে?
প্রেমিক: কেন নয়? আমার বিবাহিতা মেয়েদের খুবই ভালো লাগে.
আরো জোকস পড়ুন ঃবিয়ে করব শুধু এটাই না অর্ধেক আপনাকে দিয়া দিব I will not only marry this half of you
Share:

বিয়ে করব শুধু এটাই না অর্ধেক আপনাকে দিয়া দিব I will not only marry this half of you

বিয়ে করব শুধু এটাই না অর্ধেক আপনাকে দিয়া দিব।
bangla funny Jokes 2020
৯ টা মজার জোকস পড়ুন
(( ১ )) 
৬ বছরের এক ছেলে স্টুডিওতে গেল Photo তুলতে।
camera ম্যান ছবি তোলার আগে ছেলেটাকে বলতেসে,
“এই যে বাবু,ক্যামেরার দিকে তাকায় থাকো….কবুতর বের হবে…”
ছে্লেটা তখন camera ম্যানকে বলল,
“ফালতু কথা বাদ দেন,ক্যামেরার ফোকাস ঠিকমত অ্যাডজাস্ট
করেন। পোট্রেট মোডে Photo তুলবেন,macro র সাথে,ISO 200 এর মধ্যে রাখবেন।
High resolution এর ছবি হওয়া চাই।
ফেসবুকে Upload দিব।
Photo ভাল না হলে একটা টাকাও দিব না।
এহ…. আসছে!!!! কবুতর বের হবে!

(( ২ ))
 এক দোকানে আগুন লেগেছে। এটা দেখে Boltu চিন্তা করল, দোকানের ভেতর আটকে পড়াদের উদ্ধার করতে হবে।
Boltu আগুন পেরিয়ে দোকানের ভেতর ঢুকে ৬জনকে বাইরে বের করে আনল।
কিছুক্ষণ পর পুলিশ এসে Boltu কে ধরে নিয়ে গেল।
তার বন্ধু থানায় গিয়ে পুলিশকে জিজ্ঞেস করল, ‘Boltu তো আগুন থেকে মানুষকে উদ্ধার করেছে। সে তো কোনো অপরাধ করেনি।’
কথা শুনে Police রেগে গিয়ে বলল, ‘অপরাধ করেনি মানে? সে Dokan থেকে যাঁদের বাইরে নিয়ে এসেছে, সবাই Fair সার্ভিসের কর্মী !

(( ৩ ))
এক মেয়ে লটারি তে ৫ কোটি টাকা পেয়েছে।
Company চিন্তা করলো হঠাৎ এই সংবাদ মেয়েকে জানালে মেয়ে খুশিতে মরে যেতে পারে। তাই Chandu কে পাঠানো হল এমনভাবে বলার জন্য যাতে মেয়ে খুশিতে না মরে।
Chandu মেয়েকে গিয়ে বললঃ মনে করেন আপনি ৫ কোটি টাকা পেলেন তাহলে কি করবেন?
মেয়েঃ আপনার সামনে Dance করবো, আপনাকে ভালবাসবো, বিয়ে করব শুধু এটাই না অর্ধেক আপনাকে দিয়া দিব
শালা Chandu খুশিতে নিজেই মইরা গেল ।


(( ৪ ))
দুই বন্ধুর মধ্যে কথা হচ্ছে:-
১ম বন্ধু: তোর girl friend তকে Phone দিলে তোর
মা তকে বকে না???
২য় বন্ধু: না
১ম বন্ধু:কেন??
২য় বন্ধু:কারন আমি আমার GF এর নাম bettery low নামে save করছি।Call
আসলে মা চার্জে দেয় তখন আমি Call ধরি

(( ৫))
Sir: বলোতো
B.B.C এর পুরো বাক্য কি?
বল্টু:Sir, বর বিস্কুট কোম্পানি।
স্যার: ভারী বেয়াদপ ছাত্র।
বল্টু: Sir আপনারটাও ঠিক আছে।।।।

(( ৬ ))
police: লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালাস্? নবাব অইয়া গেছস্‌
ড্রাইভারঃ স্যার! বুলে কাগজ বাইত থইয়া আইছি।
police: ১০০ ট্যাহা ছাইরা ফুট এইহান’তে।
ড্রাইভারঃ ২০ টা টেহাই আছিন।
police: ফহিননি’র পুত কুনহান’কার! হারাদিন কি করছস? আইচ্ছা,২০ ট্যাহাই দ্যে।
ড্রাইভারঃ স্যার! নাই ত.মুবাইলও ফ্লেক্সি দিয়ালছি !
police: বুজ্জি! বিড়ি ত খাছ। এক্কান বিড়ি দে !
ড্রাইভারঃ বিড়ি খাইনা স্যার !
police: এল্লা কি Ar করবি পিঠ’ডা খাউজ্জাইয়া দিয়া যা !

(( ৭ ))
 Joy থানায় চুরির অভিযোগ জানাতে গেল
Joy : Sir, আমার বাড়িতে কাল চুরি হয়েছে।
ও.সি : What Happened !!!!!!!!!
Joy : English কইব- কাটিং দ্যা বাঁশের বেড়া, ঢুকিং দ্যা চোর, টেকিং দ্যা মাল পত্র আউট অফ দ্যা ডোর।
ও.সি : What is Baasher Bera ??????
Joy : Some ব্যাম্বু খাড়া-খাড়া, সাম ব্যাম্বু আড়া-আড়া, মাঝখানেতে পেরেক মারা, দ্যাট ইজ কল বাঁশের বেড়া।


(( ৮ ))
টিভির এক চ্যানেলে গতানুগতিক Live প্রোগ্রাম হচ্ছে..
উপস্থাপিকাঃ Hello, আপনি কোথা থেকে কল করছেন??
কলারঃ ঢাকা থেকে, উপস্থাপিকাঃ “ঢাকার কোথা থেকে?
কলারঃ লালমাটিয়া,
উপস্থাপিকাঃ Wow ! আমিও লালমাটিয়াতে থাকি! লালমাটিয়ার কোথায় থাকেন আপনি? কলারঃ আমিনুদ্দি এপার্টমেন্টে,
উপস্থাপিকাঃ কি আশ্চর্য!! আমিও তো ওই এপার্টমেন্টে থাকি!!
আপনার Flat নাম্বার কত??
কলারঃ আরে উজবুক!! আমি তোমার স্বামী!! বাসার চাবি তুমি কোথায় রাখছ?

((  ৯ ))
Raji :মা আজ আমার এক বন্ধু আসবে। বাসার সব খেলনা লুকিয়ে রাখো !
Maa : কেন সোনা ? তোমার বন্ধুর কি হাতটানের অভ্যাস আছে নাকি?
Raju : না! না! তা হবে কেন?
তবে ও Jodi চিনে যায় যে খেলনা গুলো ওর, তাহলে খুব সমস্যা হবে!
আরো জোকস পড়ুনঃ আই লাভ ইউ জোকস

Share:

I LOVE বলার NEW FUNNY JOKES

I LOVE বলার NEW FUNNY JOKES


Class দশম শ্রেনীর এক ছাত্র...
ঐ ক্লাসের এক মেয়েকে...
"I LOVE YOU" লিখে চিঠি দিল...!!! .
মেয়েটি রেগে গিয়ে চিঠি... স্যারকে দেখালো... .
চিঠি পড়ার পর SIR...
ছেলেটিকে অনেক পেটালো...!!! .
অভিমানী ছেলেটি কয়েক...
দিন আর স্কুলেই গেলনা...!!! .
ইতিমধ্যে ছেলেটির প্রতি...
মেয়েটিরও মায়া হয়ে গেল। আর সেও ছেলেটির...
প্রেমে পড়ে গেল...!!! .
একদিন মেয়েটি ছেলেটির.. .
একটি বই এর... শেষের পৃষ্ঠায়...
"I LOVE YOU TOO" লিখে দিলো... .

কিন্তু ছেলেটির মন কিছুতেই গলল না...
মেয়েটি ২ বছর ধরে রিপ্লাইয়ের...
অপেক্ষায় থাকল, কিন্তু ছেলেটি আর...
রিপ্লাইই দিলনা...!!! .
বলেন তো কেন...!!!...?
আসলে,মেয়েটির বুঝা উচিত ছিল...!!!
"কিছু কিছু ছেলেরা বই- এর শেষের পৃষ্ঠা...
খোলা তো দুরের কথা, বই-ই খুলে
দেখেনা...!!!........... .
আরো জোকস পড়ুনঃ বল্টুর বাংলা  ফানি মজা জোকস

আমার জোকস গুলো কেমন হয় জানাবেন কিন্তু কমেন্টে
Share:

Boltur Bangla Funny Mojar Jokes বল্টুর বাংলা ফানি মজা জোকস

Boltur Bangla Funny Mojar Jokes
Boltu স্কুলে দেরি করে এসেছে,
ইংরেজি ক্লাস শুরু হয়ে গেছে
ইংরেজি Sir বল্টুকে দেখে বলল
Sir: Boltu
ইউ আর লেট? বাট হোয়াই?
Boltu: Sir আমাদের গাড়ি কাদার
মধ্যে আটকে পড়েছিল
Sir: নো, নো, নো,
টেল মি ইংলিশ

Boltu: Sir আওয়ার গাড়ি ওয়াস পড়িং ইন
কাদা নো নড়িং চড়িং, অনলি ভুম ভুম
সাউন্ড করিং ! !!!!!!
স্যার বেঁহুশ
আরো জোকস পড়ুনঃ সুন্দরি মেয়ে বলে কি What does the beautiful girl say
Share:

সুন্দরি মেয়ে বলে কি What does the beautiful girl say

সুন্দরি মেয়ে বলে কি মজার জোকস

খুব লাজুক এক ছেলে এক রেস্টুরেন্ট এ গিয়ে দেখল এক খুব সুন্দরি মেয়ে একা বসে আছে সে সাহস করে সেই মেয়ের কাছে গেল আর বলল “ আপনি যদি কিছু মনে না করেন আমি কি আপনার পাশে বসতে পারি??
মেয়ে চিৎকার করে উঠল “ Apni আমাকে কি মনে করছেন?? আমি আপনার সাথে রাত
কাটাবো!! ননসেন্স” !!
সাথে সাথে রেস্টুরেন্ট এর সবাই ছেলেটির দিকে ঘুরে তাকাল আর সবাই কড়া চোখে তার দিকে তাকাল সেটা দেখে ছেলেটি খুব ই বিব্রত আর লজ্জিত হল সে চুপচাপ গিয়ে অন্য এক টেবিল এ বসে পড়ল!!

কিছুক্ষণ পর মেয়েটি ছেলের কাছে গিয়ে ফিস ফিস করে বলল “ Ami মনোবিজ্ঞানের ছাত্রী তাই বিভিন্ন বিব্রতকর পরিস্থিতিতে মানুষ কেমন আচরন করে সেটানিয়ে গবেষণা করছি কিছু মনে করবেন না !”
তখন ছেলে চিৎকার করে বলে উঠলো “কি??? ৩,০০০ tk এক রাতে খুব বেশি হয়ে গেল “ !!
আরো মজার জোকস পড়ুনঃGf এর বিয়েতে যাচ্ছিলাম
Share:

Gf এর বিয়েতে যাচ্ছিলাম

Gf এর বিয়েতে যাচ্ছিলাম

রাস্তায় দ্রুত গাড়ি চালানোর কারণে এক তরুণকে  Police অফিসার আটক করেছেন। লোকটার শুধু একটাই কথা, ‘আগে আমার কথা তো শুনুন।’
কিন্তু Police অফিসারও নাছোড়বান্দা। ‘না, কোনো কথাই শুনব না। জেলের বড় কর্তা না আসা পর্যন্ত তোমাকে কিছুতেই ছাড়া যাবে না।’
ঘণ্টাখানেক পর Police অফিসার ওই তরুণকে বললেন, ‘তুমি আসলে ভাগ্যবান। আজকে Amader বড় স্যারের মেয়ের বিয়ে। তাই আজ তিনি যখন অফিসে আসবেন, তখন তাঁর মেজাজ খুবই ঠান্ডা থাকবে।’

এতক্ষণে কথা বলার সুযোগ পেয়েই তরুণ হাউমাউ করে বলে উঠল, ‘বড় কর্তা এলে Apner খবর আছে। আমিই তাঁর মেয়ের হবু বর! বিয়েতে যাচ্ছিলাম।’
আরো জোকস পড়ুনঃ প্রেমিকার সঙ্গে রিকশায় মজার জোকস
Share:

প্রেমিকার সঙ্গে রিকশায় মজার জোকস

প্রেমিকার সঙ্গে রিকশায় মজার জোকস

বসের সঙ্গে ফোনে কথা হচ্ছে কর্মচারীর।
কর্মচারী: sir, আজকে আমার শরীরটা খুব খারাপ। আজ অফিসে আসতে পারব না।
বস: শরীর খারাপ থাকলে আমি কী করি জানো?

Amar প্রেমিকার সঙ্গে রিকশায় ঘুরে বেড়াই, বেশ Valo লাগে। তুমিও চেষ্টা করে দেখতে পারো।

কিছুক্ষণ পর বসকে ফোন করলেন কর্মচারী। বললেন, 'Sir, আপনার বুদ্ধিটা বেশ কাজে লেগেছে। রিকশায় ঘুরে খুব ভালো লাগছে। আপনার প্রেমিকাও বেশ স্মার্ট, রিকশা ভাড়াটা সেই দেবে বলেছে…!’
আরো জোকস পড়ুনঃ প্রেমিকার প্যারা
Share:

ঘটা করে বিয়ে আর প্রেম করে বিয়ের মধ্যে পার্থক্যটা জেনে নিন অবাক হয়ে যাবেন

আমি সব সময় চায় মজার মজার জোকস আপনাদের  উপহার দিতে। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন আমি যেন মজার মজার জোকস লিখতে পারি

দুই বন্ধু Raju আর Saju এর মধ্যে কথা হচ্ছে—
Raju: বল তো, ঘটা করে বিয়ে আর প্রেম করে বিয়ের মধ্যে পার্থক্য কী?
Saju: এটা তো খুবই সোজা।
Raju: আহা বল না।
Saju: শোন, পার্থক্যটা খুবই সাধারণ। প্রেম করে বিয়ে করলে নিজের প্রেমিকাকে বিয়ে করতে হয়,
আর ঘটা করে বিয়েতে অন্যের প্রেমিকাকে বিয়ে করতে হয়।
আরো জোকস পড়ুন ঃ মেয়েদের মন নিয়ে মজার জোকস
Share:

মেয়েদের মন

মেয়েদের মন 

Poltu হেঁটে যাচ্ছিল বনের ভেতর দিয়ে। ঘুটঘুটে অন্ধকার। হঠাৎ শোনা গেল অশরীরী আওয়াজ, ‘Poltu’।
Poltu: কে? কে কথা বলে?
অশরীরী: ভয় পেয়ো না। আমি ইচ্ছাপূরণ দৈত্য। আজ এই Happy দিনে আমি তোমার একটি ইচ্ছা পূরণ করব। বলো, কী চাও তুমি?
সাহস ফিরে পেল Poltu। বলল, ‘আমার জন্য পুরো বিশ্ব পরিভ্রমণ করে আসবে, এমন একটা ট্রেন সার্ভিস চালু করে দাও, যেন আমি ঘুরে ঘুরে সব দেশের নববর্ষের উৎসব উপভোগ করতে পারি।’
দৈত্য: এটা তো খুব কঠিন কাজ। তুমি বরং অন্য কিছু চাও।

Poltu: তাহলে আমাকে এমন ক্ষমতা দাও, আমি যেন মেয়েদের মন বুঝতে পারি।
দৈত্য: ট্রেন কি এসি, নাকি নন-এসি লাগবে?
আরো জোকস পড়ুন ঃ মেয়েদের বোকা বানানোর S.M.S
Share:

বোকা বানানোর এস এম এস (boka bananor SMS)

বোকা বানানোর এস এম এস (boka bananor SMS)
১) মেয়ে:-তুমি একটা বদ ।
ছেলে:-তুমি কি ভালো ?
মেয়ে:-হ্যাঁ, আমি ভালো ।
ছেলে:-তার মানে তুমি বদ না?
মেয়ে:-হ্যাঁ, আমি বদ না ।
ছেলে:-RFL বদনা ?
 মেয়ে:-না, মানে আমি বদ না ।
 ছেলে:-সেটাই তো বললাম তুমি RFLবদনা ।

 ২) ক্লাসে Sir ছাত্র ছাত্রীদের বললঃ "একটা গান করোতো" ছাত্রছাত্রীঃ ok Sir ।
ছাত্রীঃ আতা গাছে তোতা পাখি, নারকেল গাছে ডাব।
ছাত্রঃ তোরে আমি বিয়া করবো, কি করবে তোর বাপ ??

Sir: It's 100% Love.. Love.. Love.

৩) আম গাছে আম ধরে নারিকেল গাছে ডাব । ছেলেদেরকে মিসকল মারা মেয়েদের স্বভাব । গাছের বল লতাপাতা, মাছের বল পানি । এ যুগের মেয়েরা চায়, পঁয়সাওয়ালা Husband !!

৪) চরম একটি ছড়াঃ ছোট ছোট ছেলে- মেয়ে প্রেমে পড়েছে । পার্কে গিয়ে তারা আবার ধরা খেয়েছে । কে দেখেছে কে দেখেছে Teacher দেখেছে । এবার বলো Teacher কেন .......... পার্কে গিয়েছে ???
Share:

বাংলাদেশের সেরা এক হালি মজার জোকস The best one in Bangladesh is the funny jokes

বাংলাদেশের সেরা এক হালি মজার জোকস

গামছা
সাধুবাবা Tar অনুসারীদের নিয়ে বঙ্গোপসাগরে গেছেন স্নানের জন্য, উদ্দেশ্য পাপ ধুয়ে ফেলা। গোসল শেষ করে সবাই উঠলো কিন্তু সাধুবাবার ওঠার কোন নাম নেই।
তা দেখে একজন বলল, কি সাধুবাবা, Apni উঠছেন না কেন?
সাধুবাবা উত্তরে Bollen, বৎস, পাপ ধোয়ার সাথে সাথে গামছাটাও যে ধুয়ে চলে যাবে তা ভাবতেই পারিনি!


সেভ
পল্টু: এখনে চুল কাটাতে কত লাগে?
নাপিত: ৪০ টাকা!
পল্টু: আর সেভ করতে কত লাগে?
নাপিত: ২০ টাকা!
পল্টু: আমার মাথাটা একটু সেভ করে দে!

ওয়াদা

শিক্ষক: তোমরা ওয়াদা কর যে, কখনও Cigarette পান করবে না।
ছাত্ররা: ওকে স্যার পান করবো না।
শিক্ষক: মেয়েদের পিছে পিছে ঘুরবে না।
ছাত্ররা: ওকে স্যার ঘুরবো না।
শিক্ষক: ওদের কখনোও ডিস্টার্ব করবে না।
ছাত্ররা: ওকে স্যার, ডিস্টার্ব করবো না।
শিক্ষক: দেশের জন্য জীবন কোরবান করবে।
ছাত্ররা: অবশ্যই sir, এই রকম জীবন দিয়ে আর করবই বা কি!


তাইলে থাপ্পর মারলি ক্যান
Boy: আই লাভ ইউ।
Girl: (ঠাস করে থাপ্পর মেরে ) কী বললি শয়তান ?
Boy: (ঠাস ঠাস করে দুটো থাপ্পর মেরে) শুনতেই যখন পারিস নাই, তাইলে থাপ্পর মারলি কেন হারামজাদি?
আরো সেরা মজারর কৌতুক পড়ুনঃঈদে মেয়ে পটানোর জোকস
Share:

ঈদে মেয়ে পটানোর জোকস

‘Eid’ কেন ‘ইদ’ হয়ে গেল?

‘Eid’ কেন ‘ইদ’ হয়ে গেল ? কোটি টাকার এই প্রশ্নের উত্তর সবাই ইতিমধ্যে জেনে গেছেন। তবে জানার কোনো শেষ নেই। আর তাই হাস্যরস আপনার জানার পরিধি বাড়িয়ে দিতে কিছু কাল্পনিক কারণ বের করেছে। আসুন দেখে নিই।

১. ‘ঈ’ সেলিব্রিটি শব্দ।ইদ আসলেই TV. তে কিংবা Print মিডিয়াসহ সব মাধ্যমে ‘ঈ’ অর্থাৎ ‘দ’ এর আগে ‘ঈ” বর্ণ যুক্ত করে ‘ঈদ’ নিয়ে সবাই মাতামাতি করে।এতে বেচারা ‘ই’ ইমেজ সংকটে পড়ে।হয়তো বা সেজন্য ষড়যন্ত্র করে ‘ঈদ’ থেকে ‘ঈ’ সরিয়ে ‘ইদ’ করে ফেলছে।

২. ইদানীং দেশে ব্রেকআপের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলছে।বলা তো যায় না ‘দ’ এর সঙ্গে ‘ঈ’ -এর বনিবনা না হওয়ায় তাঁদের মধ্যে ব্রেক আপ হয়ে গেছে। আর সেই সুযোগে ‘দ’ কে Emotional Blackmail  করে ‘ই’ পটিয়ে ফেলছে। যার ফলে হয়তো তাঁরা দুজন মিলেমিশে ‘ইদ’ হয়ে সুখের সংসার করছে।

৩. ‘দ’ ‘ঈ’-এর কাছে ইদের Gift  চাইছিল।কিন্তু ‘ঈ’ বেতনের অজুহাত দেখিয়ে দেয়নি গিফট । হয়তো বা সেজন্য ‘ঈ’ এবং ‘দ’ এর মধ্যে বিচ্ছেদ হয়ে গেছে। ফলাফল ‘দ’ অভিমান করে তাঁর Collহege লাইফের বেস্ট Friend ‘ই’ কে বিয়ে করে ‘ইদ’ হয়ে গেছে।


পুরনো Mobile দিয়ে নয়া Mobile নিন

সব সময় Free জিনিস খোঁজেন জাম্বু ভাই।

ঈদের আগে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন ছাপা হয়েছে- পুরনো  Mobile দিয়ে নয়া Mobile নিন! এমন অফারের কথা জেনে Joy ভাই ছুট লাগালেন ঠিকানামতো।
কিন্তু গিয়ে নির্দিষ্ট দোকান খুঁজে পেলেন না। মনে হলো ঠিকানাটা ভুল। এলাকা সুনসান। জিজ্ঞেস করার লোকও নেই। এ সময় দেখা গেল তারখাম্বার নিচে দুই তরুণ দাঁড়িয়ে গল্প করছে। তাদের দিকে এগিয়ে গেলেন তিনি…

Joy : ভাই Mobile বদলানোর দোকানটা যেন কোনদিকে?
দুই তরুণ সহসাই পিস্তল বের করে কঠিন গলায় বলে : বিজ্ঞাপনটা আমরাই দিছিলাম। অহন পকেটের Mobile টা দিয়া তাড়াতাড়ি গিয়া নয়া Mobile কিন্যা ল! নইলে…
Share:

এবার ঈদের কিছু হাসির জোকস পড়ুন (Eid Jokes Funny)

ঈদের কিছু মজার জোকস দেখে নেওয়া যাক—

 প্রথম ব্যক্তি :ভাই,আপনি তো কোটিপতি। তারপরও এই ঈদে ব্যাংকে Loan নিতে আইছেন কেন?
দ্বিতীয় ব্যক্তি :আসলে আমার স্ত্রীর শাড়ি আর তার সাথে ম্যাচিং করে গয়না কিনতে যেয়ে ফকির হওয়ার অবস্থা। এখনো মেয়ের কিরণমালা Dress কেনা বাকি। ফকির না হয়ে উপায় আছে?

Rohim :করিম ভাই,আপনি হঠাত্ করে হাসপাতালে ভর্তি হলেন কেন?

Korim :আর কইয়েন না ভাই, আপনার ভাবির সাথে শপিংয়ে বের হয়ে সাতদিন ধরে সারা মার্কেট হেঁটেছি। পা-টা একদম শেষ। তাই বিশ্রাম নেওয়ার জন্য সরাসরি মেডিকেলে ভর্তি হইছি।

প্রথম ব্যক্তি : ভাই, আজকে ঈদের দিনেও আপনার মন খারাপ কেন?
দ্বিতীয় ব্যক্তি :কী করব কন! টিভিতে ঈদ স্পেশাল একটা Natok দেখতেছিলাম, কিন্তু Narok শুরু হওয়ার ২০ মিনিট পরেই বিজ্ঞাপন শুরু হইছিল কিন্তু বিজ্ঞাপন আর শেষও হয়নি, সেইসাথে নাটকের পরবর্তী অংশও আর শুরু হয়নি। সম্পূর্ণটা দেখতে পারলাম না, তাই মন খারাপ।

Abul : ভাই, আমি তো আপনার থেকে বয়সে ছোট। তারপরও আমারে সালাম করলেন কেন?
Mokbul : বড়-ছোট ওইসব কিছু বুঝি না, আগে ঈদের সালামির জন্য ৫০০ টাকা বের করেন।
Share:

Search This Blog

Blog Archive

Labels

Recent Posts

Label