নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

চুমু খাওয়ার Funny Koutuk

Romantic Jokes Bangla


"তোমাকে কেউ চুমু খেয়েছিলো?"


স্বামী(Husband): আচ্ছা বিয়ের আগে তোমাকে কেউ চুমু খেয়েছিলো?
স্ত্রী(wife): School থেকে একবার পিকনিকে গিয়েছিলাম। সেখানে আমাকে একা পেয়ে একটা ছেলে ছোরা বের করে বলেছিলো, যদি চুমু না খাও, তাহলে খুন করে ফেলবো।
স্বামী(Husband): তারপর তুমি চুমু খেতে দিলে?
স্ত্রী(wife): দেখতেই পাচ্ছো, আমি এখনও বেঁচে আছি।


 Funny Koutuk


"চুমো খাওনি"

হলিউডের Akjon উচুদরের অভিনেতা তার অভিনীত একটা ছবি দেখার জন্য স্ত্রীকে সিনেমা হলে গিয়ে ছবি দেখার জন্য বসলেন ।
সিনেমার মাঝামাঝ জায়গায় নায়কের নায়িকার চুমু খাওয়ার একটা দৃশ্য দেখে অভিনেতার স্ত্রী অভিযোগ করলেন যে , Ami এতদিন তোমার সঙ্গে বিবাহিত জীবন যাপন করছি অথচ কখনো আমাকে তুমি অমন করে চুমো খাওনি।
অভিনেতা বললেন Tumi যদি জানতে যে এই একটি চুমু খাওয়ার জন্য তারা আমায় কত টাকা পারিশ্রমিক দিয়েছে তাহলে আর অমন অভিযোগ করতে না।

Share:

বাংলা Jokes Doctor and Patient হাসির জোকস

বাংলা Jokes Doctor and Patient হাসির জোকস

ডাক্তার এর কাছে রোগীর ফোন।
রোগী (Patient): ডাক্তার সাহেব আমাকে বাঁচান! আমি মনে হয় ১০ মিনিটের মধ্যে মারা যাবো।
ডাক্তার(Doctor) : একটু অপেক্ষা করুন, Ami ২০ মিনিটের মধ্যে  আসছি।
Share:

Bangladeshi বুড়ির হট জোকস

 Bangladeshi বুড়ির হট জোকস

সে Ak আদ্যিকালের কথা।এক রাজ্যে ছিল এক বুড়ি।বুড়ির খুব দু্ঃখ।তার স্বামী মারা গেছে বহু আগে,কোন ছেলেপেলেও নেই।আছে শুধু একটা ছাগল।ভিক্ষা করে কোনরকমে নিজের আর ছাগলের পেট চলে।
তো Akdin বুড়ি ভিক্ষা করছে।এক বাড়িতে তাকে ভিক্ষা দিল একটা প্রদীপ।বুড়ি ভাবল এটা দিয়ে কি করা যায়?যা থাকে কপালে ভেবে ঘষা দিল প্রদীপে।
Tarpor যা হয় আর কি।এক জ্বিন এসে হাজির।বলল,হুকুম করুন।আপনার তিনটা ইচ্ছা পূরণ করব।
বুড়ি Tar প্রথম ইচ্ছা জানাল,আমাকে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর রাজপ্রাসাদের মালিক বানিয়ে দাও।
যো হুকুম।বুড়ি রাজপ্রাসাদে এসে গেল।
আপনার দ্বিতীয় ইচ্ছা কি?
আমাকে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর রাজকন্যা বানিয়ে দাও।
তাই হল।
তৃতীয় ইচছা কি?
Amar পোষা ছাগলটাকে পৃথিবীর সবচেয়ে যৌনআবেদনময় পুরুষ বানিয়ে দাও।
বুড়ির এই ইচছাও পূরণ হল।
আমি এখন মুক্ত।এই বলে জ্বীন অদৃশ্য হল।
Osam যুবক (যে কিনা আগে ছাগল ছিল) এগিয়ে এল বুড়ির(যে এখন সুন্দরী রাজকন্যা) দিকে।বুড়ির নিঃশ্বাস ভারী হয়ে এল।বুড়ির কানে কানে সে বলল,আপনার কি মনে আছে শৈশবে আপনি আমাকে ছাগল থেকে খাসী করে দিয়েছিলেন???
Share:

বাংলা মজার কৌতুক

বাংলা মজার কৌতুক

এক হিন্দু পুরোহিত, এক হুজুর আর এক রাজনীতিবিদ গাড়িতে করে যাচ্ছিলো। পথে তাদের গাড়ি নষ্ট হয়ে গেলো। ভাগ্য ভালো কাছেই একটা ফার্মহাউজ ছিলো। মালিক তাদেরকে জায়গা দিলো রাতটা থাকার জন্য। তবে মাত্র একটা Room তারা পেলো যেখানে মাত্র ২টা বিছানা ছিলো। ফলে কাউকে না কাউকে খোঁয়াড়ে শুতে যেতেই হতো।
হিন্দু পুরোহিত স্বেচ্ছায় খোঁয়াড়ে শুতে গেলো। Aktu পর দরজায় টোকা পড়লো। দেখা গেলো হিন্দু পুরোহিত ফিরে এসেছে। সে বললো, খোঁয়াড়ে একটা গরু আছে। গরু যেহেতু পবিত্র তাই এক সাথে থাকা তার পক্ষে সম্ভব না।
অত:পর হুজুর খোঁয়াড়ে থাকতে রাজি হলো। কিন্তু একটু পরেই দরজায় টোকা দিলো সে। জানালো, খোঁয়াড়ে একটা শুয়োর আছে। ধর্মে যেহেতু শুয়োর খারাপ, তাই ওটার সাথে খোঁয়াড়ে থাকা তার পক্ষে সম্ভব না।
অগত্যা রাজনীতিবিদ খোঁয়াড়ে থাকতে গেলো। Aktu পরে দরজায় টোকা পড়লো। এবার গরু আর শুয়োরটা এসেছে।
Share:

বাংলা হাসির কৌতুক Doctor and Patient

বাংলা হাসির কৌতুক Doctor and Patient

Patient: ডাক্তার সাব, আপনি বলেছেন চশমা নিলে আমি পড়তে পারব।
Doctor: নিশ্চয়ই এ বিষয়ে সন্দেহ কি?
Patient: তাহলে ভালোই হবে। আমিতো পড়তে জানতাম না ।
Share:

Doctor and Patient হাসির জোকস

 Doctor and Patient হাসির জোকস


Patient : ডাক্তার সাহেব আমি খুব চুলকানির সমস্যায় ভুগছি। দয়া করে আমাকে একটা ওষুধ দিন।
Doctor : দোকান থেকে এই ওষুধটা কিনে নিন।
Patient : এতে কি চুলকানি সেরে যাবে?
Doctor : Ami আপনার নখ বড় করার ওষুধ দিয়েছি। যাতে আপনি ভালোভাবে চুলকাতে পারেন।
Share:

বাংলা Doctor and Patient jokes

বাংলা Doctor and Patient jokes

অপারেশরেন রুগীকে কয়েকদিন পরে দেখে -
Doctor: আরে আপনি! কি খবর? এখন কেমন আছেন? কোন সমস্যা হচ্ছে না তো?
Patient: না, কোন সমস্যা হচ্ছে না। তবে হয়েছি কি এখন দম নেয়ার সময় আর ছাড়ার সময় বুকের ভেতরটায় টিকটিক শব্দ করে।
Doctor: (বেশ আনন্দের সঙ্গে) তাইতো বলি, Amar এত দামি ব্রান্ডের হাত ঘড়িটা কই গেল?
Share:

ডাক্তার রোগীর bangla কৌতুক

ডাক্তার রোগীর bangla কৌতুক

এক রোগী Operation থিয়েটার থেকে ছুটে পালাচ্ছেন । তাকে এভাবে ছুটতে দেখে এক ডাক্তার তার পথ আগলে দাঁড়ালেন।
ডাক্তার : ব্যপার কী, আপনি এভাবে পালাচ্ছেন কেন?
রোগী : সাধে কী আর পালাচ্ছি?
ডাক্তার : ঘটনাটা খুলেই বলুন না।
রোগী : Nurse বলছেন, খুব সহজ Operation, ভয়ের কোনো কারণ নেই।
ডাক্তার : Nurse তো ঠিকই বলেছেন।
রোগী : তিনি কথাটি আমাকে বলেননি, বলেছেন যিনি Operation করবেন, সেই ডাক্তারকে।
Share:

প্রেমিক প্রেমিকার বাংলা মজার কৌতুক

প্রেমিক প্রেমিকার বাংলা মজার কৌতুক


Room থেকে পালাচ্ছে এক তরুণী। গেটের কাছে অপেক্ষা করছে তার প্রেমিক। উভয়ের মধ্যে কথা হচ্ছে-
প্রেমিক : তোমার বাবা টের পাননি তো?
প্রেমিকা : উনি বাসায় নেই।
প্রেমিক : বল কী? এত রাতে বাসার বাইরে?
প্রেমিকা : আমাদের জন্য ট্যাক্সি ডাকতে গেছেন।
Share:

বাংলা দুষ্টু জোকস

বাংলা দুষ্টু জোকস

স্ত্রী(Wife): আমি একটা কথা বলি?
স্বামী(Husband): হ্যা বলো
স্ত্রী(Wife):  মারবেনাতো !
স্বামীঃ না
স্ত্রী(Wife):  আমি মা হতে চলেছি
স্বামী(Husband): আরে এটাতো খুশির কথা , এর জন্য তোমাকে মারব কেন?

স্ত্রী(wife): বিয়ের আগে যখন Amar বাবাকে এই কথা বলেছিলাম তখন অনেক মার খেয়েছিলাম
Share:

প্রেমিক প্রেমিকার হাসির কৌতুক

প্রেমিক প্রেমিকার হাসির কৌতুক


প্রেমিকা(Lover)ঃ তুমি কি আমায় ভালোবাস?

প্রেমিক(Boyfriend)ঃ বিশ্বাস না হলে পরীক্ষা করো?
প্রেমিকা(Lover)ঃ ধরো তোমার সার্টের পকেটে মাত্র 500 টাকা আছে, আমি 500 টাকাই চাইলাম, তুমি দিতে পারবে? জরুরি টাকাটায় Lover চোখ পরেছে দেখে, বিব্রত Boyfriend নিজেকে সামলে নিয়ে বললো, কেনো পারবো না, একশবার পারবো | তবে পরীক্ষা তারিখটা একটু পিছানো যায় না |
Share:

হাসির জোকস দেখুন

স্কুলের নতুন শিক্ষিকা Class এইটের ছাত্রদের সাথে পরিচিত হচ্ছেন
প্রথম ক্লাসে, ম্যাডামঃ আমি তোমাদের নতুন ম্যাডাম।
এসো তোমাদের সাথে পরিচিত হই।
প্রথমে ছেলেরা একে-একে দাঁড়িয়ে নিজের নাম এবং একটা Priyo শখের কথা আমাকে বলো।
প্রথম জনঃ আমার নাম Sakil, আমার শখ বৃষ্টি ভেজা পদ্ম দেখা।
দ্বিতীয় জনঃ আমার নাম Liton, আমারও শখ বৃষ্টি ভেজা পদ্ম দেখা।
Avabe সব ছাত্র তাদের নাম বলল এবং প্রিয় শখের কথা বলল, বৃষ্টিভেজা পদ্ম দেখা।
Medum  তো ছাত্রদের আচরণে অবাক, এরপর তিনি মেয়েদের দাঁড়
করালেন এবং নিজের নাম ও শখের কথাবলতে বললেন।
Prothom ছাত্রীটি অত্যন্ত লজ্জিত মুখে উঠে দাঁড়ালো এবং আস্তে আস্তে বললঃ

"আমার নাম Padda এবং আমার শখ বৃষ্টিতে ভেজা!
Share:

মজার মজার হাসির জোকস পড়ুন

মজার মজার হাসির জোকস পড়ুন

Joy : Bondhu আমারে ওই মাইয়ার হাত থাইকা বাঁচাও!!
Bondhu : কেন কি হইছে ??
Joy : যেইদিন থাইকা ওরে বলছি “এই হৃদয় চীরে দেখ শুধু তোমার ই নাম পাবে”
তখন থাইকা “ চাকু” নিয়া পিছে পড়ছে।
Share:

হাসির জোকস পড়ুন মজা পাবেন

হাসির জোকস পড়ুন মজা পাবেন

একদিন ফালুদা দোকানে গিয়েছেন তেল কিনতে। তেল
কিনে ফালুদা রাগে দোকানদারকে বললেন-
ফালুদা : Are ভাই, তেলের সঙ্গে আমার ফ্রি উপহার কই?
দোকানদার : রাগছেন কেন? তেলের সঙ্গে কোম্পানীতো কোনো উপহার দেয়নি।
আমি উপহার বানিয়ে দেব নাকি?
ফালুদা : আরে মশাই, আমাকে বোকা বানাচ্ছেন, না?
আমি কি মূর্খ নাকি যে পড়তে পারি না! তেলের বোতলের গায়েই তো লেখা আছে, কোলেস্টেরল ফ্রি!
কই, সেটা তো দিচ্ছেন না।
Share:

Perfect মেয়ে জোকস

Perfect মেয়ে জোকস

৪০ বছর পার হয়ে গেছে তবু  বিবাহ করেনি এক লোক।

একদিন একজন এর কারণ জিজ্ঞেস করল।
লোকটি বলল, সারা জীবন আমি একটা Perfect  মেয়ের খোঁজ করছিলাম।

–তা একটিও পান নি?
–পেয়েছিলাম একটি, কিন্তু সে আবার একটা Perfect ছেলের অপেক্ষায় ছিল।
Share:

Funny Jokes Bangla

Master: তোমরা নিশ্চিই বুঝতে পেরেছো মানুষ কি ভাবে সৃষ্টি হয়েছে ?
Student : কিন্তু Master মশাই, বাবা যে বললো আমাদের সৃষ্টি হয়েছিল বানরের

থেকে ।
Master: এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে চাই না । কেননা এটা তোমাদের পারিবারিক ব্যাপার ।।
Share:

হাসির জোকস পড়ুন

হাসির জোকস পড়ুন

Interview  বোর্ডে এক যুবককে প্রশ্ন করা হলো, বল তো "ডাক্তার আসিবার

পূর্বে রোগী মারা গেল" এর ইংরেজি কি হবে?
: এটার ইংরেজি টা পারি না Sir | আরবিটা পারি |
আরবিটা পার ? ঠিক আছে বল |
: ইন্নালিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন
Share:

Jokes about the current situation of Bangladesh

Jokes about the current situation of Bangladesh
যৌতিষী(Junkish) : বাংলাদেশের মানুষ হরতাল অবরোধে আরো কিছুদিন দুঃখ কষ্ট ভোগ করবে !
Lokjon  আশান্নিত হয়ে জিজ্ঞাসা করলেন : তারপর শান্তি ফিরে আসবে?
যৌতিষী(Junkish) : তারপর হরতাল  অবরোধে মানুষ অভ্যস্ত হয়ে যাবে।  হরতাল অবরোধকে আর কষ্ট মনে করবে না.
Share:

বাংলা জোকস স্বামী স্ত্রী ঝগড়া

বাংলা জোকস স্বামী স্ত্রী ঝগড়া
Husband-Wife ঝগড়া করছে। ঝগড়ার এক পর্যায়ে স্ত্রী স্বামীর গালে চড় মারল।
স্বামী(Husband): তুমি আমাকে চড়টি সিরিয়াসলি মেরেছ নাকি ইয়ারকি করে মেরেছ?
স্ত্রী(Wife): সিরিয়াসলি মেরেছি।
স্বামী(Husband): তাহলে আজ বেঁচে গেলে, তুমি তো জানো ইয়ার্কি একদম পছন্দ করি না।
Share:

হাসির জোকস

হাসির জোকস

Akbar এক মহিলা মারা গেছেন। লাশ নিয়ে যাচ্ছেন তার স্বামী। স্বামীর পিছনে একটি কুকুর, এর পিছনে কয় এক হাজার লোক। এক লোক এসে স্বামীকে জিজ্ঞাসা করলো যে,
–কি হইছে ভাই…এত লোকজন কেন?

–আমার বউ মারা গেছে
– সরি, তো কিভাবে মারা গেল?
–ওইযে কুকুরটা দেখতে পাচ্ছেন এর কামড় এ
– ভাই আমারে একটু ধার দিবেন আপনার কুকুরটা।
– ঠিক আছে Tahole লাইন এর পিছনে গিয়া serial  দেন।

Share:

ফানি বাংলা জোকস

ফানি বাংলা জোকস

ভিক্ষুক :- স্যার.. ২০টা টাকা দেন.. কফি খাবো।
লোক :- কেন ?? কফি তো ১০ টাকা কাপ..
ভিক্ষুক :- স্যার, সাথে গার্লফ্রেন্ড আছে তো, তাই..
লোক :- ভিক্ষুক হয়ে গার্লফ্রেন্ড ও বানিয়েছ..
ভিক্ষুক :- জ্বী না স্যার.. GF ই বরং আমাকে ভিক্ষুক বানিয়েছে ।।
Share:

বাংলা Boltu জোকস ২

বাংলা Boltu জোকস ২

Boltu ব্যাংকে গিয়ে এক
মহিলা কর্মকর্তীকে
বলল,

Boltu : এই শালী,
আমি Account খুলুম। ৷
মহিলা কর্মকর্তী :
দেখুন,
ভদ্রভাবে কথা বলুন৷।
Boltu : তোর ভদ্রতার গুল্লি মারি !
Account খুল জলদি ৷
↓ মহিলা কর্মকর্তী
ম্যানেজারের কাছে গিয়ে অভিযোগ করল।

manager : কি ব্যাপার,
আপনি এত অভদ্র আচরণ করছেন কেন ?
Boltu : অভদ্র আচরণের খেতায় আগুন
শালা !! আমি লটারীতে ১০ কোটি টাকা পাইছি ৷
Account খুলব কেমনে হেইডা ক !
manager : আরে দুলাভাই
আপনি এই হারামজাদীর সাথে কিসের কথা কন ?
দুলাভাই  আপনি আমার
সাথে আসেন...
Share:

বাংলা Boltu জোকস

বাংলা Boltu জোকস 

বল্টু এফএম রেডিও স্টেশনে কল করল:
"হ্যালো, এটা কী এফএম ৯৭.৫ ??"

F.M : জি, বলুন।
.
.
Boltu : Amar কথা কী পুরা শহরে শোনা যাচ্ছে ?
.
.
F.M : হ্যাঁ, সবাই শুনতে পাচ্ছে বলুন।
Boltu : তারমানে আমার বোন যে Radio শুনছে, সেও শুনতে পাচ্ছে ?
.
.
F.M : (রাগতস্বরে) আরে বেকুব হ্যাঁ।
.
.
.
.
.
.
Boltu : Hello পিংকি, যদি আমার কথা শুনতে পাস তাহলে জলদি পানির মোটর চালু কর।

আমি টয়লেটে বইসা আছি আর পানি শেষ। তোর নাম্বারটাও Bondho। জলদি কর...... !
Share:

বাংলা Doctor and Patient জোকস

বাংলা Doctor and Patient জোকস

Ak দিন এক রোগী ডাক্তারের কাছে গিয়ে বলল, “ডাক্তার সাব, আমার একটা অদ্ভুদ রোগ হয়েছে।”
ডাক্তার বললেন, “কি রকম ? ”
রোগী বলল, “আমি অল্পতেই রেগে যাই। গালাগালি করি”
ডাক্তার বলল, “ব্যাপারটা একটু খুলে বলুন তো।”
রোগী বলল, “হারামজাদা, কয়বার খুলে বলব!!!
Share:

বাংলা জোকস Ambulance হটলাইন জোকস

বাংলা জোকস
Ambulance হটলাইন জোকস

বাসায় পরিবারের সদস্য হঠাত অসুস্থ হয়ে পড়ায় জনৈক ভদ্রলোক Ambulance সার্ভিসকে ফোন দিলেন।
'Ambulance ভুবনে আপনাকে স্বাগতম'। Welcome to Ambulance Center
বাংলায় শুনতে চাইলে ১ চাপুন, ফর English প্রেস ২
[১ চাপার পরে] শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত Ambulance লাগলে ১ চাপুন সাধারণ Ambulance লাগলে ২ চাপুন লক্কর-ঝক্কড় Ambulance লাগলে ৩ চাপুন
[১ চাপার পরে] রোগী হেঁটে Ambulance উঠতে পারলে ১ চাপুন রোগী বসে Ambulance উঠতে পারলে ২ চাপুন রোগী শুয়ে Ambulance উঠতে হলে ৩ চাপুন
[১ চাপার পরে] বুকের ব্যথার রোগী হলে ১ চাপুন কোমরের ব্যথার রোগী হলে ২ চাপুন মাথা ব্যথার রোগী হলে ৩ চাপুন
[১ চাপার পরে] বুকের বাম পাশে ব্যথা বোধ করা রোগী হলে ১ চাপুন বুকের ডান পাশে ব্যথা বোধ করা রোগী হলে ২ চাপুন বুকের উপরের পাশে ব্যথা বোধ করা রোগী হলে ৩ চাপুন বুকের নিচের পাশে ব্যথা বোধ করা রোগী হলে ৪ চাপুন
[১ চাপার পরে] রোগীর গ্যাষ্ট্রিকের সমস্যা থাকলে ১ চাপুন রোগীর গ্যাষ্ট্রিকের সমস্যা না থাকলে ২ চাপুন রোগীর আলসারের সমস্যা থাকলে ৩ চাপুন রোগীর আলসারের সমস্যা না থাকলে ৪
চাপুন
--- --- --- --- --- --- --- --- --- --- --- ---
[১ চাপার পরে] রোগী এখনো বেঁচে থাকলে ১ চাপুন রোগী ইতিমধ্যে মারা গেলে ২ চাপুন
[মেজাজ চূড়ান্ত রকমের খারাপ হওয়ায় রোগীর আত্মীয় ২ চাপলেন]

'লাশ দাফন' সেন্টারে আপনাকে Welcome। আমাদের তত্ত্বাবধানে লাশের গোসল করাতে চাইলে ১ চাপুন নিজ বাসায়
লাশের গোসল করাতে চাইলে ২ চাপুন!
Share:

বাংলা জোকস বল্টুর সাইকেল চুরি

বাংলা জোকস বল্টুর সাইকেল চুরি

বল্টু ঢাকার এক চায়ের স্টলে চা খেতে গেছেন।
 বল্টু তার সাইকেলটি বাহিরে রেখে চা খাচ্ছিলেন।
 দোকানের মালিক আবার সাইকেল চোরাচক্রের সাথে যুক্ত।
 দোকানদার সাইকেলটি সরিয়ে ফেললেন।
 চা পান শেষে সাইকেলের মালিক Boltu বেজায় রেগে গেলেন।
 বল্টু দোকানের মালিককে শাসালেন
 - "অবিলম্বে আমার সাইকেল ফেরত দেয়ার ব্যবস্থা কর
, নইলে
চট্টগ্রামে যা করেছিলাম এখানেও তা-ই করব"
 তার তর্জন-গর্জনে ভীতু হয়ে দোকানদার চোরদের কাছ
 থেকে সাইকেলটি নিয়ে তাকে ফেরত দিলেন। উপস্থিত
 উত্সুক জনতা জানতে চাইল চট্টগ্রামে তিনি সাইকেল হারিয়ে
 কী করেছিলেন? বল্টু গম্ভীর হয়ে জবাব দিলেন-
" কী আর করব? সাইকেল না পেয়ে হেটেই বাড়িতে গিয়েছিলাম।
 দোকানদার Shockzzzzz বল্টু Rockzzzzz

Ha Ha Ha বল্টুরে কেউ পানিতে চুবাও না কেরে....
Share:

Bangla Joks বুড়ো আঙুল!

Bangla Joks বুড়ো আঙুল!


Birampur গেছে ছোট্ট বাবু। কিন্তু রাতে তাঁবুতে শুয়ে কিছুতেই ঘুম আসছে না তার। অগত্যা সে তাদের দলনেত্রী মিস মিলির তাঁবুতে গিয়ে ঢুকলো সে। দেখলো মিস ভেতরে একাই আছেন।
"মিস মিস, আমি কি আপনার এখানে ঘুমোতে পারি?" আব্দার ধরলো সে।
Share:

বাংলা জোকস কাঠবিড়ালি....

বাংলা জোকস কাঠবিড়ালি....

বনের রাজা Tarzan তিরিশ বছর ধরে জঙ্গলে বাস করছে, সেখানে নানারকম পশুপাখি থাকলেও কোন মানুষ নেই। উদ্ভাবনী মস্তিষ্কের অধিকারী টারজান তাই বিভিন্ন গাছের গায়ে ফুটো করে নিয়েছে, প্রথম রিপুকে মোকাবেলা করার জন্যে।
মহিলা সাংবাদিক(Journalist) জেন একদিন জঙ্গলে গিয়ে দেখলো, টারজান মহা উল্লাসে একটি গাছের সাথে প্রেম করে চলছে।
Share:

বাংলা জোকস কন্ট্যাক্ট লেন্স!Contact lenses!

বাংলা জোকস কন্ট্যাক্ট লেন্স!Contact lenses!


Joy সাহেবের কান দুটি কাটা পড়েছে বহু আগে। টিভিতে খবরের জন্যে একজন রিপোর্টার খুঁজছেন তিনি।
ইন্টারভিউ(Interview) বোর্ডে প্রথম প্রার্থীকে জিজ্ঞেস করলেন তিনি, ‘দেখুন, এ পেশায় খুব মনোযোগী হতে হয়, অনেক সূক্ষ্ম ব্যাপার খেয়ালে রাখতে হয়। আপনি কি আমার সম্পর্কে এমন কিছু খেয়াল করতে পারছেন?’
Share:

বাংলা জোকস শিক্ষকের ওয়াদা

বাংলা জোকস শিক্ষকের ওয়াদা

শিক্ষকঃ তোমরা ওয়াদা কর যে, কখনোও সিগারেট (Cigarette) পান করবে না।
ছাত্ররাঃ ওকে স্যার পান করবো না।

শিক্ষকঃ মেয়েদের পিছে পিছে ঘুরবেনা।
ছাত্ররাঃ ওকে স্যার ঘুরবো না।
শিক্ষকঃ ওদের কখনোও ডিস্টার্ব করবে না।
ছাত্ররাঃ ওকে স্যার, ডিস্টার্ব করবো না।

শিক্ষকঃ দেশের জন্য জীবন কোরবান করবে।
ছাত্ররাঃ অবশ্যই স্যার, এই রকম জীবন দিয়ে আর করবইবা কি !!!
Share:

বাংলা জোকস এক ঘুষিতে নাক ফাটিয়ে দেব

বাংলা জোকস এক ঘুষিতে নাক ফাটিয়ে দেবো


ডাক্তারঃ ভয়ের কিছু নেই। চট করে করে আপনার দাঁতটা তুলে নিব।
রোগীঃ Na Na ডাক্তার সাহেব, আমার ভয় করছে। প্লিজ ডাক্তার সাহেব, আমি জন্ত্রনায় মারাই যাব, বড্ড ভয় করছে।
ডাক্তারঃ ঠিক আছে, আপনি খানিকটা ক্যান্ডি খেয়ে নিন। দেখবেন সাহস বেড়ে গেছে। রোগীঃ ক্যান্ডি খেয়ে নিলো।
ডাক্তারঃ কি এখন সাহস বেড়েছে তো?
রোগীঃ নিশ্চয়ই বেড়েছে, এখন দেখি কোন শালা আমার দাঁত তুলতে আসে? দাতে হাত লাগাবেন তো এক ঘুষিতে নাক ফাটিয়ে দেবো !!!
Share:

বাংলা জোকস বল্টুর অসুখ

বল্টুর অসুখ
বল্টু Akbar চরম অসুস্থ হল, অবস্থা এমন হল যে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হল। এক মাস যাবত চিকিৎসা করার পর বল্টু সুস্থ হল। আর এর মদ্ধে সে এক নার্সের প্রেমে পড়ে গেল। Akhun বল্টু ভাবছে মেয়েটিকে বলি কি ভাবে। শেষমেশ সিদ্ধান্ত নিল নার্স কে একটা লাভ লেটার দেবে। প্ল্যান মত লাভ লেটার টা দিল।
জানেন লাভ লেটারে কি লেখা ছিল?????
.
.
.
.
.
.
.
.
.
.
আই লাভ ইউ সিস্টার ।
Share:

পরকীয়া(Pirates) সম্পর্ক নারীরাই বেশি উপভোগ করেন Women enjoy more Pirates relationship

পরকীয়া(Pirates) সম্পর্ক নারীরাই বেশি উপভোগ করেন

পরকীয়া(Pirates) শুনলেই অনেকেরই বুকের ভিতর দুরু দুরু শুরু হয়ে যায়। কেউ আবার নাক শিঁটকোন। তবে এ কথা মোটামুটি সকলেই মানবেন যে, সাধারণ প্রেমের গল্পের চেয়ে পরকীয়ার ‘মশলা’ মাখানো গল্প অনেক বেশি মুখরোচক।
অনেক বেশি আকর্ষণীয়! পরকীয়া (Pirates) তবে পরকীয়া মানেই অভিযোগের আঙুল বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ওঠে পুরুষদের দিকেই। কিন্তু সমীক্ষা বলছে, পরকীয়া সম্পর্কে পুরুষদের তুলনায় নারীরাই খুশি হন বেশি!

Canadar একটি online ডেটিং এবং সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সার্ভিস অ্যাপ ‘অ্যাশলে ম্যাডিসন’ সম্প্রতি একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল বিবাহিত পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিসৌরি স্টেট ইউনিভার্সিটির সমাজতত্ত্বের অধ্যাপক অ্যালিসিয়া ওয়াকারের নেতৃত্বে প্রায় ১০০০ জনের মধ্যে এই সমীক্ষা চালানো হয়। আর তাতেই জানা যায়, পরকীয়া(Pirates) সম্পর্ক নাকি নারীরাই বেশি উপভোগ করেন!

অ্যাশলে ম্যাডিসন(Ashley Madison)-এর এই সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, Je Shob নারীরা বিবাহিত জীবনে তেমন সুখী নন, বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে তারাই পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েছেন।

Somikhay জানা গিয়েছে, এই সম্পর্কের ক্ষেত্রে শরীর ছাড়া আর কিছুই তেমন গুরুত্ব পায় না। পরকীয়ায় জড়িত এই মহিলারা প্রত্যেকেই নিজেদের পছন্দ-অপছন্দ সোজা-সাপটা তাদের পরকীয়া সম্পর্কের সঙ্গীকে জানিয়ে দেন আগে ভাগেই।

Ai Sob সম্পর্কের ক্ষেত্রে বেশির ভাগ নারীরাই ব্যক্তি স্বাধীনতাকেই বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। অধ্যাপক ওয়াকারের মতে, নিজেদের বিবাহিত জীবনের সুপ্ত বাসনা এবং প্রসমিত কামনাকে পূরণ করতেই বেশির ভাগ নারীরা পরকীয়ায় জড়িয়ে poren। এক কথায়, নিজেদের বিবাহিত জীবনের অপূর্ণতা এবং হতাশা থেকেই বেশির ভাগ নারীরা এই ধরনের সম্পর্কে জড়ান।

দীর্ঘদিন ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী, বিবাহ বহির্ভূত শারীরিক সম্পর্ককে ‘ফৌজদারি অপরাধ’ বলে গণ্য করা হত। তবে সম্প্রতি, September  ২০১৮-এ সুপ্রিম কোর্ট পরকীয়ার ক্ষেত্রে ভারতীয় দণ্ডবিধির ওই আইনকে অসাংবিধানিক বলে রায় দিয়েছে।
Share:

বাংলা জোকস এক নামে সবাই খুশি

এক নামে সবাই খুশি


রবিন নতুন হোটেল করেছে। হোটেলের নাম কী দেওয়া যায় তা নিয়ে স্ত্রী, বাবা-মা, শ্বশুর-শাশুড়ির নানা জল্পনা-কল্পনা। অবশেষে হোটেলের নাম দিলো ‘মা হোটেল’।



তারপর নিজের মাকে গিয়ে বলল—
রবিন (Robin) : মা, তোমার জন্যই হোটেলের নামকরণ করলাম।

তারপর শাশুড়িকে গিয়ে বলল—
রবিন (Robin) : আমাদের দু’জনের ইচ্ছায় আপনার জন্য হোটেলের এই নাম দিলাম।

তারপর স্ত্রীকে গিয়ে বলল—
রবিন (Robin) : ছেলে-মেয়েরা খুব করে চাইল, তাই তোমার নামেই হোটেলের নাম দিলাম।
Share:

প্রথম অভিজ্ঞতা কেমন? What is the first experience?

 প্রথম অভিজ্ঞতা কেমন

Mattro উড়তে শেখা চিকুনগুনিয়া বাহক মশার শাবক বেশ কয়েক চক্কর উড়াল দিয়ে বাসায় ফিরল। বাবা মুগ্ধ চোখে তাকিয়ে দেখছিল। বাচ্চাকে বেশ উৎফুল্ল দেখে বাবা জিজ্ঞেস করল-
বাবা(Father)  : খুব খুশি খুশি লাগতেছে তোমাকে, বাপধন! প্রথম উড়ে বেড়ানোর অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?
বাচ্চা (Baby): বাবা, সে যে কী আনন্দের বলে বোঝানো যাবে না। আর তারচেয়ে বেশি ভালো লাগল- যেখানেই গেছি মানুষজন আমাকে দেখে হাত বাড়িয়ে তালি মেরেছে।

Share:

বাংলা জোকস আপনাকে বিয়ে করতে চাই(Bengali Jokes, you want to get married)

বাংলা জোকস আপনাকে বিয়ে করতে চাই


মেয়ে(Girl) এক্সিকিউটিভ: Hello Sir, বলুন আপনাকে কী সাহায্য করতে পারি?

টিটু(Titu): আমি আপনাকে বিয়ে করতে চাই!

মেয়ে (Girl) : সরি স্যার, আপনি মনে হয় ভুল নম্বরে কল দিয়েছেন।

টিটু(Titu): না আমি ঠিক নম্বরেই ফোন দিয়েছি। প্লিজ আমাকে বিয়ে করুন।

মেয়ে (Girl) : সরি স্যার। আমি এখন বিয়ে করতে আগ্রহী না।

টিটু(Titu): আরে শুনুন না। বিয়ের পর হানিমুনে সেন্টমার্টিনে নিয়ে যাবো আপনাকে।

মেয়ে (Girl) : স্যার, বলছি আমি আগ্রহী না। তবুও আপনি কেন এরকম করছেন?

টিটু(Titu): আচ্ছা আপনি হানিমুনে বিদেশে যেতে চান? ঠিক আছে তাহলে মালয়েশিয়া কিংবা থাইল্যান্ডে হানিমুন হবে।

মেয়েটি Phone কেটে ব্লক করে দিলো। এবার টিটু message  পাঠানো শুরু করলো-

‘Apni যেখানে চান সেখানে বিয়ের অনুষ্ঠান হবে।’ একটু পর আবার message - ‘বিয়ের জন্যে শপিং সব আপনার ইচ্ছাতেই হবে।’

শেষমেশ মেয়ে এক্সিকিউটিভ বিরক্ত হয়ে Phone করলো Titu কে-

মেয়ে (Girl) : স্যার বোঝার চেষ্টা করুন, আমি বারবার বলছি যে আমি আগ্রহী না। তবুও কেন আপনি এরকম করছেন?

টিটু (Titu): তাহলে আপনারা কেন সারাদিন আমাকে মেসেজ পাঠান? Call করেন আপনাদের দুনিয়ার সব সার্ভিস নিয়ে, আমি আগ্রহী না হওয়া সত্ত্বেও!
Share:

রাতে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া( The husband and wife's quarrel at night) Joks

রাতে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া

Rate খাওয়া-দাওয়ার পর টিভি দেখতে গিয়ে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া বেঁধে গেল-
Wife : তুমি একটা মূর্খ।
Husband : কেন?
Wife : তুমি সত্যি এমএ পাস?
Husband : হ্যাঁ।
Wife : তাহলে ‘পত্নী’ শব্দের অর্থ জানো না কেন?
Husband : জানি না কে বলল?
Wife : জানলে বলো।
Husband : যে নিজের পতির পতনের কারণ হয়ে দাঁড়ায় তাকেই তো পত্নী বলে।
Share:

৫ উপায় রাগ কমানোর যায় ( 5 ways to reduce anger)

৫ উপায় রাগ কমানোর যায় ( 5 ways to reduce anger)

৫ উপায় রাগ কমানোর যায় ( 5 ways to reduce anger)

৫ উপায় রাগ কমানোর যায় ( 5 ways to reduce anger)

রাগের মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে তা ভয়াবহ ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই রাগ নিয়ন্ত্রণ বা কমানো অত্যাবশ্যক। কিভাবে সহজ উপায়ে রাগ কমাবেন বা নিয়ন্ত্রণ করবেন জেনে নিন—


গণনা(Count):মাথায় রাগ চড়ে বসতেই পারে। তবে তা প্রকাশে বিরত থাকুন। বরং সে সময় মনে মনে ১০ থেকে ১ পর্যন্ত গুণতে থাকুন বা কাউন্টডাউন করুন।

ব্যায়াম(Exercise):ব্যায়ামের কারণে শুধু দেহ-মন সুস্থই থাকে না, স্নায়ুতন্ত্রও শান্ত থাকে। রাগ উঠলে কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করুন। এতে স্নায়ু শান্ত হবে, রাগ উবে যাবে অনেকটাই।

শ্বাস-প্রশ্বাস  ( Breathing):জোরে জোরে শ্বাস টানুন এবং ছাড়ুন। এতে মস্তিষ্কে অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়বে, দেহ-মন শিথিল হবে, রাগ কমবে।

টাইমার সেটিং(Timer setting):হুট করে রাগ চড়লে ঘড়িতে টাইমার সেট করে দিন। প্রতিজ্ঞা করুন, এই কয়েক মিনিট কোনোভাবেই আপনি রাগ প্রকাশ করবেন না।

চুপচাপ থাকা (Stay silent):আচমকা রাগ উঠলে চুপচাপ থাকুন, কথা বন্ধ করুন, নিজেকে সময় দিন। কারণ রাগের মাথায় বলে ফেলা কথা পরিস্থিতি বৈরী করে ফেলতে পারে।

Share:

যে ১০ প্রকারের ছেলেদের সঙ্গে প্রেম করে না মেয়েরা! Girls who do not love 10 types of boys!

যে ১০ প্রকারের ছেলেদের সঙ্গে প্রেম করে না মেয়েরা!
Girls who do not love 10 types of boys!


যে ১০ প্রকারের ছেলেদের সঙ্গে প্রেম করে না মেয়েরা! Girls who do not love 10 types of boys!

যে ১০ প্রকারের ছেলেদের সঙ্গে প্রেম করে না মেয়েরা!Girls who do not love 10 types of boys!



১. meyeder দেখলেই আপনি ঘাবড়ে যান। মেয়েদের সঙ্গে মেলামেশায় আপনি তেমন অভ্যস্ত নন।

২. Kono ও মেয়ে আপনার সঙ্গে একটু হেসে কথা বললেই আপনি ভেবে বসেন, সে নির্ঘাৎ আপনার প্রেমে পড়ে গিয়েছে।

৩. apni যদি শুরুতেই প্রেম-গদগদ হয়ে কোনও মেয়ের সঙ্গে মেলামেশা করতে চান, তাহলে সে স্বভাবতই বিরক্ত হবে।

৪. apni ভয়ানকভাবে পৌরুষের অহঙ্কারে ভোগেন। মেয়ে মানেই বোকা, ন্যাকা- এমনটাই ধারণা আপনার।

৫. Apner কথাবার্তা আচার-আচরণে মেয়েদের ছোট চোখে দেখার মানসিকতা প্রকাশ পায়। স্বভাবতই মেয়েরা আপনাকে এড়িয়ে চলে।

৬. apner রসবোধ খুব খারাপ। কোনও মেয়ের সঙ্গে কী ধরনের রসিকতা করা উচিৎ, সেই জ্ঞান আপনার একেবারেই নেই।

৭. Apni যদি এমন কোনও সিকতা করেন যা অশালী‌ন, কিংবা মেয়েদের পক্ষে অপমানজনক, তা হলে মেয়েরা আপনাকে অপছন্দ করবেই।

৮. Apni সব সময়েই একজন প্রেমিকা জোটানোর জন্যে হন্যে হয়ে ঘুরছেন। ফলে যে কোনও মেয়ের সঙ্গেই আলাপ হোক না কেন, আপনি সেই মেয়েকে নিজের প্রেমিকা করে তোলার জন্য উঠেপড়ে লাগেন। মেয়েটির পক্ষে এটি খুব অস্বস্তিকর অভিজ্ঞতা কিন্তু।

৯. Apni জানেন না কোথায় থামতে হবে। কোনও মেয়ে কখন আপনাকে এড়িয়ে যেতে চাইছে, কখন সে চাইছে একা থাকতে তা তো কোনও মেয়ে আপনাকে স্পষ্ট করে বলবে না, বরং তার আচরণ থেকে এটা আপনাকে নিজেকে‌ই বুঝে নিতে হবে।

১০. Apni নোংরা এবং অগোছালো স্বভাবের। সাধারণভাবে মেয়েরা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন পুরুষদেরই পছন্দ করে। যদি নোংরা জামা, এলোমেলো চুল, কিংবা গায়ে ঘামের দুর্গন্ধ নিয়ে নারীসঙ্গ করতে যান, তা হলে মেয়েরা আপনার থেকে দূরে সরে যাবে- এটাই স্বাভাবিক।
Share:

আপু ভালোবাসতে কি কি প্রয়োজন

আপু ভালোবাসতে কি কি প্রয়োজন 


ভালোবাসতে গেলে বিশাল কিছু করা লাগে না ।
যা হয়ত প্রয়োজন ...............
১.সর্ব প্রথম তার খুব ভালোবন্ধু হয়ে ওঠা ।
২.প্রিয় মানুষের ছোট খাট ইচ্ছাগুলো পূরণ করা ।
৩.তাকে সময় দেয়া ।
৪.তার প্রতি সব সময় বিশ্বাস রাখা ।
৫.Nijer মতামত সব সময় ব্যক্ত না করে তার মতামতের গুরুত্ব দেয়া ।
৬.তার জন্য যতটা সম্ভব করুন এবং take বুঝতে না দেয়া আপনি তাকে কতটা ভালোবাসেন।
Share:

ইংরেজি Joks

ইংরেজি Joks

বিদেশ ফেরত ছেলেকে বাবা জিগ্গেস করছে-
Father: বিদেশে দিন কেমন কাটল?
Boy: খুব ভাল
Father: তুমি ইংরেজী কথা বলতে কোন সমস্যা হয় নি ত?

Boy: আমার কোন সমস্যা হয়নি। তবে যারা শুনেছে তাদেরসমস্যা হয়েছে
Share:

ভালবাসাতো ভাই - হাস্য কাহিনী নিয়ে গল্প

ভালবাসাতো ভাই - হাস্য কাহিনী নিয়ে গল্প 



 Fahim আর তার বয়ফ্রেন্ড বসে গল্প করছে, এমন সময় পাগলি আর সুমি এসে হাজির।
এসেই প্রশ্ন করতে শুরু করে…
পাগলি: ওনি এটা কে রে?
Fahim: আমার ভাই
সুমি: কেমন ভাই রে, চাচাতো?
ফাহিমা: না
পাগলি: মামাতো?
Fahim: না
সুমি: খালাতো?
Fahim: না
পাগলি: ফুফাতো?
ফাহিমা: না
সুমি: (রেগে গিয়ে) কি ভাই বলবি তো?
Fahim: ও আমার ভালবাসাতো ভাই!
Share:

বন্ধুত্বটা মিষ্ঠি হচ্ছে Friendship is raining

বন্ধুত্বটা মিষ্ঠি হচ্ছে


অল্প অল্প মেঘ থেকে হালকা হালকা বৃষ্টি হয়.
ছোট ছোট গল্প থেকে ভালোবাসার সৃষ্টি হয়.
আর মাঝে মাঝে এস এম এস (SMS) দিলে বন্ধুত্বটা মিষ্ঠি হয়.
Share:

***বন্ধুত্ব মানে তোর মাঝে আমি আমার মাঝে তুমি******* Friendship Moods UR Betofen Me And You ****

***বন্ধুত্ব মানে তোর মাঝে আমি আমার মাঝে তুমি****


বন্ধুত্ব মানে একটি অন্তর আরেকটি অন্তরে বাসা বাঁধা
বন্ধুত্ব মানে না বলা Kotha Gulo বন্ধুকে না বলা পর্যন্ত ঘুমোতে না পারা
বন্ধুত্ব মানে সকল বাঁধা ভেঙ্গে দেওয়া
বন্ধুত্ব মানে তুই তুই করে কথা বলা
বন্ধুত্ব হলো তোর মাঝে আমি আমার মাঝে তুই
বন্ধুত্ব হলো ডাকার আগেই হাজির হওয়া
Share:

আহবান Call

আহবান

সুখি হতে পারলিরে তুই বাহানা'টা ধরে ?
থাকলি একা জীবনটাকে শুধু আপন করে ।
কারো দিকে নজর নাই তোর-
ছুটলি সব ছেড়ে,
সুখ-ঠিকানা পাইলি কি তুই দু'কদমে মেরে ?
জীবন যৌবন ধন-সম্পদ রাখলি কি বেঁধে ?
পরের হিতে নাইরে তুই থাকিস নিজের জিদে ।
যখন তখন হারিয়ে যাস কোন দেশেতে তুই ?
আপন ছাড়িস পরও ছাড়িস ছাড়বি কি ভুঁই ?


শেষের দিনে কেমন করে থাকবি নিজের পায়ে?
সবার নয়ন ঝরেছে যে তোর নিদারুণ ঘায়ে । 
এখন তবে বেরিয়ে আয় মিছে মোহ ছেড়ে,
দেখবি তবে সুখের স্বর্গ তোর সীমানা ঘিরে ।
সবাই মিলে হেসে খেলে করবি জীবন পার,
আপন পাবি পরও পাবি, পাবি মন সবার ।
নিজের সুখে সুখ মিলেনা বুঝবি কতদিনে ?Ay ফিরে Ay সবার মাঝে থাকিসনে আর হীনে ।

১৮/৩/২০১৯ ইং

(লেখাতে ছন্দ মেলাতে সাহায্য করেছেন,  শ্রদ্ধেয় কবি Benzen Benzoyet দাদা।

অনেক কৃতজ্ঞ দাদা আপনার প্রতি :)
Share:

সময় বাংলার সেরা কবিতা সময় (Somoy Kobita)

সময়
বাংলার সেরা  কবিতা সময়

টিক টিক করে সে এগিয়ে চলেছে,
কখন যে সে একটু থমকে দাড়াবে!
সে কি কখনও থামবে না?
সবাই তো চলার পথে একটু থমকে দাড়ায়।

মাঝে মাঝে তার জন্য বড় কষ্ট হয়,
সে থামে না কখনও,
শুধু তার পিছে ছুটে চলা জীবন ভর-
কোন অবকাশ নেই যে তার।

তার পিছে ছুটটে ছুটটে সবাই ক্লান্ত হয়-
তবু সবাই ক্লান্ত পথে ছুটে চলে!
আমিও ছুটে চলি শুধু তার পিছে,
কেন সে থমকে দাড়ায় না একটু সুখের মাঝে?
না না সে থামে না-
জীবনের ডুব সাতারেও তার পিছে চলা,
কত সুখ কত দুঃখ সবই থাকে তার মাঝে,
থামে না কখনোই সে সুখে হোক বা দুঃখে!

জানি আমি এই ছুটে চলার পথে-
ক্লান্ত হবে যখন মন সেও থামবে না,
হয়তো ক্লান্ত আমিই ঘুমিয়ে যাবো-
কোন এক পথের বাঁকে, শুধু থামবে না সে!

দুরন্ত কোন এক গতিতে-
দুরন্ত কোন জীবনে সে উপস্থিত হবে।
সে জীবনও সে ক্লান্ত করে তুলবে,
তাকেও সে ফেলে যাবে স্বার্থপরের মতো।

কেন সে একটু থমকে দাড়ায় না?
সে কি ক্লান্ত হয় না কোন এক মুহূর্তেও!
যখন তার মাঝে অবস্বাদ আসে,
ক্লান্ত হয়েও সে কি করে ছুটে চলে?

ঘুম ঘুম চোখে ক্লান্ত আমি-
টিক টিক করে শুধু তুমিই অবিরাম ছুটে চল!
যখন দেখি তুমি অনেক দূর-
কেন জোর করে আবার তোমার পিছে চলা?

এতো স্বার্থপর কেন সে?
জীবনের শুরু থেকে ছোটা তার পিছে,
কখনও শেষ হয় না সে পথ চলা,
শেষ বারের মতো ঘুমিয়ে পড়ার আগে!

সময় তুমি এমন কেন?
কেন তোমার এই ছুটে চলা?
কেন এতো খেলা আমাকে নিয়ে?
কেনই বা অসময়ে ফেলে চলে যাও আমায়?
আজ তুমি আমায় ছেড়ে বহুদূরে-
অনেক দূরে চলে গেছ তুমি,
জানি আর কখনোই যেতে পারবো না আমি,
কি ক্ষতি হতো যদি একটু অপেক্ষা করতে?

না না তোমাকে অপেক্ষা করতে বলব না,
কেউ হয়তো তোমারই অপেক্ষায় আছে!
পুরনো সঙ্গী ফেলে নতুনে তোমার সুখ,
তুমি চলে যাও দূর বহুদূর।

আমি এখন বড় ক্লান্ত-
ছায়া ঘেরা এই পথের পাশেই বসবো আমি!
এখানেই সুখের আবেশে হয়তো ঘুমাবো,
শুধু Request স্মৃতি করে রেখ আমায়, Tomar স্মৃতির পাতায়।
Share:

বৃষ্টি হতে চাই Want to be rainy

বৃষ্টি হতে চাই

আমি বৃষ্টি হতে চাই,
রিমঝিম ধারাতে ঝরতে চাই তোমার উঠান জুড়ে।
তুমি এসে আনমনে ছুঁয়ে দিবে আমায়,
আমি তোমাকে আলিঙ্গন করব আমার ধারায়।
উঠান জুড়ে টিপটিপ বৃষ্টি তুমি জানালায়,
তুমি হাত বাড়িয়ে দিবে একটু ছুঁয়ে দেখতে আমায়।
আমাকে দেখে তুমি ছুটে আসবে,
আমি তখন থমকে দাড়াব তোমার পাশেতে।

আমি বৃষ্টি হতে চাই,
পৃথিবীতে তোমার যত ক্লান্তি অবস্বাদ-
ধুঁয়ে মুছে নিয়ে যেতে চাই।
উৎফুল্ল জীবন শুরু হবে তোমার,
কোন এক সময় যখন কষ্ট ভরা গ্লানি আসবে,
তুমি শুধু আমায় মনে করে দুহাত বাড়িয়ে দিও-
আমি ছুটে আসবই তোমার কাছে,
Joto গ্লানি আছে সব নিয়ে নিবো করে আপন তোমায়।
আমি বৃষ্টি হতে চাই,
হ্যা আমি শুধু তোমার জন্য বৃষ্টটি হতে চাই।
Share:

নীরব সন্ধ্যা কবিতা (Silent evening poem)

নীরব সন্ধ্যা

কোন একদিন নিশ্চুপ সন্ধ্যায়-
নীরবে বসে ভেবেছি তোমায়।
অঝর স্বপ্ন নিয়ে দুচোখে-
আশা বেঁধেছি আমার এ হৃদয় মাঝে।
শূন্য হৃদয় মাঝে আশা ছিল তোমায় নিয়ে,
শূন্য হৃদয় পূর্ন হয়ছিল তোমায় ভালবেসে।
আজ তাই বসে ভাবি-
এমনি নিশ্চুপ নীরব সন্ধ্যা বেলায়।
সারাটা দিন কল্পনাতে খুঁজে পেতাম তোমায়-
ব্যকুল আশাতে ঘেরা আমার এ-হৃদয় মাঝে।
জেগে জেগে স্বপ্ন ছিল-
সেদিন আমার দিন রাতে।
আজ শূন্য হৃদয় গেছে তুচ্ছ হয়ে,
স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে ব্যাথা পেয়ে।
সে স্মৃতি অনেক দিনের-
Tobu মনে হয়, এই তো সেদিন ছিলে তুমি আমার পাশে।
হাসি মুখে থাকতে তুমি আমার পাশে,
ভালবাসা ঘেরা তোমার-ও সুখের মন নিয়ে।
Share:

দূরে তুমি (You away)

দূরে তুমি
You away
.......নীল


জোনাকির সেই আলো আজ নিভে গেছে,
অদূরে আজ শানাই এর সুর বাজে ওঠে কানে।
তুমি চলে যাবে আজ আমায় ছেড়ে,
কোন দূর অজানাই অন্য কারো হয়ে।
নীরবে এই পথে চোখের জলে মনে পড়ে তোমায়,
জোনাকির জোসনা স্রোত রাতে তুমি ছিলে আমার পাশে।
সকাল সাঁঝে তোমার কথায় ভাঙ্গতো অভিমান,
দূরে চলে গেলে বল কে আমার ভাঙ্গবে অভিমান।
কত সুর বাজে ওঠে এ মনের মাঝে,
তুমি ছিলে জীবনে আমার সকল ক্ষণে।
মাঝ রাতে ঘুম ভেঙ্গে তোমায় দেখি স্বপ্নে,
Rate  চলে যায় জেগে জেগে স্বপ্ন দেখি চোখে জল তাই।
তুমি চলে যাবে আজ অনেক দূরে,
জোনাকির আলো নিভে যাবে চিরতরে।
চন্দ্রটা পড়ে রবে অভিমানে আমায় ছেড়ে,
নিস্ব আমি থাকবো সারাক্ষণ তোমায় ভালবেসে।
হাসি মুখে যখন স্বপ্ন সাজাতে আমায় ঘিরে,
ভালোবাসা পরত ঝরে তোমার চারিপাশে।
চাই হাসি মুখ ক্রন্দনে উঠবে ভরে,
যাবে তুমি চলে যখন অন্যের ঘরে।
Those tears সজল চোখে কি ঝরবে অশ্রু একটি বার ও,
আমায় মনে করে ভুলেও কখনো কোন ক্ষণে।
তুমি চলে যাবে অনেক দূরে নীল স্বপ্নের দেশে,
আমি ভেজা চোখে এই পথে থাকবো ধোয়া হয়ে।
sanai এর সুর থেমে যাবে, থেমে যাবে যত আয়োজন,
sonno করে সবই পড়ে রবে- থাকবে না দেখার কেউ।
Tumi সুখে থেকো Tumi ভাল থেকো এই টুকু চাওয়া,
কখন ভুলে ও ভালবেসনা আমায়-
আমি রইব পড়ে ধোয়া ভরা অন্ধ
জোনাকি এই রাতে।
Share:

অচেনা এক তুমি You are a stranger


 অচেনা এক তুমি


অচেনা এক তুমি
অচেনা এক তুমি

আকাশ কাঁদছে আজ-
বইছে বাতাশ এলোমেলো,
আমি আছি একাকী মনে রাস্তার এপারে-
তুমি আছো চিন্তিত মনে রাস্তার ওপারে।
ঝিরি ঝিরি বৃষ্টি ধূসর দৃষ্টি-
লুকিয়ে লুকিয়ে দেখছি তোমায় গোপনে।
হঠাৎ চোখে চোখ পড়তেই-
ঘুরে দাড়ালে তুমি।
অজানা অপরাধ বোধ জেগে উঠল আমার মনে-
আমি একাকী মনে ফিরে চাইলাম আকাশ পানে।
হঠাৎ ফিরে চেয়ে দেখি তুমি নেই-
কোথায় গেলে হাওয়ায় মিলিয়ে?
আমি চাইলাম চাইতেই থাকলাম দু-নয়নে,
আবার তুমি ফিরে এলে-
চোখে চোখ পড়ল আবার,
অন্য মনে দিক ফিরিয়ে চাইলাম আমি।
তোমাকে দেখার যাতনা সইতে না পেরে,
বারে বারে গোপনে ফিরে চাইলাম আমি।
না আর পেলাম না তোমায় দু-চোখের সীমানায়,
হঠাৎ হারিয়ে গেলে তুমি-
যেমনটি করে এসেছিলে তুমি।
আমি বৃষ্টিতে ধূসর দৃষ্টিতে হারিয়ে ফেলেছি তোমায়,
Instantaneously এই দেখায় মনে হল কত চেনা তুমি আমার।

উপসর্গ ;Yesterday ঝুম বৃষ্টির Majhe রাস্তার ওপারে দাড়িয়ে থাকা অচেনা মেয়েটিকে।
Share:

কি দেব তোমায় উপহার (What will I give you gifts)


  কি দেব তোমায় উপহার


কি দেব তোমায় উপহার
....................নীল


উজাড় করে মনটা তোমার,
উজাড় করে জীবন তোমার-
শুধু ভালবেসেছ আমায়।
এতোটাই পাগল তুমি,
এতোটাই ব্যাকুল তুমি-
ভালবেসেছ তুমি আমায় মনের মন্দিরে।
বল কি দেব তোমায় উপহার-
কি আছে আমার?
ব্যথা  ভরা জীবন আমার,
শূণ্য হাতে আমি উদাসী-
বল কি দেব তোমায় উপহার?
বার বার ফিরে এসেছ,
আঘাত পেয়ে ভালবেসেছ,
লোকের কথা ভুলে,
মাথায় নিন্দা নিয়ে-
আমার কাছে ছুটে এসেছ।
শূণ্য চোখে আমি শুধু দেখেছি,
ধুঁ ধুঁ মনের তিয়াস, তুমি করে দিয়েছ নিবারন।
কি দেব বল তোমায় উপহার-
বল না কি চাই তোমার।
ভালবাসা সে তো মরে গেছে আমার,
কারও ছলনার তরে সে তো হারিয়ে গেছে।
কতবার বলেছি তোমায়,
সে কথা সবই একাকী।
সব জেনে তুমি ফিরে এসরছ-
কোন মায়াতে তুমি বাঁধতে চাও আমায়!
বল কি দেব তোমায় উপহার?
ভাঙ্গা মন নাকি নষ্ট জীবন?
অনেক ভয় হয় আমার-
আগের মতো মনটা তো আর নেই আমার,
পোড়া মন পড়ে রয় তাকে ঘিরে।
কেন তুমি সব জেনেও আমার পাশে থাকো!
অশ্রু ভেজা নয়নে আমায় ভালবাস?
বল কি দেব তোমায় উপহার?
এতো ভালবাসার কি দাম দেব বল একবার?
মরু মনে যদি তুমি- বৃষ্টি ভেজাতে পারো,
যদি সেখানে সবুজ ঘিরে তুমি বসবাস করতে পারো,
Gifts তোমায় পোড়া মনটা আমার। শেষবারের জন্য তোমায় বলি,
মনের আয়না ভেঙ্গে গেছে আমার,
সাজিয়ে রাখলেও সে দাগ-
থেকে যাবে ক্ষমা করও আমায়।
Share:

কবিতা জীবনের শেষ প্রান্তে আমি

জীবনের শেষ প্রান্তে আমি

.................জোবায়ের
জীবনের শেষ প্রান্তে আমি
জীবনের শেষ প্রান্তে আমি

আমি চলেছিলাম একলা পথে-
দেখেছি কত না কিছু আমার দুচোখে।
 যেখানে আকাশের শুরু-
যেখানে সাগরের শেষ-
সবই আমি খুঁজেছি দেখার জন্য।
 আকাশ খুঁজতে গিয়ে আমি দেখেছি-
কত বৃষ্টি ঝরে পড়ে মানুষের চোখ থেকে।
 সাগর খুঁজতে গিয়ে আমি দেখেছি-
কত দুঃখের বন্যা বয়ে যায় মানুষের মনে।
 কত না কিছুই দেখেছি আমি-
আমার এই দুচোখে!
কত না কিছুই সয়ে গেছি আমার এই মনে!
আজ আমি জীবনের শেষ প্রান্তে দাড়িয়ে-
দমকা এক হাওয়া আসবে আমার খোঁজে ।
 আনমনে আমি ভেবে চলেছি-
অপেক্ষায় প্রহর গুনি কখন আসবে সে হাওয়া?
এটাই কি জীবন?
যেখানে সব আশার সমাধী হয় এক নিমেষে?
এটাই কি জীবন?
যেখানে স্বপ্ন ভেঙ্গে যায় কিছু না পাবার আগেই!
Jiboner শেষ প্রান্তে এসেছি Ami Aj-
না পায়নি কিছুই,
না হারায়নি কিছুই,
সব কিছু গোটা কয়েক স্বপ্ন-
গোটা কয়েক আশার মাঝে বন্দী ছিল।
 কালের প্রবর্তে আমি এসেছি আজ ভেসে-
Shob Kichu উজাড় করে দিয়েছি নিজের বিলাসীতার মাঝে ।
 এটাই কি জীবন-
যেখানে কেউ কাঁদে কেউ হাসে-
কেউবা ঈষায় জ্বলে পুড়ে মরে?
অনেক পথ চলার পর আমি,
থমকে দাড়িয়েছি আজ আবার একাকী।
 সব আছে চারিপাশে-
হাজারও মানুষ
হাজারও ইট-পাথরের যান্ত্রিক জীবন।
 শুধু থমকে আছি আমি-
যখন দেখি এত মানুষের ভিড়ে-
নিজের আপন একান্ত আপন বলতে-
কেউ নেই আমার পাশে, আমি একাকী।
 এটাই কি জীবন?
যার অনেক আছে সব শেষে শূন্য হাত!
এটাই কি জীবন?
পথের মাঝে থমকে দাড়িয়ে-
আবার প্রথম থেকে শুরু করার অভিপ্রায়!
আজ সব শেষে চলে এসেছি আমি,
দমকা হাওয়া আসবে কখন তাও জানি না।
 সে কি আমাকে অপেক্ষা করতে বলছে?
না কি আরও কিছু দূর যেতে বলছে?
আমি তো আজ বড় ক্লান্ত,
আর তো যেতে পারছি না।
 অনেক দেখে নিয়েছি-
সারাটা জীবনের পথ চলায়!
এখন কি বসবো একটু ছায়ায়?
না কি অলসতা ফের জড়িয়ে ধরবে আমায়?
না আর পারি না এই পথ চলতো।

 জীবন তুমি কি চলবে আমায় রেখে?
না কি একটু বসবে,
একটু অপেক্ষা করবে আমার জন্যে?

Share:

Remember too much

Remember too much

When I am sitting alone,
Not a thought comes to mind,
At the end of the day is approaching
when it comes to evening
And remember that about you.
When alarmed walk the streets,
When people think of crazy looks,
My vision is to spread the asphalt road,
And remember that about you.

 
Do not feel tired when you feel nothing,
Black intolerable thought that the mind,
Crime book when it comes out a sigh,
And remember that about you.

When the sun went down cracked wood sweaty,
At the beginning of the month-when you find yourself penniless,
Do not despair when nothing comes to mind,
And remember that about you. 
Severe pain that the mind preoccupied,
Cut off all lines of thought goes,
When the body was nod severe fatigue,
And remember that about you.







When the pressure became crazy,
I thought that when I lose you,
I do not see you the next,
And remember that about you.

Lazy to read the rest of the weekend off alone,
How long it takes longer alone in the house,
You're not alone, because I have to go with that,
And remember that about you. 
 
 
You have mixed memories of the place,
I have repeatedly set-ha go in search of your own,
I popped in your mouth repeatedly,
And remember that about you.

When everyone becomes angry with me,
Can be seen in front of the condition,
Bayer hoping to help give the hand,
And remember that about you.

Sometimes I think my life has come evening,
When something until we see clear signs of an end,
When one lives in the shadow of the heart the mouth hole,
And remember that your words 
 
Share:

ভালোবাসার সম্পর্ক ভাল থাকার পাঁচ কৌশল কারণ(Because of the five strategies having good relationships with love)

ভালোবাসার সম্পর্ক ভাল থাকার পাঁচ কৌশল
কারণ, 

ভালোবাসার সম্পর্ক ভাল থাকার পাঁচ কৌশল  কারণ,

Je Kono সম্পর্কেই ভাল-মন্দের আলো-ছায়ার খেলা চলতেই থাকে। আর প্রেমের সম্পর্ক হলে তো কথাই নেই! মান-অভিমান, আবেগ, উত্তেজনা ও আরও নানা জটিল মনস্তাত্ত্বিক সমীকরণ জড়িয়ে Thake এ জাতীয় সম্পর্কে। তাই খুব সাবধানে, সচেতনভাবে সম্পর্কের খুঁটিনাটি বিষয়গুলোকে সামলাতে হয়। সামান্য একটু ভুল বোঝাবুঝি বা অবিশ্বাস সম্পর্ককে শেষ করে দিতে পারে চিরতরে! Tai সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী বা চিরস্থায়ী করতে মেনে চলুন এই ৫টি অব্যর্থ কৌশল-

১) কাজের চাপ যতই থাকুক না কেন, শত ব্যস্ততা সত্ত্বেও একে অপরের জন্য সময় বের করুন। দু’জনে দু’জনকে যতটা সম্ভব সময় দিন। সঙ্গীর সঙ্গে যতটা সময় কাটাবেন ততই একে অপরের পছন্দ আপছন্দ সম্পর্কে জানবেন। একে অপরকে বুঝতে পারবেন।


২) একে অপরের সঙ্গে Kotha বলুন। ইতিবাচক কথা। সঙ্গীর প্রতি Apner ভালবাসা ব্যক্ত করুন, কৃতজ্ঞতা জানান, তার প্রশংসা করুন। এর ফলে সম্পর্ক আরও সুন্দর, আরও গভীর হবে।
৩) উপহার পেতে Amra সবাই খুব ভালবাসি। মাঝে মধ্যেই, কোনও বিশেষ কারণ বা উপলক্ষ ছাড়া ছোট ছোট উপহার দিন Apner সঙ্গীকে। এর ফলে আপনারা একে অপরের জন্য কতটা ভাবেন বা একে অপরের কতটা খেয়াল রাখেন, তা বোঝা যায়।


৪) স্পর্শ Je Kono সম্পর্কের জন্যই খুবই গুরুত্ব পূর্ণ। স্পর্শ একে অপরের প্রতি অনুভূতি জাগিয়ে তোলে। সম্পর্কের আবেগ, উত্তেজনা বাড়িয়ে দেয়। বিশেষ মানুষের কাছ থেকে বিশেষ স্পর্শ বা ছোঁয়া মস্তিষ্কের Hypothalamus অক্সিটোসিন হরমোনের ক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়। তাই সঙ্গীর হাত ছোঁয়া, হাত ধরা, ভালবেসে জড়িয়ে ধরা, কাঁধে বা বুকে মাথা রাখা সম্পর্কের গভীরতা বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়।

৫) শুধু কথায় নয়, মুখে যা বলছেন, সঙ্গীর জন্য কাজে তা করে দেখান। পরিস্থিতি বা সুযোগ বুঝে সঙ্গীকে এমন কিছু করে দেখান, যাতে তিনি বোঝেন আপনার জীবনে তার জায়গা বা গুরুত্ব কতটা!
Share:

প্রেম - কত প্রকার ও কিকি What type and how much you love

প্রেম - কত প্রকার ও কিকি -


What type and how much you love
What type and how much you love

১. প্রথম প্রেম:

--------------- --
জীবনের প্রথম প্রেম সবার কাছেই স্মরনীয়
হয়ে থাকে। প্রথম প্রেমের কোন নির্দিষ্ট বয়স নেই
... তবে অনেকের ক্ষেত্রেই খুব কম বয়সে First Prem
এসে থাকে। First Prem বেশিরভাগ সময়ই এ প্রেম হয়না,
সেটা হয়ে থাকে Infatuation। প্রথম প্রেম
হতে পারে কোন বাল্যবন্ধু, হতে পারে গৃহশিক্ষক
বা স্কুলের শিক্ষক বা শিক্ষিকা,
হতে পারে বয়সে Boro কোন Apu, হতে পারে কোন
ফিল্মের নায়ক বা নায়িকা, হতে পারে পাড়ার কোন
হ্যান্ডসাম তরুনী বা বড়ভাই ।
কারো কারো ক্ষেত্রে আবার জীবনের প্রথম প্রেমই
একমাত্র প্রেম ।

২. প্রথম দেখায় প্রেম/Love at First Site:

--------------- --------------- -------------
প্রথম দেখাতেই এই ধরনের প্রেমের সূত্রপাত। এ
ধরনের প্রেম অনেক ক্ষেত্রেই একতরফা হয় ।
ছেলেদের ক্ষেত্রে এ ধরনের prem বেশি দেখা যায় ।
প্রথম দেখাটা হতে পারে কোন বিবাহ অনুষ্ঠানে,
শপিং মল, কলেজ, ভার্সিটি, কোচিং সেন্টারে, স্যারের
বাসায়, বন্ধু আড্ডায় । এমনকি বন্ধুর
মোবাইলে picture  দেখেও এ ধরনের প্রেমের শুরু হতে পারে । এ ধরনের প্রেমে প্রায় অবধারিতভাবেই তৃতীয় পক্ষের (বন্ধুকূল বা বড়ভাই) সাহায্যের
দরকার পড়ে। এ ধরনের প্রেমের সূত্রপাতে রূপ
সৌন্দর্য্য ও দৈহিক সৌন্দর্য্যের ভুমিকাই বেশি ।

৩. বন্ধুত্ব থেকে প্রেম:

--------------- --------------- ---
এই ধরনের প্রেমের ক্ষেত্রে প্রেমিক ও
প্রেমিকা দু'জনেই প্রথমে বন্ধু থাকে।
আস্তে আস্তে বন্ধুত্ব কালের বিবর্তনে প্রেমে রূপ
নিতে থাকে, অনেক সময়ই দু'জনেরই অজান্তে ।
তবে আশেপাশের মানুষ (বিশেষত বন্ধুকূল) কিন্তু
Thik খেয়াল করে । দুঃখজনকভাবে এধরনের prem অনেক সময়ই অকালে ঝরে যায় কোন
Ak torofa সিদ্ধান্ত বা পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে । onekai বন্ধুত্বের এই রূপান্তর
মেনে নিতে পারেনা বলে অনুশোচনায় ভোগে - বিশেষত meyera ।

৪. একরাতের প্রেম/One Night Stand:

--------------- --------------- -------------
এগুলোকে প্রেম বললে পাপ হবে । ৯০%ক্ষেত্রেই
cale রাই এ ধরনের প্রেমের আয়োজক । দৈহিক বাসনাকে পূর্ণতা প্রদান করাই এই প্রেমের প্রধান
উদ্দেশ্য । উদ্দেশ্য পূরণের পূর্বে কিছু name মাত্র Dating হতে পারে ।
উদ্দেশ্য পূরণের জনপ্রিয় স্থান:
কোন হোটেল, খালি ফ্ল্যাট, সমুদ্রতীরবর্তী কোন শহর ।
এই ধরনের প্রেমের মূলমন্ত্র হলো:
"আজকে না হয় ভালোবাসো, আর কোনোদিন নয়........"

৫. বিবাহোত্তর প্রেম

--------------- -----------
এই প্রেম শুধুমাত্র স্বামী ও স্ত্রীর
মধ্যে দেখা যায়। বিয়ের ঠিক পর পর প্রথম কয়েক মাস এই প্রেম প্রবল থাকে। স্বামী-স্ত্রী একে অপরের পূর্বপরিচিত নয় এমন দু'জনের মধ্যে এ্যারেন্ঞ্জ বিয়ে হলে এই ধরনের প্রেম প্রবল
রূপে পরিলক্ষিত হয় । প্রেম
করে বিয়ে হলে সেক্ষেত্রে বিবাহোত্তর
প্রেমে ভাঁটা পড়ে বলে একটি মতবাদ প্রচলিত আছে,
কবে এর সত্যতা পরীক্ষিত নয় । বিবাহোত্তর প্রেম
ফলাতে হানিমুনের জুড়ি নেই।
Share:

একই সময় দিন ও রাত্র ! অসম্ভব সুন্দর এক দৃশ্য !

একই সময় দিন ও রাত্র ! অসম্ভব সুন্দর এক দৃশ্য !

একই সময় দিন ও রাত্র ! অসম্ভব সুন্দর এক দৃশ্য !
একই সময় দিন ও রাত্র ! অসম্ভব সুন্দর এক দৃশ্য !


কলম্বিয়ার এক দল নাবিক এর একটি ফটোগ্রাফ বোর্ডের শেষ মিশন ছিল এটি,একটি মেঘ মুক্ত পরিষ্কার দিনে , সূর্য যখন ইউরোপ এবং Africa  মধ্যবর্তী অংশে আসে , ছবি টি ঠিক তখনি তোলা হয় ,
অর্ধেক হল রাত ও উজ্জ্বল অংশে আপনি দেখতে পাচ্ছেন Africa  উপরের অংশ সাহারা মরুভূমি.
...

হল্যান্ড , প্যারিস ও Barcelona  তে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসছে, ও ডাবলিন ,লন্ডন ,লিসবন , ও মাদ্রিদ এ এখনও প্রখর সূর্যের তাপ !

সূর্যের আলো জিব্রাল্টার প্রণালী উপর এখনো পরছে , ভূমধ্য সাগর অন্ধকারের মধ্যে , আটলান্টিক মহাসাগরে মাঝখানে এজোরেস দ্বীপ দেখা যাচ্ছে ; তার ডান দিকে মদিরা দ্বীপ; তার একটু নিচে ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জ; এবং আরো দক্ষিণ দিকে দিয়ে Africa  পশ্চিম বিন্দু থেকে খুব কাছা কাছি , কেপ ভার্দি দ্বীপপুঞ্জ
Share:

Dhaka কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র যখন রিকশাচালক

Dhaka কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র যখন রিকশাচালক


ধানমন্ডিতে গিয়েছিলাম Kichu কাজে। বাসায় ফিরব বলে অনেকক্ষন দাঁড়িয়ে আছি, রিকশা পাচ্ছিলাম না। যে রিকশাই দেখি, রিকশাওয়ালা ভাড়া প্রায় দ্বিগুণ চেয়ে বসে। মেজাজটা এমনিতেই খারাপ কারণ সহ্যের সীমা অতিক্রম করে ফেলছিলাম। হঠাৎ একজন হ্যাঙলা পাতলা মতন ছেলে amar সামনে রিকশা নিয়ে এসে বলল, “sir কোথায় যাবেন?” আমি একটু অবাক হলাম, কারণ রিকশাওয়ালারা সচরাচর স্যার বলে না, “মামা বলে”; ami তাকে বললাম বকশিবাজার যাব, বোর্ড অফিসের পাশে। সে Amar কাছে ঠিক ঠিক ভাড়া চাইল। Ami মোটামুটি Akash থেকে পড়লাম, মনে করলাম এতক্ষণ পরে মনে হয় আধ্যাত্নিক সাহায্য এসে হাজির হয়েছে। যাইহোক বেশি চিন্তা না করে তাড়াতাড়ি রিকশাই উঠে পড়লাম। মনে মনে বললাম “আহ্‌! akhon একটু শান্তিমত মানুষ দেখতে দেখতে বাসায় যাওয়া যাবে”; Dhaka কলেজের সামনের রাস্তা দিয়ে রিকশায় যাওয়াকে অনেক এনজয় করি। তবে সেদিনের রিকশা ভ্রমনটা একটু আলাদা ছিল। খেয়াল করছিলাম রিকশাওয়ালা অনেক সাবধানে চালিয়ে যাচ্ছিল। কাউকে গালি দিচ্ছিল না। অন্যের রিকশার সাথে লাগিয়ে দেওয়ার আগেই ব্রেক করছিল। কেউ তাকে গালি দিলে সে কিছু না বলে মাথা নিচু করে নিজের রিকশা চালানোতে ব্যস্ত ছিল। KicuKhon পরে একটু অবাক হলাম, রিকশা যখন ঠিক Dhaka কলেজের সামনে আসল, তখন রিকশাওয়ালা মুখে কাঁধের গামছাটা ভাল করে পেচিয়ে নিল। তার চেহারা ঠিকমত দেখা যাচ্ছিল না। ভেতরে ভেতরে aktu ভয়ই পেয়ে গিয়েছিলাম, ভাবছিলাম এইবুঝি ছিনতাইকারী ধরবে। নিজেকে সামলিয়ে নিতে রিকশাওয়ালার সাথে কথা বলা শুরু করে দিলাম। সেই একই রকমের প্রশ্ন দিয়ে শুরু করলাম, “মামা বাড়ি কোথায়?” সে একিরকম উত্তর দিল, রংপুর। পরের প্রশ্ন করার আগেই বলল “Sir বেশিদিন হয়নাই রিকশা
চালাই”; স্বভাবতই জিজ্ঞাসা করলাম Dhaka আসছ কবে? সে উত্তর দিল, “দুই বছরের কিছু বেশি হয়ছে”; এভাবেই অনেক কথা হল। একসময় হঠাৎ চালাতে গিয়ে Amar পায়ে টাচ্‌ লাগায় সে বলল, “Sorry Sir”; একটু অবাক হলাম তার ম্যানার দেখে। thake প্রশ্ন করতে দেরি করলাম না, “বললাম তুমি কি পড়ালেখা কর?” সে বলল, “Sir অনার্স সেকেন্ড ইয়ার, Dhaka কলেজে”; হতভম্ব হয়ে গেলাম। তার পোশাক আশাক চলন গড়ন আবার নতুন করে দেখা শুরু করলাম। দেখলাম পড়নে একটা প্যান্ট অনেক ময়লা, শার্টের Kichu জায়গায় ছেঁড়া। স্বাস্থ্য এতই কম যে মনে হয়, অনেক দিন না খেয়ে আছে। কৌতুহলবশত প্রশ্ন করলাম তুমি রিকশা চালাও কেন? সে বলল, তারা তিন বোন, এক ভাই। তার বাবা কিছুদিন আগে মারা গিয়েছে, maa ছোট থেকেই নেই। আগে বাবা দেশে দিনমজুর ছিল। এখন বাবা মারা যাওয়ার পরে tar তিন বোনকে সে Dhakay নিয়ে এসেছে, স্কুলে ভর্তি করিয়েছে, থাকে কামরাঙ্গির চরে, একটি Room ভাড়া নিয়ে। কিছুদিন আগে তার দুইটি টিউসনি ছিল এখন একটিও নেই। সংসার চালানোর জন্য টাকা নেই যথেষ্ট, তাই উপায় না পেয়ে রাতের বেলা রিকশা চালাতে বের হয়েছে। মাঝে মাঝেই বের হয় এমন। তবে onek ভয়ে থাকে, যখন সে ঢাকা কলেজের পাশে দিয়ে যায়। পরিচিত কেউ দেখে ফেললে Class করাটা Muskil হয়ে যাবে। নিজে থেকেই বলল, “আমাকে হয়তো বলবেন অন্য কিছু করোনা কেন?” তারপর নিজে থেকেই উত্তর দেওয়া শুরু করল, পোলাপাইন অনেকে দেখি রাজনীতি করে, অনেক টাকা পায়, আবার অনেকে প্রতিদিন একটা করে মোবাইলের মালিকও হয়। কিন্তু amar এমন কিছু করতে মন চায় না। সবসময় মনে করি একটা কথা, এই দেশকে কিছু না দিতে পারি কিন্তু এই দেশের কাছে থেকে জোর করে কিছু কেড়ে নিব না। amar কাছে দেশ মানে আপনারা সবাই। আপনাদের সাথে কোন বেয়াদবি করা মানে দেশের সাথে নিমকহারামি করা। এই যে দেখেন আপনারা আছেন বলেই তো আমি এখন রিকশা চালায়ে কিছু টাকা আয় করতে পারছি। ami বাকরুদ্ধ হয়ে তার কথা শুনছিলাম। হঠাৎ সে আমাকে বলল sir চলে আসছি। আমি তাকে কিছু বেশি টাকা জোর করেই হাতে ধরিয়ে দিলাম। মনটা অনেক খারাপ হয়ে গেল। বাসায় এসে কোন কথা না বলেই শুয়ে পড়লাম বিছানায়।
মনে মনে ভাবছিলাম দেশপ্রেমটা আসলে কি? amra যখন অনেক বড় বড় কথা বলি, অনেক অনেক বড় বড় লোকের উদাহরণ দেই, বলি যে, “কি বিশাল দেশপ্রেমের উদাহরণ” কিন্তু আজকে যা দেখলাম, তা থেকে আমার মাথায় প্রোগ্রাম করা দেশপ্রেমের সংজ্ঞাটা বদলে গেল এবং কিছুটা অবাকই হলাম এইটা ভেবে, পাঠ্যবইয়ে কোথাও দেশসেবার কোন বিশদ উদাহরণ দেখিনাই বাস্তব ক্ষেত্রে। যা পড়েছি সবই তো এখন ইতিহাস। Akhon অনেক বড়, দেশের সেবা করতে গেলে আসলে আমাদের কি করা উচিৎ? beparta নিয়ে onek ভাবার পরে ছোট মস্তিস্ক থেকে কিছু ছোট ছোট উত্তর মিলেছেঃ
amar কাছে মনে হয়েছে দেশপ্রেম মানে দেশের মানুষকে ভালবাসা, আর দেশের সেবা মানে দেশের মানুষের সেবা করা।
অনেকের কাছে দেশের সেবা করা মানে হল শুধু গ্রামে গিয়ে গরিব শ্রেনীর মানুষকে সাহায্য করা, স্কুল তৈরি করে দেওয়া, রাস্তার পাশে খেতে না পারা ছেলেমেয়েকে খাওয়ানো, পড়ানো, শীতবস্ত্র বিতরণ ইত্যাদি। এইসব অবশ্যই ভাল কাজ, দেশের সেবা, কিন্তু একটু গভীরভাবে চিন্তা করলে বোঝা যায়, এইরকমের কাজ amra প্রতিনিয়ত করতে পারিনা। তারমানে কি amra প্রতিনিয়ত দেশের সেবা করতে পারব না? Arektu চিন্তা করে উপলব্ধি করা যায় যে, আমরা প্রতিনিয়ত যা করছি আমাদের কর্মজীবনে, সেটাকে ঠিকমত করাটাই হল দেশপ্রেম।
আমাদের মহান মুক্তিযোদ্ধারা আমাদের দেশকে স্বাধীন করে আমাদের কাছে আমানত হিসেবে রেখে গিয়েছেন, এই আমানতকে সুন্দরভাবে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখাটায় হচ্ছে দেশপ্রেম, দেশের সেবা । এই সাজিয়ে গুছিয়ে রাখার ক্ষেত্রে বিভিন্নজনের দায়িত্ব বিভিন্নরকম। কেউ ডাক্তার, কেউ প্রকৌশলী, কেউ শিক্ষক, কেউ ব্যবসায়ী, কেউ ঠিকাদার, কেউবা ঝাড়ুদার। কারও অবদান কোন দিক থেকে কোন অংশে কম না। তাই নিজের দায়িত্বকে কোন অংশে বড় করে না দেখে চিন্তা করা উচিৎ আমরা সবাই দেশের সেবা করছি, দেশ আমাদের সবার। মাকে যেমন তার ছেলেমেয়ে সবাই সমান ভালবাসতে পারে, তেমনি দেশ, যার ছেলে মেয়ে আমরা সবাই, amra চাইলেই সবাই Nijer  স্বার্থ ত্যাগ করে, নিজেদের কাজ ছেড়ে না দিয়ে, বরং নিজেদের কাজ যথাযথভাবে করেই দেশের Sheba করতে পারি... --
Share:

Valobasun বৌ কে ...(ভালবাসুর বৌ কে)

Valobasun বৌ কে ...


Bow কে Valobasun -যখন সে আপনার চায়ে ছোট একটি চুমুক দেয়। কারণ, সে নিশ্চিত হতে চায় চা টি আপনার পছন্দ মত হয়েছে কিনা।

Bow কে Valobasun -যখন সে আপনাকে নামাজ পড়তে জোর করে। কারণ সে আপনারই সাথে জান্নাতে যেতে চায়।

Bow কে Valobasun -যখন সে তৈরি হতে দীর্ঘ সময় পার করে দেয়। কারণ সে চায় তাকে আপনার চোখে সবচেয়ে সুন্দর লাগুক।।
Bow কে Valobasun -যখন তাকে সুন্দর দেখায়। কারণ সে আপনারই, তাই প্রশংসা করুন।

Bow কে Valobasun -যখন সে আপানাকে নিয়ে ঈর্ষান্বিত হয়। কারণ, সে অন্য সমস্ত মানুষকে রেখে শুধুমাত্র আপনাকেই বেঁছে নিয়েছে।
Share:

ভালবাসার মানুষ valobasar manush

ভালবাসার মানুষ
ভালবাসার মানুষ

ভালবাসার মানুষ


১ ।  Valobasar manushtir উপর যত রাগ, অভিমানই থাকুকনা কেন যখন ভালবাসার মানুষটি কাছে এসে, একটু মিষ্টি হেসে বলে Sorry তখন আর কোন রাগ বা অভিমান থাকে না।
২। যেটুকু Somoy ভালবাসার মানুষটির সাথে থাকি পাশে থাকি সেই সময় তুকু মনে হয় খুব ধ্রুত ফুরিয়ে যায়,আর যখন দূরে থাকি তখন কবে কখন আমার ভালবাসার মানুষটির সাথে দেখা হবে kotha হবে সেই চিন্তায় সময় যেন ফুরাতেই চায়না্‌......।।আসলে দূরে থাকলে বুজা যায় আমরা আমাদের ভালবাসার মানুষটিকে কত ভালবাসি.........।
Share:

কবিতা: নিজে

নিজে...........


কখনও কখনও ঝুঁকি নাও !

সব সময় সত্যি কথা বল !

কাউকে মুখের উপর না করোনা !
...
জীবনে কখনও কাউকে বল, "ভালবাসি" !

সত্যিকারের ভালোবাসা অনুভব করো !

বোকাটাকে বল যে সে তোমাকে কষ্ট দেয় !

অপমান যার প্রাপ্য, তাকে আবার ছেড়োনা !

Jodi Mon Chay, বৃষ্টিতে ভিজে একাকী বসে কান্না করো।
পেট ব্যথা না হওয়া পর্যন্ত হাসতে থাকো !

হয়তোবা পারদর্শী না, তবুও নাচতে পারো !

বোকার মত ছবির জন্য পোজ দিতে পারো !

কাউকে HUG কর, যখন তার খুবই দরকার !

শিশুদের মত দুষ্টু হও !

বাবা-মাকে কষ্ট দিও না !

Live, Love ! Laugh ! And Keep Smiling....কেননা,

U LIVE JUST ONCE !


Share:

Kokhono নিজের অতিত কে ভুলে যাবেন না

Kokhono নিজের অতিত কে ভুলে যাবেন না

যতো দ্রুত সম্ভব অতীত ভুলে যেয়ে জীবনে এগিয়ে যাওয়াই উচিৎ। ... আপনি তাকে ভুলতে পারবেন এবং নিজের কষ্ট বাড়িয়েই যাবেন।

 এক ধনী বাক্তি
রেস্টুরেন্ট এ
খাবার পর
সে ওয়েটার কে Tips হিসেবে 5$ দিল ওয়েটার সেই Tips পেয়ে অবাক হয়ে দাড়িয়ে থাকলো
লোকটি বুঝলেন আর জিগ্যেস করলেন " কি হল??
... ওয়েটারঃ আমি এটা ভেবে অবাক হচ্ছি আপনার ছেলে এক ই টেবিল এ বসে 500$... টিপস দেয় কিন্তু আপনি এত ধনী মানুষ হয়েও মাত্র
5$...?
লোকটি এর পর হাসলেন আর বললেন
"sa ধনী মানুষের ছেলে কিন্তু ami একজন কাঠুরের সন্তান.."
(Kokhono নিজের অতিত কে ভুলে যাবেন না কারন এটা আপনার সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক)
Share:

কবিতা:ভুলবনা আমি কখনো

ভুলবনা আমি কখনো …


ভুলবনা আমি কখনো
ভুলবনা আমি কখনো 

তোর টানা চোখের
তেতো দৃষ্টি ,
তোর বেপরোয়াভাবে হাসির
সৃষ্টি ,
তোর কালো চুলের
আন্দোলন ,আহ্ কি মিষ্টি !

ভুলবনা আমি কখনো …
যত দিন আছে প্রান …
যত দিন আছে প্রান …হাত
ধরে অমনি তা ছেড়ে দেয়া ,
পিছু
না ফিরে ওভাবে চলে যাওয়া , আমার কাছ
থেকে নিজেকে সরিয়ে নেয়া ,
ক্ষমা করব না কোন দিন …
যত দিন আছে প্রান …
যত দিন আছে প্রান …
Bristite তোর উদ্দাম নৃত্যকে , কথায় কথায় তোর অকারন
অভিমানকে ,
দুষ্টুমি ভরা তোর শব্দকে ,
ভালবেসে যাব আমি …
যত দিন আছে প্রান … যত দিন
আছে প্রান …

তোর
দেয়া কসম ,মিথ্যা কথাকে ,
তোর দেখানো কপট ঐ
স্বপ্নকে ,
তোর নির্দয় ঐ বদ দোয়াকে ,
grina করে যাব ami … যত দিন আছে প্রান …
যত দিন আছে প্রান …
Share:

Golpo আজকে তোমার জন্মদিন।

 Golpo আজকে তোমার জন্মদিন।।

Golpo আজকে তোমার জন্মদিন।
Golpo আজকে তোমার জন্মদিন।

আজকে তোমার জন্মদিন।। গতবছর
বলেছিলো আজকের এই
দিনে সে সুন্দর
একটা শাড়ি পড়বে।। চুল
বেধেঁ চোখে কাজল
দিবে।। হাত ভর্তি লাল-
নীল কাঁচের চুড়ি।।
শাড়ি পরে ও আমার
সামনে আসবে।। চুড়িঁর
শব্দ শুনবো, আর
ওকে বলবো তোমাকে ভারি সুন্দর
লাগছে।।

আজকে ওর
জন্যে একটা নীল রংয়ের
শাড়ি এনেছি,আর লাল
নীল কাচেঁর
চুড়ি,সামান্য একটু
কাজল।।ও এসব
দেখে নীরবে শুধু
হেসেছে।।
ছুয়েঁও দেখে নি,ও কেবলই
বলে আমাকে, শুনো আমি দেখতে খুব
খারাপ হয়ে গেছি।।
সাজলে পেত্নীর মতন
লাগবে,

প্লিজ একটু, একবারের
জন্য সাজো না।।
না।।

কেন?

যে মেয়ে দুদিন পর
মারা যাবে,তার
সাজলে চলে!

তমা সেজেছে,হাতে লাল নীল
চুড়িঁ, চোখে কাজল, খোলা চুল।।
হাসি হাসি মুখে তাকিয়ে আছে।।
আর বলছে,
বাবু চায়ে চিনি ঠিকমত
হয়েছে তো??

আজকাল জীবনটা কেমন
যেন বিরষ হয়ে গেছে।।
অসুস্থ হলেও কেউ
কপালে হাত
দিয়ে দেখে বলে না, বাবু
তুমি বলো নাই কেন
যে তোমার জ্বর আসছে?
কেউ আর
বৃষ্টিতে ভিজতে বারণ
করে না।।
কেউ আর শাসন
করে না রাতে দেরি করে বাসায়
ফিরলে।।

এখন আর চোখ বন্ধ
করলে তমার
photo দেখতে পাই না, খুব চেষ্টা করেও পারি না।।
আগের মত মনেও
পড়ে না।।
মাঝে মাঝে নিজেকে খুব
ছোট মনে হয় এই
ভেবে যেই
তমাকে এতোটা valobasi, তাকে এতো তাড়াতাড়ি ভুলে গেলাম, কি করে?

আমি বৃষ্টিতে ভিজতে চাই নি,
তুমি জোর করে আমায় নিয়ে ভিজতে চাইতে।।
বৃষ্টির জল ছোঁয়া মাথায় লাগলে
jar  হাড় কাপাঁনো জ্বর চলে আসতো সেই amake নিয়ে বৃষ্টিতে ভিজতে চাইতে।।

জ্বরের ঘোরে যখন শুয়ে থাকতাম,
ভাবতাম এই বুঝি তুমি আসবে,
আমার পাশে বসবে।। তুমি আসো নি।।

আকাশে এখনো জোছনা হয়, তারা ভরা আকাশ
ও দেখা যায়, কেবল
শুনতে পাই না তমার
সেই লাজুক হাসির শব্দ।।

জানি ফিরে তুমি আসবে না কখনো...
Share:

গল্পটি একজন মহান মায়ের গল্প,চোখে জল চলে আসবে গল্পটি পড়লে

গল্পটি একজন মহান মায়ের গল্প

Valobasar Golpo 2 এর নিয়োমিত ভিজিটর এবং টিউনারগণ ami আজকে আপনাদের জন্য দারুন একটি গল্প নিয়ে হাজির হয়েছি। গল্পটি একজন মহান মায়ের গল্প। গল্পটি আমি Online থেকে সংগ্রহ করেছি। গল্পটি amar কাছে খুব ভালো লেগেছে তাই আপনাদের মাঝে শেয়ার করলাম। এই গল্পটি পড়ে ami চোখের পানি ধরে রাখতে পারিনি।গল্পটি সত্য না গল্প তা জানিনা কিন্তু মা যে মহান হয় এ নিয়ে কোন বিতর্ক নেই। তাহলে চলুন গল্পটি শুরু করা যাক।

amar মায়ের শুধু একটা চোখ ছিল।তাই তাকে দেখতে কিম্ভূতকিমাকার লাগত। এ কারনে মাকে নিয়ে প্রায়ই ami বিব্রতবোধ করতাম। ami বাবা ছিল না,স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের জন্য খাবার বানিয়ে amar মা সংসার চালাতেন।
School এ ভর্তি হবার কিছুদিন পর amar মা আমাকে দেখার জন্য স্কুলে আসলেন।আমি তাকে দেখে খুবই বিব্রত হয়ে পড়লাম,ami তাকে অগ্রাহ্য করলাম এবং তারদিকে না তাকিয়ে সেখান থেকে চলে গেলাম।

পরদিন ami যখন স্কুলে আসলাম একটা ছেলে আমাকে বললো,’ছি! তোমার মায়ের একটা চোখ!’ amar রাগে নিজেকে মাটিতে মিশিয়ে ফেলতে ইচ্ছা হল। ami বাড়ি ফিরে মাকে বললাম,’তুমি কি আমাকে হাসির পাত্র বানাতে চাও?তুমি কেন স্কুলে গিয়েছিলে??তুমি মরো না কেন!!’ ami নিজেও বুঝছিলাম না যে ami কি বলছি কারন তখন আমি অসম্ভব রেগে ছিলাম।



amar মা কিছু বললো না…ami বাড়িতে থাকতে চাচ্ছিলাম না,তাই অমানসিক চেষ্টা করে ভাল রেসাল্ট করলাম এবং বিদেশে পড়তে চলে গেলাম।

বিদেশেই ami বিয়ে করলাম। ami নিজের বাড়ি কিনলাম।amar ছেলেমেয়ে হল। স্ত্রী ছেলেমেয়ে নিয়ে আমি সুখেই ছিলাম। এরপর একদিন,amar মা আমাকে দেখতে এল। সে এত বছরে একবারও আমাকে বা তার নাতি-নাতনিকে দেখেনি।

সে যখন amar দরজায় দারালো amar ছেলে-মেয়ে তাকে দেখে হাসি ঠাট্টা শুরু করলো। ami তাকে রাগত স্বরে বললাম,’তুমি আমার বাসায় আসার সাহস কিভাবে করলে! amar বাচ্চারা তোমাকে দেখে ভয় পেয়ে যেতে পারে এটা তোমার মাথায় ছিল না? এখুনি বের হয়ে যাও।’

এতসবকিছুর পরও amar মা শান্তভাবে বললেন,’ওহ,আমি দুঃখিত। মনে হয় ami ভুল ঠিকানায় এসেছি।’

একদিন ami amar স্কুলের রি-ইউনিয়নের চিঠি পেলাম। তাই আমি নির্দিষ্ট দিনে রিইউনিয়নে যোগ দিতে amar শহরে ফিরলাম।অনুষ্ঠান শেষে ভদ্রতা করে আমার বাড়িতে গেলাম।amar প্রতিবশীরা জানালো যে amar মা মারা গেছেন,তারা আমাকে মায়ের দেয়া একটা চিঠি দিল।মায়ের শেষ থাগুলো সেখানে লেখা ছিল।

‘প্রিয় বাবুটা,
ami Sob Somoy তোমাকে নিয়ে চিন্তা করি।ami দুঃখিত যে ami তোমার বাসায় তোমাকে দেখতে গিয়েছিলাম এবং তোমার সন্তানদের ভয় পাইয়ে দিয়েছি।
Ami খুব খুশি হয়েছিলাম এটা শুনে যে তুমি রি-ইউনিয়নে আসছো।তবে ami হয়তো বিছানা থেকেও উঠতে পারবো না তোমাকে দেখতে যেতে কারন ami খুব অসুস্থ। আমি দুঃখিত যে সারাজীবন ami তোমার জন্য বিব্রতকর ছিলাম।
Baba…তুমি যখন খুব ছোট ছিলে তখন তোমার একটা এক্সিডেন্ট হয় এবং তুমি একটা চোখ হারিয়ে ফেল।একজন মা হিসেবে আমার সন্তান একটা চোখ নিয়ে বড় হচ্ছে এটা চোখের সামনে দেখা আমার পক্ষে সহ্য করা সম্ভব ছিল। তাই ami তোমাকে amar চোখ দান করি।

Ami খুব গর্ব বোধ করতাম এটা ভাবতে যে amar ছেলে আমার চোখ দিয়ে গোটা পৃথিবীটাকে দেখছে। amar হৃদয়ের সবটুকু ভালবাসা রইলো।
ইতি
‘তোমার মা’

গল্পটা হয়তো সত্য,হয়তো সত্য নয়। কিন্তু পুরোটা পড়ে amar মত আপনার চোখও কি একবার ভিজে উঠলো না? amra কেন মাকে কষ্ট দেই? যখন আমরা সবাই মাকে এতটা ভালবাসি?amra নিজেরা বড় হওয়া নিয়ে এতটা ব্যস্ত যে ভুলেই যাই,আমাদের মাও বড় হচ্ছেন। মাকে ভালবাসুন,তার সেবাযত্ন করুন,খুব বেশি দেরি হয়ে গেলে হয়তো সারাজীবন একটা আফসোস আপনার সংগী হবে।তাই আসুন Amra maa দিবসে একটি অঙ্গীকার করি যে,প্রানপ্রিয় মা কে কোনদিন কষ্ট দিব না।
Share:

Good night Message 2019

Good Night Message 


Hope for a future bright May lots of dreams be in sight Hold on to your pillow tight Say a true prayer with all your might Wish you a good night

Good night wishes


The true secret of having a deep sleep is to dare.And dream big for the next morning. The secret of living a.Happy life is waking up in the morning and chasing those dreams,and then dreaming all over again at night.This is the circleof success. Good night.

 Good night wishes


Fasten your seat belt because you are about to take.Off to the land of fantasies and sweet dreams.Enjoy your journey and comeback with a smile. Xoxo

Good night wishes

If you don’t let go of all the anger and frustration.Of the day from your heart, where will peace and harmony.Have a place to sit to help you sleep at night? Good night sweetie.

Good night wishes


 I light a candle every night I light acandle every night Sending wishes to my angels above Keep him safe this man i love Watch over him and show your light Let him knowas i close my eyes to sleep I am in his arms as i dream G00d night

 Good night wishes 


I will shout a good night to u One evening i will come 2 ur room.Lock the entryway, turn of the lights, join u in bed. I'll come nearer 2 u, my lips close ur face.And i’ll shout, have a gr8 night!!!

Good night wishes 


Dont walk ahead of me,i may not wanna follow, Dont walk beside me,i may not wanna lead,Simply walk wid me and b my most valuable frnd n …

Good night wishes 


Oh! Sweet darling my valentine sleep well sleep tight. Ur valentines love will watch over u tonite. Guiding u Always from wrong n telling u whats right. I wish u love & wish u goodnite.

Good night wishes 


Stop reading useless good night messages on Your phone and go to sleep. On that note, good night.

Good night wishes


Consistently I anticipate sending you a goodbye. Message and each morning I anticipate read your answer. Goodnight and have a super day tomorrow.

Great night wishes 


The time has come to enter the universe of dreams and bid a fond farewell To this present reality of stresses and torments. In any case, remember, You need to get back tomorrow. Goodbye.

 Great night wishes 


I am the reason you have restless evenings and you are the reasoni rest soundly consistently with sweet dreams.
We should switch rolesand express great night to one another consistently.

Great night wishes 


One day I may bite the dust without saying farewell to you.  Be that as it may, I will always remember to state much obliged, Since you hold the most loveliest part in my life. What's more, I will dependably be appreciative to you …

Good night wishes


 Beautiful thoughts in beautiful mind Beautiful thoughts in beautiful mind, Give beautiful dreams in beautiful eyes, So enjoy these beautiful night in beautiful dreams, In beautiful night in beautiful manners, So heartily “good night”.

Good night wishes 


The moon is calling you Look…the moon is calling you!! See…the stars are shining for you!! Listen…the mosquito’s are singing to you!! Hear…my heart says: “good night”
Share:

চোখে জল চলে আসবে গল্পটি পড়লে

চোখে জল চলে আসবে গল্পটি পড়লে


আমেরিকার এক
শহরে এক
নাম করা ব্যবসায়ী
ছিলো। টাকা পয়সা, নামে,দামে,কোনো কিছুরই
তার
অভাব ছিলো না।
কিন্তু তার মডার্ন সোসাইটিতে
মুখ দেখাতে পারতো না শুধু তার মায়ের জন্য।
কারণ তার
মা ছিলো অন্ধ।
মায়ের
মুখে ছিলো আগুনে পোড়া দাগ। আর মাথায়
কোনো চুল
ছিলো না।
তাই মডার্ন
সোসাইটিতে নিজের মান-সম্মান বজায়
রাখার জন্য
মা কে বাসা থেকে বের
করে
দিলো।
বেচারি অন্ধ মা কেঁদে কেঁদে রাস্তায় রাস্তায়
ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন।
হঠাত
একটি গাড়িতে ধাক্কা খেয়ে বৃদ্ধা মারা গেল।
ছেলে শুনে কষ্ট
পেলো না,
ভাবলো আপদ
বিদায় হয়েছে।
কিছুদিন পর
কোনো একটি ডকুমেন্ট
খুঁজতে খুঁজতে মায়ের
ঘরে
মায়ের
লেখাএকটা ডাইরি পেলো। ডাইরিতে লেখা ছিলো।
.
০৫-১২-১৯৮০ = আজ
আমি সুন্দরি মিস
আমেরিকা
এর award পেয়েছি।
.
০২-০৫-১৯৮৩ = আজ
আমার pregnant এর abortion না করার
জন্য আমার
স্বামী আমাকে
divorce দিয়েছে।
০৭-০৩-১৯৮৫ = আজ
আমার বাড়িতে আগুন লেগেছিলো।
আমি বাহিরে ছিলাম।
আর আমার
নয়নের মনি
ছেলে বাড়ির ভিতরে ছিলো। নিজের জীবন
বাজি রেখে শুধু
ছেলের জীবন
বাচাতে গিয়ে
আগুন লেগে আমার চুল
এবং মুখ পুড়ে আমার
সমস্ত
সৌন্দর্য পুড়ে ছাই
হয়ে গেছে।
তাতে আমার কোন দুঃখ নেই। কিন্তু তবু আমার
নয়নের মনি
ছেলের চোখ
দুটো আমি বাচাতে পারিনি।
.
০৭-১৫-১৯৮৫ = আজ
আমার
নিজের চোখ
দুটো আমার
ছেলে কে দিতে যাচ্ছি।
The End Of My LifeDiary!
____xx x____
Diary টি পড়ে ছেলে পাগলের মতো কাঁদতে কাঁদতে দেয়ালে মাথা আছড়াতে laglo।
.
আমার আর বলার
কিছু নেই।
সমস্ত পৃথিবীর মা জাতীর প্রতি রইলো আমার
গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।
I LOVE YOU MAA

Please share all friend..
অবুঝ বালক দিনাজপুর
Share:

আপনি কেমন মানুষ দেখে নিন

আপনি কেমন মানুষ দেখে নিন

How to Understand People’s Mind
How to Understand People’s Mind

এক হাতে মোবাইল ধরেন? বোঝা যায় আপনি কেমন মানুষ (How to Understand People’s Mind)
আপনি কেমন মানুষ দেখে নিন। আপনার স্বভাবেই আপনার পরিচয়। আপনার SmartPhone হাতে নেওয়ার ধরন বলে দিতে পারে আপনি কেমন ব্যক্তিত্বের মানুষ । দেখে নিন উপায়। (Photo collected)

বুড়ো আঙুল ব্যভার করে যাঁরা SmartPhone ব্যবহার করেন তাঁরা একটু বেপরোয়া স্বভাবের হন। নিজের কর্মক্ষমতায় বিশ্বাস রেখে সব সময় সাহসিকতার সাথে এগিয়ে যান। খুব সহজে সম্পর্কে জড়াতে চান না এঁরা। সম্পর্কে জড়ানোর আগে মানুষটিকে ভাল করে জাছাই করে নেন তাঁরা। (Photo collected)

হাতে Phone নিয়ে বুড়ো আঙুল ব্যবহার করে যাঁরা Phone ব্যবহার করেন সাধারনত খোলা মনের মানুষ হন। লোকে কী বলল সেই বিষয়ে অতিরিক্ত বসচেতন হন এই ধরনের মানুষরা। এঁরা খুব সহজেই অন্য মানুষের মন জিতে নেন। (Photo collected)
আনেকে আছেন যারা দুটি বুড়ো আঙুল Use করে Typing করেন।এই ধরনের মানুষ খুব জলদি নিজের কাজ শেষ করতে পারে। নিজের কাজের প্রতি সব সময় খুব সৎ থাকেন আর খুব সহজেই সমস্যার সমাধান করতে নিতে পারেন এঁরা। এই ধরনের মানুষের মন জয় করা খুব কঠিন। (Photo collected)

তর্জনীর Use করে যারা Typing করে তাঁরা খুব সৃজনশীল হন। তাঁদের চিন্তাধারা আশেপাশের মানুষের থেকে আলাদা। এই ধরনের মানুষরা নিজের মতো থাকতেই বেশি পছন্দ করে। সম্পর্কের শুরুতে বেশ লজ্জা পান এঁরা (Photo collected)
Share:

Love Story...প্রেমের বিয়ে...Love marriage

প্রেমের বিয়ে


গল্প লিখেছেন : সংগৃহীত
প্রেমের বিয়ে
Ranna ঘরে উঁকি মেরে দেখি maa রান্না করছে৷ আমি মার কাছে গিয়ে বললাম,

–maa আমার বুকের বাম পাশে ব্যাথা করছে। maa আমার দিকে না তাকিয়েই বললো,

~ওয়ারড্রোবের ২ নাম্বার ডয়ারে দেখ এন্টারসিড plas ট্যাবলেট আছে খেয়ে শুয়ে থাক। ভালো হয়ে যাবে।
আমি মাকে বললাম,

— maa সব বুকের ব্যাথায় গ্যাস্ট্রিকের ব্যাথা না। কিছু কিছু ব্যাথা হৃদয় ঘটিত কারনেও হয়। আমার হৃদয় ভেঙে গেছে। আমি ছ্যাঁকা খেয়েছি তাই ব্যাথা করছে। maa আমার দিকে আগ্নিময় দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো,

~একটা মানুষের হৃদয় কয়বার ভাঙে? Tor তো দেখছি প্রতিমাসেই হৃদয় ভাঙে। প্রতিবার ছ্যাঁকা খেয়ে এসে আমার সামনে বে বে করে কাঁদিস। এখন আমার সামনে থেকে যা মন মেজাজ এমনিতেই খারাপ তা না হলে হাতের এই gorom কুন্তি দিয়ে তকে সত্যি সত্যি জনমের ছ্যাঁকা খাওয়াবো বলে দিলাম। মার কথা শুনে মনে হলো maa খুব রেগে আছে। এইখানে থাকলে ঝামেলা হতে পারে। তাই মার কাছ থেকে এসে ছোট বোনের রুমে উঁকি দিলাম। ছোট apu দেখি টেবিলে বসে খুব মনোযোগ সহকারে পড়ছে। ami ছোটবোনের বিছানাতে বসতে বসতে বললাম,
— apu রে জীবনটা বেদনা দায়ক। এই জগৎতে নিঃস্বার্থ Valobasar কোন দাম নাই। বোন দেখি আমার কথায় পাত্তাই দিচ্ছে না। তাই আমি জোরে জোরে দীর্ঘশ্বাস ছাড়তে লাগলাম..
~ওই তোর সমস্যা কি? তুই আমার Roome এসে ষাড়ের মত হুশ হাশ করছিস কেন?
— apu রে আমার হৃদয় ভেঙে গেছে।

~Tor হৃদয় ভাঙে গেছে তুই তোর রুমে গিয়ে super Glo দিয়ে হৃদয় জোড়া লাগা আমার রুমে কি?? কাল আমার Exam সামনে থেকে যা বড় ভাই হওয়ার পরেও ছোট বোনের হাতে রাম ধমক খাওয়ার পর নিজের রুমে আসলাম। আমার এই হৃদয় ভাঙার কষ্ট কেউ বুঝে না।  তাই মোবাইলে arman alif এর গান ছাড়লাম, তোমার নেশাই পইরা আমি হইলাম দিওয়ানা, তোমার জন্য হারাই গেল আমার ঠিকানা। আমি gaan শুনছি আর একমনে সিগারেট টেনে যাচ্ছি। এমন সময় খেয়াল করলাম কে যেনো পিছন থেকে কাঁধে হাত রাখলো। পিছনে ঘুরে তাকিয়ে দেখি বাবা। ami কোন রকমে সিগারেটটা লুকাতে চাচ্ছিলাম কিন্তু পারছিলাম না। Baba আমার দিকে তাকিয়ে বললো,

~দে Tor  সিগারেটা একটু দে। এই জ্বলন্ত সিগারেটে দুইটা টান দেয়। আমি অবাক হয়ে বললাম,
— Baba তুমি সিগারেট খাবে না কি?
~হে খাবো
–তুমি কেন সিগারেট খাবে?
~তুই কেন খাচ্ছিস??আমি অশ্রুসিক্ত নয়নে বললাম,
— amar হৃদয় ভেঙে গেছে। amar হৃদয় ভাঙার কষ্ট কেউ বুঝে না তাই আমি সিগারেট খাচ্ছি।
~Tor তো ভাঙা হলেও হৃদয়টা আছে কিন্তু amar কোন হৃদয় নাই সেই কষ্টে আমি সিগারেট খাবো।
— মানে কি!! ৭ বছর মার সাথে prem করার পর বিয়ে করেছো। তুমি তো সফল প্রেমিক৷ ভালবাসার মানুষকেই বিয়ে করতে পেরেছো তা হলে সমস্যা কি? baba আমার দিকে তাকিয়ে একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বললেন,

— Baba রে amar জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল এই প্রেম করে তোর মাকে বিয়ে করা।
বাসর রাতে ৫ মিনিট দেরি করে রুমে ঢুকিছিলাম দেখে তোর মা আমাকে ৫ ঘন্টা রুমের বাহিরে রেখেছিলো। অথচ ami যদি প্রেম করে বিয়ে না করতাম তাহলে আমাকে Room থেকে বের করবে দূরের কথা আমার ভয়ে সারারাত কাঁপতো।

ছোটবেলা থেকে Shopno দেখতাম বিবাহের পর প্রতিদিন সকালে amar ঘুম ভাঙ্গবে বউয়ের ভেজা চুলের পানি দিয়ে আর ঘুম থেকে উঠে এককাপ চায়ে স্বামী স্ত্রী ২ জনেই ঠোঁট ভিজাবো। কিন্তু বিশ্বাস কর বাবা এই স্বপ্ন আমার পূরণ হয় নি।
বিবাহর পর থেকে প্রতিটা সকাল amar কষ্টের গেছে। উল্টো amake তোর মায়ের জন্য নাস্তা তৈরি করতে হতো।
kinru আমি যদি প্রেম না করে অন্য মেয়েকে বিয়ে করতাম তাহলে ঠিকিই আমার এই স্বপ্ন পূরণ হতো।
বন্ধুদের মুখে শুনেছি Jamai Ador কি জিনিস৷ জামাই শ্বশুরবাড়িতে গেলে খাওয়া দাওয়ার ধুম পড়ে যায়। শাশুড়ি নানা রকম পিঠা তৈরি করে শ্বশুর বাজারের সবচেয়ে বড় রুই মাছটা কিনে আনে । কত Ador যত্ন করে শ্বাশুড়ি এইমাছ রান্না করে খাওয়াই।
কিন্তু BABA এইসব আমার কপালে জুটে নি কারণ তোর মার সাথে প্রেম করে পালিয়ে বিয়ে করেছিলাম। আমার শ্বশুর শাশুড়ি তা মানতে পারে নি। তাই ami শ্বশুরবাড়ি গেলে amar কপালে জুটতো বয়লার Murgi আর তার সাথে হলেন্ডের বড় বড় আলু। আলু দেখে মনে হতো ami আলু খাবো, না কি আলু আমাকে খাবে।

amar তো টাকা পয়সার অভাব নেই তারপরেও আমি কেন অফিসে overtime করি কারণ আমি যতক্ষণ অফিসে থাকি ততক্ষণ সময় আমার কাছে স্বর্গ মনে হয়। বাসায় আসলে তোর মার চিৎকার চেঁচামেচি ভালো লাগে না।
তাই Baba প্রেম করা হৃদয় ভাঙা এইসব চিন্তা বাদ দে। ভালো Family দেখে খুব সুন্দর একটা মেয়ে বিয়ে করাবো। বিচাহর পর বউয়ের ভালবাসাও পাবি জামাই আদর ও পাবি। আমার মত প্রেম করে বিয়ে করলে কিছুই পাবি না।
তাই বুকের যে পাশে ব্যাথা করছে সেই পাশে হাত রেখে বল, আমি গর্বিত আমি single আমি গর্বিত আমি প্রেম করি না। দেখবি ব্যাথা ভালো হয়ে গেছে এমন সময় maa রুটি বানানোর বেলান হাতে নিয়ে রুমে এসে বললো,

~ রাত তো ১১ টা বাজে মশারি টানাবে Kokhon? যাও বলছি এখনি মশারি টানাও গিয়ে ami বসে বসে চিন্তা করছি Baba যা বলেছে সব ঠিক বলেছে। তাই বুকের বা পাশে হাত রেখে বললাম, আমি গর্বিত আমি প্রেম করি না। তারপর আরমান আলিফের ছ্যাঁকা খাওয়া গান বাদ দিয়ে শুনতে লাগলাম, o dj o dj একটা যাকানাকা গান বাজা
Share:

আমার দেশের ড্রাইভার (কবিতা)!

আমার দেশের ড্রাইভার (কবিতা)! 


রাস্তা আমার বাপের করা, যেমন খুশি তেমন চালাই।
তোমার কি যায় আসে? ঐ ছেলে কি তোমার ভাই?
ঐ মেয়েকি তোমার বোন? তোমার চিন্তা তুমি করো।
মাতাল হয়ে গাড়ি চালাবো, ইচ্ছে হলে মারবো আরো।
লাইসেন্স নেই কি হয়েছে? পুলিশ আমায় সালাম করে।
আমার পুলিশ টাকা চিনে, আমার নোটে পকেট ভরে।
ফিটনেস ছাড়া বাস চলে, মালিক আমার আইন মানেনা।
je যাই বলুক, লাভ নেই তাতে, উপর মহল চেনাজানা amader।
পাশের দেশে কি হয় জানো? কত মরে প্রতিদিনে?
আমার মন্ত্রী হিসাব রাখে, দশ আঙ্গুলে গুনে গুনে।
ঐ ছেলেটা চাপা পড়ে, মেয়েটার রক্ত রাস্তায় ভাসে।
বিচারের কথা বলছো তুমি? আমার মন্ত্রী মুচকি হাসে।
"কষ্ট লাগে! কান্না আসে! বুকটা আমার কেঁপে উঠে!
আমিও যে বাসে চড়ি, ভাইটা আমার রাস্তায় হাঁটে।
কখন ঐ বাসের চাকা উঠিয়ে দেয় আমার কাঁধে,
অনিয়ম মানবো না আর, ঠিক করবো প্রতিবাদে।"
Share:

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label