নতুন নতুন ভালোবাসার গল্প ও কবিতা পেতে আমাদের পাশেই থাকুন।

I Have Never Had a Healthy Relationship With Food—and I'm Actually Okay With That post by 2020

I Have Never Had a Healthy Relationship With Food—and I'm Actually Okay With That
I Have Never Had a Healthy Relationship With Food—and I'm Actually Okay With That

Amid National Eating Disorders Awareness Week, one lady shares her deep rooted battle cycling between extraordinary eating less junk food and gorging.

As I compose this, I am on my some espresso, and I have no prompt intends to back off.

In the interim, I am over part of the way through a pack of gum I simply opened today, and will probably have bitten the last piece before I leave work this evening.

Knowing this, I thought about acquiring just a couple of bits of gum and leaving whatever is left of the pack at home.

In any case, I would prefer to have no gum than just some gum.

I must have all the gum or no gum by any means.

While this natural, highly contrasting attitude applies to pretty much every part of my life—from caffeine and gum to work and sentiment—my first and last win big or bust relationship has dependably

been with sustenance.

Since my pudgy adolescence, I have adored at the special stepped area of slimness and turned into an expert of voraciously consuming food.

I am caught in a definitive Kate Moss Catch 22: I think everything tastes comparable to thin feels, and I think thin feels extremely great.

Thus, my dietary patterns have since quite a while ago vacillated among overindulgence and limitation, every so often punctuated by cleansing practices and seemingly unreasonable exercise.

Do I have a dietary problem?

While I've never searched out an official analysis, it's far-fetched I would be given one.

Late modifications to the DSM-V's demonstrative criteria have made it simpler for battling people to get a dietary problem finding, yet even my most extraordinary scenes of confinement and

cleansing have only from time to time been sufficiently critical to qualify.

Squeezed for a name, I would state that I don't have a dietary problem, yet I am a scattered eater—an expression I've obtained from author Melissa Broder, whose work has

regularly investigated the thought of confused eating as particular from dietary issues.

Like Broder, I have discovered that the term confused eating appears to work for me.

It's not hard for me to oppose sustenance through and through.

It is amazingly troublesome, in any case, for me to quit eating once I've begun.

I don’t want to eat in moderation because the anguish of having some and wanting more isn’t worth it to me. If I’m going to eat, I want it to feel unlimited. But if I am going to indulge, I also have to compensate. What does this compensation look like?

Normally, it shakes out to fasting amid the week.

I allow myself unlimited coffee, gum, and light grazing of whatever free food happens to come my way—so I can save up for unlimited social eating and drinking on the weekend.

Today, I will presumably have a fifth espresso before I leave work and head to the rec center, where I'll complete a few hours of cardio and after that get

a handful of the free Tootsie Rolls they keep at the front desk on my way out. I acknowledge that my system has its flaws.

In any case, following quite a while of thinking about sentiments of disgrace and blame about my body and dietary patterns, I have at long last struck a parity.

Somewhere close to consuming less calories and a diagnosable dietary problem, I have discovered my sheltered space.

I will never be an ordinary eater, yet I have figured out how to suit my requirement for liberality while keeping up a weight with which I am commonly upbeat.

On the off chance that that technique now and then includes subsisting completely on gum and Diet Coke for a couple of days on end, that feels like a reasonable trade off to me.

I stay proud in regards to my scattered eating since it works for me.

Likewise, I trust the disgrace I once felt over these practices was no less destructive and not any more merited than the disgrace my plump youth body used to bring me.

All things considered, I don't prescribe this conduct.

When companions attempting to shed pounds approach me for exhortation, regardless I scoff at proposing, "Hello, have you contemplated just not eating for some time?

" For all the confidence I have in my framework, I can't be sure that it's not hurting me, and I certainly can't make certain it wouldn't hurt another person.

The only thing I have learned for certain throughout my lifelong quest to marry my love for food and my love for being thin is that diet and fitness are intensely individual. Potential health risks aside, I can’t promise my system would even be effective for someone else.

Eventually, my proposals might be as unhelpful for others as "everything with some restraint" is for me.

In our present body-positive time, I perceive that quite a bit of what I've composed here could be viewed as dangerous.

Shouldn't disclose to you that I feel greater at 110 pounds than I do at 140.

I'm not by any means expected to let it out to myself.

Be that as it may, perhaps body inspiration is about more than indiscriminately tolerating the blemishes in your body.

Possibly it is sufficient to acknowledge the blemishes in your relationship to that body.

Existing in my body is the hardest thing I have ever done, and I need to do it consistently for whatever is left of my life.

Existing in my body when it's between a size zero and two is somewhat simpler for me.

Confused eating enables me to do that, at what I've determined to be a sensible expense.

It's the nearest I'll at any point come to having my cake and remaining thin, as well.

I will never be the notice young lady for body inspiration. I will never cherish my body genuinely.

In any case, after numerous years at war, my body and I have figured out how to coincide.
Share:

The Internet Is Furious at This Man Who Body Shamed His Wife in Their Prenup post by Jewel 2019

The Internet Is Furious at This Man Who Body Shamed His Wife in Their Prenup
The Internet Is Furious at This Man Who Body Shamed His Wife in Their Prenup
He incorporated a statement saying she needed to lose all pregnancy weight inside one year...or else.

As much as everybody needs to think about their life partner as their accomplice forever, we must be sensible about how muddled marriage can get.

That's why many people sign prenups, to keep things fair in the event of divorce.

One would-be groom, be that as it may, didn't appear to get the decency notice when it came time to draft a prenup with his significant other to-be.

Truth be told, we don't know he comprehends what the word implies by any means.

A woman recently sought advice on Reddit after she noticed some "odd clauses" in her fiancé's proposed prenup.

One!  said she would get "remuneration" for every youngster she has with him, which means the more children she flies out, the more money she gets.

There's likewise a condition that said on the off chance that she undermines him, she leaves with fundamentally nothing.

Uh, did he genuinely simply body disgrace his significant other in their prenup?

All ladies are unique, yet an expecting mother with a typical BMI should pick up somewhere in the range of 25 and 35 pounds amid pregnancy, as indicated by rules issued by the Institute of Medicine.

While a portion of the weight is lost in the conveyance room, shedding the rest can take for a little while.

A baby blues mother needs calories and vitality to recuperate, deal with her new infant, and breastfeed, in the event that she does as such.

The lady said that she has nothing against prenups as a rule.

"My fiance is a neurosurgeon and has been wonderfully successful in his field, so when he asked me for a prenup I wasn't too surprised," she wrote, "and I

am supportive of them really." But when she saw these things recorded as a hard copy, she realized something wasn't right.

To exacerbate the situation, the legal counselor who spread out the subtleties of the prenup for her is additionally her life partner's dad.

"I haven't marked yet and might want to get understanding from somebody other than my future dad in-law as I feel he may deceive me if his child were to

advantage from it," she composed.

Most importantly, thank the sky she hasn't marked yet.

Furthermore, second of all, young lady, who needs a prenup when there's still time to cancel the commitment?

Reddit clients communicated some solid emotions about this circumstance in the remarks area.

Many brought up that it's terrible practice for her life partner's dad to speak to the two his child and his future girl in-law, and others said she should regard the red

banners and simply end things.

Others put forth the defense that a prenup needs to ensure the two gatherings, not simply the spouse

"Lawyer up. You cannot afford not to," one user wrote. "Also, you know...don't marry this guy."

Sadly, the mediators of the Reddit channel evacuated any remarks that gave relationship counsel rather than legitimate exhortation (according to the channel's guidelines).

Be that as it may, fortunately, the remarks helped this lady see the circumstance all the more unmistakably and consider employing a legal advisor to arrange a more attractive arrangement.

"A portion of the statements are excessively advantageous to one gathering," she later composed.

Women, never be hesitant to request what's reasonable.

A marriage is an equivalent organization, and regardless of whether your better half has more cash than you, that doesn't make you less equivalent in any capacity.

What's more, regard the signs: If a prenup has some douchy provisions in them, inquire as to whether your planned mate may be a d-sack as well.
Share:

মোবাইল প্রেমের একটা কাহিনী

মোবাইল প্রেমের একটা কাহিনী

সময়টা  2005  বা তার কাছাকাছি , গাইবান্ধা সরকারী কলেজের মাঠে কতগুলো ছেলে গোল হয়ে আড্ডা দিচ্ছে । এখন 1 বা দেড় টাকায় যেখানে 1 মিনিট কথা বলাযায় সেই সময় বিল লাগত প্রায় 4 থেকে সাড়ে চার
টাকার মত , আর রাস্তার মোড়ে মোড়েও ফ্লেক্সি লোডের দোকান ছিল না । সময়টা বোধ হয় অনুমান করতে পারছেন । মাত্র ssc পাশ করে কলেজে ওঠার পর ছেলেমেয়েদের ভেতর যেন valobasar আবেগ বেয়ে বেয়ে ঝুলে ঝুলে পড়ে এমন এক পরিস্তিতি বিরাজ করে , যার এক প্রতিফলন হচ্ছিল গাইবান্ধা সরকারি কলেজের সেই আড্ডারত ছেলেগুলার মাঝে । যাহোক নতুন Mobile আর সেই মোবাইলের ভেতর যদি ইচ্ছে করলেই নারী কন্ঠ শোনা যায় তাহলে তো খুবই ভাল । বন্ধুরা সবাই ফাজলামি করতে করতে ভিকারুন্নেসার পপি নামের একটা মেয়ের সাথে ফাজলামি টাইপের মিস কল নামক জিনিস শুরু হল ।


সেই Misscall দিয়ে বিরক্ত করার অধ্যায় শেষ হল তাদের মোবাইল প্রেমের ভেতর দিয়ে । মেয়েটা মাত্র ক্লাস এইটে পড়ে আর প্রশান্ত পড়ে ইন্টার মিডিয়েট...সে হিসেবে তাদের future plan ও তারা শুরু করে দিল । পপি ssc পাশ করল আর এই সময়ের ভেতর প্রশান্ত বিভিন্ন যায়গায় ইঞ্জিনিয়ারিং এর এ্যডমিশন দিতে লাগল ।


ছেলেটা তিন মাস Coaching করল ঢাকায় এসে,তবে কাজ যেটা বেশি করত সেটা হল জিয়া উদ্যান , আশুলিয়া বা ধানমন্ডিলেকের পাশে বাদাম দিয়ে আইসক্রিম খাওয়া আর লাল-নীল স্বপ্ন দেখা ।
 Kharap কাজ আর ফাজলামি=ফাউলামি , করার কোন সীমাছিল না , তাদেরসংসারের জন্য টাকা জমানো...ব্যাংক একাউন্টের নমিনি বানানো
মাঝে মাঝে furniture এর দোকানে গিয়েও বিভিন্ন জিনিস দাম করত তাদের সংসারের জন্য... পপি আবার মাঝে মাঝে প্লাস্টিকের বক্সে করে অখাদ্য টাইপের বিভিন্ন রেসিপি বানিয়ে নিয়ে আসত প্রশান্তকে খাওয়ানোর জন্য ।

প্রশান্ত চান্স পেল খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় তবে ঢাকা ছেড়ে যাওয়া মানে পপিকে ছেড়ে যাওয়া, এজন্য আর খুলনা গেল না...একইভাবে হাজী দানেশ ... পাবনাবিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কোনটাতেই গেল না প্রশান্ত । সে ঢাকাতেই থাকবে ।পপি আর প্রশান্ত...They are made for each other …প্রশান্ত অবশেষে এল তিতুমির কলেজে ...


ডাবল গোল্ডেন ৫ পাওয়া ছেলে প্রশান্ত ... চরম ব্রিলিয়্যন্ট... যাহোক পপিকে ৩ মাস প্রশান্ত নিজে গিয়েই এ্যডমিশনের জন্য পড়ালো । অবশেষে পপিকে ঢাকা মেডিকেলে চান্স পাইয়ে তবে ছাড়ল ।


পরের কথাগুলা খুব গুছিয়ে বলতে পারব না ... মেডিকেলে পড়া মেয়ের সাথে নাকি প্রশান্তর স্ট্যটাস মিলে না ... প্রশান্তর ফিউচার ক্যরিয়ার পপির সাথে ঠিক মিলে না ... প্রশান্তর কোন যোগ্যতা নাই popy এর পাশে থাকার ...কোথায় ন্যশনালের ছেলে আর কোথায় মেডিকেলের মেয়ে ...


ঘাটে মাত্র ফেরি এসে থামল আর প্রশান্ত হাসি মুখে একটা সিগারেট ধরিয়ে আমাকে বলল -“আপনি কেন টানা ৩৬ ঘন্টা journey করলেন ?তাওএভাবে.”
প্রশান্তর শান্ত মুখের দিকে তাকিয়ে আর বললাম না কেন আমি না খেয়ে ৩৬ ঘন্টা টানা journey করলাম ...।


তবে প্রশান্ত অন্যরকম একটা জিনিস প্রমাণ করেছে যে জীবণ এতটাই বড় যা কিছুতেই নষ্ট হয় না...ছোট বেলায় পড়েছিলাম “শক্তিরবিনাশ বা শেষ নেই রুপান্তর আছে মাত্র” ।

আজ সেই প্রশান্ত খুব ভাল আছে ... প্রশান্ত ছেলেটাকে আমি চিনি না , আর কোনদিন সামনেও পাব না , খুলনা আসার পথে ছেলেটা আমার পাশের সিটে বসে এসেছিল ।


দুঃবিলাসি বোকা গুলাকে কানে চড় দিয়ে দেখাতে ইচ্ছা করে দেখ তোরা দেখ ...এটাই জীবণ...

Share:

বাংলালিংকে 30 টাকার বদলে 10 টাকা করে Loan নিন ফ্রিতে !!! ভ্যাট বাবদ ২ টাকা আর কাটবে নাহ !!!

আসসালামু আলাইকুম…..

কি….????🙄🤗🤗🙄বাংলালিংক-এ
Advance টাকা Loan নিলে ভ্যাট বাবোদ ২.০০ টাকা কেটে নেয়???
মানে ৩০ টাকা ধার করলে ২৮ টাকা Main Balance-এ যোগ হয়????
এখন থেকে আর হব্বে না ইনশা-আল্লহ্…!!!

Trick-টি হচ্ছে, আপনাকে ১০ টাকা Advance Tk Loan নিতে হবে।
এতে আপনার কাছ থেকে বাড়তি কোনো Coast নেয়া হবে না।
So, Balance Less Than ১০ টাকা হলে Dial করুন
“*874*10#”
free mb offer
Free Mb offer


নিচের মত একটা মেসেজ আসবে

free mb offer
free mb offer


Now Enjoy, Share;
ব্যাস কাজ শেষ!!!
Full-fill Ur Prayer!!!
Nd Pray 4 me….

আসসালামু-আলাইকুম….!!!
Share:

THE UNTOLD LOVE STORY

THE UNTOLD LOVE STORY
THE UNTOLD LOVE STORY

THE UNTOLD LOVE STORY

I was a kid who loathe perusing and concentrate in school life. Despite everything I recall that my companions in the school use to sit tight for the library time frame and I use to bunk it. At some point something odd or unforeseen happens which thoroughly alters an incredible course.

I was a kid who abhor perusing and concentrate in school life. Despite everything I recollect that my companions in the school use to hang tight for the library time frame and I use to bunk it. I don't have the foggiest idea why however I observed books to be extremely exhausting and time squandering. there was a young lady in my class her name was divya. what to state about that young lady she was topper of our class and she was amazing, stunning and what to state about that hypnotizing excellence.

each one in the class constantly attempted to awe her. be that as it may, I was diverse for this situation since I was timid and dependably wavered to converse with young ladies .But because of my physic I was wear of my class so every utilization to call me as bhaii. as I loathe books so I was bad in studies. one day in our amusements period Divya came to me(i was stunned and shuddering not ready to absolute a word) she revealed to me that some young men of different class were not enabling them to play and they were prodding her.. I thought why she came to me? she could have gone to the educator? don't think about these inquiries. I went their and I helped her in light of the fact that no body use to disturb me. from that day she turned into my great companion and I began preferring her.

we both use to converse with one another at whatever point we get time. gradually I went gaga for her yet … never attempted to express this to her. I advised about this to my dearest companion. she was my sister she recommended that I don't have to express my inclination to her somewhat I should made her to feel equivalent to I feel for her. she revealed to me that I ought to began loving everything what she prefers and I ought to do that thing which satisfies her. from that day I have begun doing what my sister has instructed me to do. from that day she was my point

Presently I have begun following her. from school to her home. what a chaotic course it was she use to travel by means of a bustling business sector where I found that she use to went to a library in the market each day. A bustling business sector loaded with individuals and library I detest both of these… I use to go to showcase very seldom my mother or sister use to bring garments or different things for me since I despise advertise. in any case, for my adoration I need to do this and in light of the fact that my sister use to state that "if u cherish her than don't express your sentiments make her to state what you need to hear and cherish the things which she adores" . that is intimate romance .

I believed that showcase stays occupied for just a single or multi day's nevertheless I wasn't right it was dependably a bustling business sector brimming with crowd of individuals. gracious my god however gradually I was adjusted to it. what's more, second thing was library again it was a kind of prison for me yet when I pursued her I saw that she use to take one book every day with her from that library. when I endeavored to see it was a novel of about in excess of 4000 pages I presume. I went to that library when she left and began looking through that novel. I was doing this out of the blue so it took four hour for me to look through that novel. when I discovered it I was so upbeat. without precedent for my life I was upbeat to see a book . be that as it may, when I opened it goodness how exhausting it was how might she perused this.

However, just for her I began perusing that novel. be that as it may, I never informed to her regarding this at whatever point we use to converse with one another I use to ask what she enjoys and what she doesn't care for yet she never educated me concerning her propensity for perusing novel. I additionally came to realize that she prefers studious young men and who are great in nature. I adore her such a great amount of that from that day I have begun perusing textbooks, and endeavored to lose my wear type picture and ended up affable and quiet. no body could comprehend why I was changed.

Presently talk about that novel I think for me that it was so hard to begin understanding it yet gradually I began checking out it and you realize what I thought that it was extremely fascinating.

One day when I was following her. in that bustling business sector I found that when she left library their was a gigantic surge because of some political rally a few people were prodding and contacting her and due boisterous commotion of speaker and groups nobody was their to support her. she began crying than I kept running towards her and spare her from those beasts. she embraced me and began crying I advised her kindly don't cry. I will take you to the home and afterward we move towards her home however because of this colossal group the novel in my grasp and in her grasp tumbled down when I endeavored to lift it up I was fruitless she revealed to me we can pick it after this rally disappears from that place we hold up till that rally closes and what we saw… .. novel was not their. she let me know ohh s**t I need that novel it was earnest. she said we ought to return to that library they have another duplicate of this novel and I said that I took that duplicate from their and it additionally tumbled down with your one… ..

gracious my god what to state she said it's alright what would we be able to do. and afterward I drop her to her home and she welcomed me for supper yet I told that my mother would hang tight for me I have not educated her likewise and than she again embraced me.. goodness I cherished that

on the following day I went to the library they put punishment charge on me of around 1000 rupees which was immense sum for me. I asked them from where I could get this book they disclosed to me that I should arrange it structure other state since it was unthinkable that I could get that book in that state. so I requested and just I realize that what number of untruths I need to make to my folks to arrange that book. I went to her on the third day of that occurrence.

she was sitting with her companions I called her and she came I told that I have an astonishment for her she was so energized however she ceased me and said first I need to state something. I thought ohhh what will she say … my heart beat began thumping quicker. She said you comprehend what I found that novel.. gracious my god I was stunned I said where do you discovered it. She said in the web and my uncle downloaded it for me. furthermore, I said the amount they charged you for that lost book. she gave me a stunning answer no charge I said why. she disclosed to me that library was her uncles and can to think about you were charged 1000 rupees for that book and she gave me my thousand rupees to me I said "what is this" she said please take this since that was not your slip-up I recounted the entire story to my uncle and restored your cash. I solicited her how much part from that novel she had perused she said that she don't peruse that novel it was her mother who wanted to peruse novel and for her she use to bring that novel consistently from the library in light of the fact that toward the beginning of the day her uncle used to take that novel to the library with the goal that other could peruse it and after school she use to take it to the home… I think god was trying my perseverance control. she all of a sudden asked what is the astonishment. I said hold up I will give you in your birthday she said alright I will pause.

Following multi day she had her birthday. after those entire occurrence I was so discourage I begun composition a letter recounting entire story how I changed my self for her and composed a sonnet for her. furthermore, I composed this simply because I had perused that novel profoundly and I have figured out how to compose . On her birthday I gave a present to her in which I kept that novel and to notes one contains that letter and other having an exquisite sonnet. also, I send it through one of our normal companion. however, I didn't went to her birthday party. for the following three days I didn't went to class.

On the night of third day I found a package before entryway I opened it. their was a magazine in which I found my story is distributed alongside my sonnet and their were extraordinary remarks of various journalists and distributers. when I lifted it up I found that novel underneath that magazine. I realize who had send it. following couple of minutes my ringer rang I opened the entryway and she was Divya she embraced me and said in crying words she loathe me. why I didn't came in her birthday why I was missing in school. she said that I why I didn't enlightened her regarding this previously and she said

"presently I have perused this entire novel just for you in only two days"..

imagine a scenario in which she don't care for this novel yet for me she had begun loving it and she loves my story and lyric which was distributed in that magazine" she gave that story to her uncle for getting them distributed ... she said you duffer you … .. what's more, finally she said "I LOVE YOU" .

Also, said I began cherishing you when you spared me from those beasts in that bustling business sector. so bustling business sector was where we both begin to look all starry eyed at one another along these lines I turned into an essayist moreover. this is the story how I was changed for that young lady through a novel by means of occupied market… and this was my untold love story:strange however obvious.

__END__
Share:

এলো Google Chrome 72


এলো গুগল ক্রোম ৭২
এলো গুগল ক্রোম ৭২ 
এলো গুগল ক্রোম ৭২
 Chrome Browser রে নতুন আপডেট উন্মুক্ত করেছে Google। ত্রুটি সরানোর পাশাপাশি বেশ কিছু নতুন ফিচার যোগ হয়েছে Chrome ৭২ সংস্করণে। এক্সাটার্নাল স্টোরেজ সমর্থন আনা হয়েছে নতুন সংস্করণের এ্যান্ডয়েড এ্যাপে। ফলে Chrome ব্রাউজারে থেকে মাইক্রোএসডি কার্ড ও ইউএসবি ড্রাইভে ডেটা আদান প্রদান করা যাবে। এছাড়া Chrome সাইটগুলোর জন্য যোগ হয়েছে পিকচার-ইন-পিকচার মোড। আইএএনএস-এর প্রতিবেদনে বলা হয়, ট্যাবলেট মোডে টাচস্ক্রিন ডিভাইসগুলোর জন্য আগের চেয়ে বেশি সহায়ক করা হয়েছে ক্রোম ৭২। আর এ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসের জন্য যোগ করা হয়েছে এ্যাপ শর্টকাট। গুগলের পক্ষ থেকে এক ব্লগ পোস্টে বলা হয়, ‘গ্রাহক এ্যান্ড্রয়েড এ্যাপে কিছুক্ষণ চেপে ধরে রেখে বা Right-Click করে এ্যাপ শর্টকাট বের করতে পারবেন।নতুন আপডেটের মাধ্যমে আরও বেশি Chrome Book ডিভাইসে আনা হয়েছে গুগল এ্যাসিস্টেন্ট ও এ্যান্ড্রয়েড ৯ পাই। Chrome ৭২-এর নতুন ফিচার তালিকায় যোগ হয়েছে Google ড্রাইভ ব্যাকআপ ফিচারও। এর ফলে মাই ড্রাইভ বা মাই কম্পিউটার মেনু অপশনে গুগল ড্রাইভের ব্যাকআপ ফাইল দেখতে পারবেন গ্রাহক। সামনের কয়েক সপ্তাহ ধরে আপডেটটি বিভিন্ন ডিভাইসের জন্য আনা হবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।
Share:

যে গ্রামের মানুষকে বিয়ে করতে চায় না কেউ! কারণ জানলে অবাক হবেন!!

যে গ্রামের মানুষকে বিয়ে করতে চায় না কেউ! কারণ জানলে অবাক হবেন!!
যে গ্রামের মানুষকে বিয়ে করতে চায় না কেউ! কারণ জানলে অবাক হবেন!!

আজব দেশে আজব, আজব এক গ্রাম। গ্রামজুড়ে অনেক শিক্ষিত বিবাহযোগ্য ছেলে মেয়ে আছে। তবে বেশির ভাগেরই বিয়ের পিঁড়িতে বসার সৌভাগ্য হয়নি। বয়স বাড়লেও পাত্র কিংবা পাত্রী জোটে না অনেকের ভাগ্যে। এখানকার ছেলে-মেয়েদের সঙ্গে বিয়ে দিতে চান না বাইরের গ্রামের কেউই।
গ্রামের নাম হচ্ছে চরমেঘনা।
Chormaghna নামের গ্রামটির অবস্থান ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে। নদিয়া জেলার করিমপুরের এক নম্বর ব্লকের হোগলবেড়িয়া পঞ্চায়েতের গ্রামটির তিনপাশ জুড়ে বাংলাদেশ। Chormaghna পূর্ব, পশ্চিম ও দক্ষিণে যথাক্রমে বাংলাদেশের তিন গ্রাম মায়ারামপুর, জামালপুর ও বিল গেরুয়া। গ্রামটির একদিকে শুধু ভারত। ফলে নিরাপত্তার স্বার্থেই Chormaghna গ্রামে বিনা প্রমাণ পত্র ছাড়া কাউকে ঢুকতে বা বের হতে দেয় না ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ(BSF)।
Chormaghna গ্রামে যাওয়া-আসার জন্য নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেওয়া আছে। বাইরের লোকদের বিএসএফ (BSF) কাছে রীতিমতো কৈফিয়ত দিয়েই চরমেঘনা গ্রামে ঢোকার অনুমতি মেলে। প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চরমেঘনা গ্রামে ঢুকতে বা বের হতে গেলে বিএসএফের কাছে ভোটার কার্ড জমা রাখতে হয়।
নিরাপত্তার কড়াকড়ির কারণেই Chormaghna গ্রামে সচরাচর বাইরের কেউ ঢুকতে চান না। গ্রামের বাসিন্দাদের রোগ-সংক্রান্ত কিছু শিথিলতা থাকলেও বিয়ে-থার ব্যাপারে কোনো ছাড় নেই। কোথায়, কী কারণে, কে, কেন গ্রামে ঢুকতে চান তার বিস্তারিত তথ্য বিএসএফের কাছে লিপিবদ্ধ করে তবেই ছাড়পত্র মেলে। যে কারণে বাইরের কাউকে এ গ্রামে মেয়ে দেখা বা ছেলে দেখার জন্য ঢুকতে বা বের হতে গেলে গুচ্ছের হ্যাপা পোহাতেই হয়। আর এই কারণেই বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের এই Chormaghna গ্রামে বাইরের কেউই তাঁদের ছেলেমেয়ের বিয়ে দিতে চান না।
Chormaghna গ্রামে মোট জনসংখ্যা প্রায় 850, এর মধ্যে ভোটার 545 জন। বাসিন্দাদের মধ্যে একটি বড় অংশই শিক্ষিত এবং বিবাহযোগ্য যুবক-যুবতী। কিন্তু নিরাপত্তার কড়াকড়ির কারণে অনেকে আজও অবিবাহিত হয়ে রয়ে গেছেন ।
Share:

যে কারনে Hotel এ দেওয়া সাবান জীবনেও হাত দিবেননা! আর দিলে যা হবে জানলে আতকে উঠবেন

যে কারনে Hotel এ দেওয়া সাবান জীবনেও হাত দিবেননা! আর দিলে যা হবে জানলে আতকে উঠবেন


যে কারনে Hotel এ দেওয়া সাবান জীবনেও হাত দিবেননা – কোথাও ঘুরতে গেলে হোটেল থেকে কি সুগন্ধী সাবান কিংবা বাথরুমের অন্যান্য জিনিস নিয়ে আসার অভ্যেস আছে আপনার?  আজই আপনি এ ধরনের অভ্যেস গুলো বদলে ফেলার চেষ্টা করুন৷
আপনি কি জানেন আপনার ব্যবহৃত সাবানই পৃথিবীর একাধিক মানুষের প্রাণ বাঁচাতে সাহায্য করছে! অবাক লাগছে? কিন্তু একটি বিশেষ সমীক্ষায় উঠে এসেছে এমনই একটি তথ্য৷ ’Clean the World’ নামক একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এই বিষয়টি নিয়েই কাজ করে৷
WHO-র সমীক্ষায় উঠে এসেছে যে, সারা বিশ্বে ২.৫বিলিয়ন মানুষ পরিষ্কার শৌচালয় ব্যবহার করতে পারেনা৷ প্রতি বছর প্রায় ৫লাখ ২৫হাজার শিশু মারা যায় এই কারণে৷ যাদের প্রত্যেকের বয়সই পাঁচ বছরের নীচে৷ ’Clean the World’ নামক এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি ব্যবহৃত সে সমস্ত সাবান গুলিকে পুনর্ব্যবহার যোগ্য করে আবার নতুন করে তৈরি করে৷
আর তা 115 টি দেশে সেই নতুন সাবান ছড়িয়ে দেওয়া হয়৷ আর সাবানের সেই সংখ্যাটি প্রায় 40মিলিয়ন৷ তবে শুধু সাবান নয়৷ কন্ডিশনার, শ্যাম্পু সমস্ত কিছুই রয়েছে এই তালিকায়৷
দ্য সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (CDC)-র তরফে জানানো হয়েছে, ডায়রিয়ার ফলে প্রতি বছর যে একাধিক মানুষের মৃত্যু হয়৷ সেই সংখ্যাটি অতি সহজেই 50 শতাংশ কমিয়ে ফেলা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে CDC৷
এরফলে মৃত্যুহারও কমবে অনেকাংশে৷Helton, ডিজনির মতন বিশ্বখ্যাত হোটেলগুলি এই বিশাল কর্মসূচিতে যোগদান করেছে৷ আজ থেকে আপনিও তৈরি হয়ে যান এই উদ্যোগে সামিল হওয়ার জন্য৷ আপনার ছোট প্রয়াস যদি লক্ষ লক্ষ মানুষের প্রাণ বাঁচাতে পারে তাহলে মন্দ কি?

Share:

যখন খুব মন খারাপ হয় তখন কি করা উচিৎ জেনে নিন

যখন খুব মন খারাপ হয় তখন কি করা উচিৎ জেনে নিন
যখন খুব মন খারাপ হয় তখন কি করা উচিৎ জেনে নিন 

আমি জানিনা আপনার মধ্যে কেন এবং কি কারণে এত বিষন্নতা কিংবা শূন্যতা..তবে যদি কখনো মন খারাপ থাকে তাহলে তখন নিজের অস্তিত্থের প্রতি বিশ্বাস রাখাটা খুব এই important যদি ও জানি তখন এই কাজটাও অনেক কঠিন হয়ে পড়ে.মানুষের জীবনে আসলেই শূন্যতা বলে কিছু নেই..আছে চারদিকে সুখ আর মহা সুখ কিন্তূ যদি তা আমরা অর্জন করতে পারি কিংবা জানি..আপনার যখন মন খারাপ হবে তখন

br /> কিছুখনের জন্য বাহিরে যান..নীলাকাশের দিকে নিখুত দৃষ্টিতে একবার তাকিয়ে দেখুন.কখনো না কোনো কারণে আপনার ভালো লাগতে পারে.অথবা সুযোগ করে আপনার প্রিয় কোনো বন্ধু কিংবা বান্ধবীকে কল করুন.মনের কষ্ট গুলো শেয়ার করতে না পারলেও বার বার হাসতে চেষ্টা করুন.বাবা-মা পাশে থাকলে উনাদের সাথেও আপনি বিভিন্ন টপিক নিয়ে আলাপ করে আপনার মনের বিষন্নতা কিছুটা কমাতে পারবেন..আর যদি সম্ভব হয় তাহলে আশে পাশের ভাল কোন বন্ধুকে নিয়ে কোনো park কিংবা নদী মাতৃক-জায়গায় বসে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে পারেন...মনে রাখবেন মন খরাপ থেকে সংঘ দোষে কোনো খারাপ কাজের দিকে নিজেকে ঢেলে দেওয়া কিন্তূ মোটেও বুদ্ধিমানের কাজ নয়..ধন্যবাদ
Share:

ভালবাসা এসএমএস ২০১৯


ভালবাসা এসএমএস ২০১৯
ভালবাসা এসএমএস ২০১৯
1.Nirobota Noy, Govirota Ke Bissash Koro. Chok Diye Noy, Mon Diye Tumar Priyo Jon Ke Bhalobasho. Asha Diye Noy, Bhalobasha Diye Bhalobasha Joy Korol

2.Kemne Je Bojai Kotota Valobasi Tomake. Hoyto Tumi Sobi Bujo. Buje O Na Bujar Ban Koro, Naki Asole O Bujo Na. Naki Amake Valobaso Na...

3.""Ami Suker Bisti""""dukhey Jorejai---!!""ami Sopner Pujari""""kolponate Hariye Jay--!!""Ami Sundar Prodip""""Sokale Nive Jay---!!""Ami Emon 1jon Manus""""Jake Sobay Vole Jay---!!

4.Mone Pore 2my,vule Gecoki Amy? Valobasi 2my,2mi Ki Baso Amy?chai Sudu 2my,2mi Ki Chao Amy?amr Hridoye Sudu 2mi,2mr Hridoye Ki Aci Ami???




5. Somoy2 One1 Hoy.Godholir Mo2 Noy.Chad2 One1 Hoy,Purnimar Moto Noy.Ful2 One1 Hoy,Golaper Mo2 Noy.Bondhu2 One1 Hoy,2mar Mo2 Noy,I Hope Your Longivity.

6.Debo Tomai Lal Golap, Sopne Giye Korbo Alap.Bolbo Khule Amar Kotha, Ache Joto Moner Betha.Bolbo Tomay Valobasi, Thakbo Dujon PashaPa

7.Tomi Ki Jano Akas Kno Kaday ,tomr Mon Kharap Bolay,.. Tomi Ki Jano Ful Kno Fotay Tomk Dabo Bolay.. Tomi Ki Jano Tomi Ato Valo Kno,tomi Amr Valobasha Bolay...

.
Valobashar SMS Collection
8.Valobese Tomay Debo Golap Rojonigondha,Sobsomoy Mone Korbo Sokal Bikal Sondha. TaraTari Kache Ese Pase Ese Boso, Besi Na AmayEktu Valobaso.

9.Hridoy Amar Pokai Dhora,Tomai Sara Ami Badhon Hara.Tumi Jodi Chaw Ami Jibon Taw DitePari,Tobuo Akber Bole Jaw Valobasi

10.Lal Ful,paata Sobuj. Mon Keno Ato Abujh. Kothakom,kaaj Beshi. Mon Chay tomar Kache Ashi.Megh Chay Bristi, Chaad Chay Nishi,Mon Bole Ami2may Anek Bhalobashi.

Share:

ঈদ মোবারক শুভেচ্ছা বার্তা


  ঈদ মোবারক শুভেচ্ছা বার্তা

 
০১। আমি তোমাকে একটি খুব খুশি এবং শান্তিপূর্ণ ঈদের শুভেচ্ছা জানাই। আল্লাহ তোমাদের মঙ্গল ও কল্যাণ দান করুণ, তোমাদের পাপসমূহ ক্ষমা করে দিন এবং পৃথিবীর সব লোকের দুঃখকে প্রশমিত করেন। Eid Mubarok।
০২। "ঈদ-উল-আযহামুবারক",
আল্লাহ তোমার এবং তোমাদের পরিবারের উপর অগণিত কল্যাণ দান করুণ। তোমার প্রার্থনা মধ্যে আমাকে রাখুন।
০৩। ঈদের এই দিনে আপনার জন্য একটি মহান হাসা, হাসা এবং সফলতা কামনা করুন। একটি বিস্ময়কর ঈদ দিন আছে। Eid Mubarok।
০৪। ঈদের দিনগুলো লক্ষ্য এবং লক্ষ্য অর্জনের উদ্দেশ্যে হয় যা আপনাকে সুখী করে তোলে। আপনি যে আদর্শগুলি অনুধাবন করেন, সেই স্বপ্নটি আপনি সেরা পছন্দ করেন। Eid Mubarok!
০৫। আল্লাহ নতুন বন্ধুদের প্রাচুর্য এবং অন্যান্য সমস্ত প্রার্থনার সঙ্গে আপনার প্রার্থনা কবুল করুন। Eid mobarok।
০৬। জীবনের সব আনন্দ আপনার উপর বর্ষিত হোক। আপনি এবং আপনার পরিবারের সকলের জন্য খুব খুশির ঈদ কামনায়, Eid Mubarok।
০৭। আমি তোমার একটি হাসি এবং সুখ পূর্ণ জীবনের কামনা করছি। শুভ Eid mobarok!!
০৮। কিছু অব্যবহৃত শব্দ হারিয়ে যেতে পারে, কিছু অপ্রচলিত অনুভূতি হারিয়ে যেতে পারে, কিন্তু আপনার মত মানুষ এই দিনে ভুলে যাওয়া যাবে না। Eid Mubarok!
০৯। "উৎসর্গের উত্সব" সম্বন্ধে আন্তরিক শুভেচ্ছা! শুভ ঈদ উল-আযহা!
১০। এই উপলক্ষ্যে আল্লাহ সুখের সাথে আপনার জীবন বর্ষণ করুন, আপনার হৃদয়কে ভালবাসা দিয়ে,আধ্যাত্মিক সঙ্গে আপনার আত্মা, জ্ঞান সঙ্গে আপনার মন, আপনার একটি খুব খুশির Eid Mubarok কামনায়!
১১। এই ঈদ আনন্দ, সুখ, আল্লাহর অসীম আশীর্বাদ দয়া, এবং তাজা ভালোবাসার সঙ্গে সব ভালো কামনায়, Eid Mubarok।
১২। Allahor দোয়া আপনার উপর সবসময় চলমান থাকুক !!! শুভ ঈদ!!!
১৩। আপনি কষ্টের উষ্ণতা দেখতে পাবেন না এবং আপনার বাড়িতে সর্বদা সুখ থাকবে এবং আপনি এই ঈদ দিবস মত অনেক অনেক খুশি মুহুর্ত দেখতে পাবেন। Eid Mubarok।
১৪। যখনই Eid আসে, তখন এটা অনেক সুখ ও স্মৃতি নিয়ে আসে। আমি এই স্মৃতি আপনার জন্য আরো বেশী মূল্যবান  হতে কামনা করি। শুভ Eid দিবস।
১৫।  বিশ্বের সমস্ত লাইটের সঙ্গে, এবং সব শিশুদের সঙ্গে হাসা। আমি আপনার একটি খুব খুশি ঈদ কামনা করছি!
১৬। ঈদের শুভ উপলক্ষ্য আপনাকে শান্তি দিয়ে আশীর্বাদ করবে এবং আপনার হৃদয় ও বাড়ীতে আনন্দ আনবে। Eid Mubarok।
১৭। রাতের আকাশে রৌপ্য রঙের মতো, নতুন চাঁদ উঠেছে, পবিত্র মাস অতিবাহিত হয়েছে, রোযা শেষ হয়ে গেছে, কাল ঈদুল আজহারের মহান ভোজ।Eid Mubarok
১৮। আমার সহজ "Eid Mubarok" উপহারটি আন্তরিকতার সাথে জড়ান, যত্ন সহ বাঁধা এবং সমস্ত দিন নিরাপদ এবং সুখী রাখা একটি প্রার্থনা সঙ্গে সীল! যত্ন নিবেন!
১৯। আশা ও হাসি, উষ্ণতা এবং Eid শুভেচ্ছা, বিশেষ করে তোমাদের জন্য Eid শুভেচ্ছা! তোমার EID এবং তোমার জীবন একটি অংশ হয়ে যায়। ঈদ মোবারক!
২০। Eid-Ul-Azah ও সর্বদা সুখী ও সমৃদ্ধ জীবনের জন্য আল্লাহ আপনাকে ও আপনার প্রিয়দের মঙ্গল করুন।
২১। প্রত্যেকের জন্য বিশেষ দিন আছে আমার বিশেষ দিন যখন আমি আপনাকে Eid Mubarok জানাই।
২২। বর্তমান কালের সুখী ও ধন-সম্পদ আগামীকালের সোনার স্মরণে পরিণত হতে পারে। আপনার অনেক ভালবাসা কামনা,আনন্দ এবং সুখ। ঈদ মোবারক।
Share:

INDEPENDENT BANGLADESH

এই কবিতাটা স্বাধীনতার উপর, 2000 সালে এই কবিতটি একটি magazine  book ছাপা হয় আজ আপনাদের মাঝে এই কবিতাটা উপস্থাপন করছি কেমন হয়েছে জানাবেন কিন্তু....

★INDEPENDENT BANGLADESH
                        -Md.Zahidul Islam.
Opening the writing pad
Having a pen in my hand
I've writing only a name,
Bangladesh my Independent country.
I was born here in this country
I'm successful
My life is successful
Oh mother Bangladesh yours children
Are in the clutch of the hand the demons
Oh poor mother your soil won't be facified
If these ghouls are not driven away.
Share:

মহাপাপী ছোট গল্প

মহাপাপী
মহাপাপী

শাকিল,এই শাকিল,বাবা উঠ,কলেজে যাবি না।

হম.....

কলেজে আজ তোর প্রথম দিন।দেরি হলে স্যার তকে বকা দিবে।যা উঠ, উঠে ফ্রেশ হয়ে নিচে আয় তোর আব্বু তোর জন্য wait করছে।

Maa চলে যাওয়ার কিছুখন পর শাকিল উঠে ফ্রেশ হতে চলে গেল।

ততক্ষনে আমরা শাকিলের পরিচয়টা জেনে নেয়।শাকিল তার বাবা-মায়ের একমাএ সন্তান।তাকে তার বাবা মায়ের চোখের আরাল হতে দয় না।তাদের স্বপ্ন শাকিল বড় হয়ে কিছু একটা হতে পারবে।শাকিলও তাদের মত করেই চলে।সমাজের অন্য  বাচ্চাদের মত বন্ধুদের সাথে মিশতে দেয় না তার বাবা মা।এক কথায় তাদের শিরমনি হচ্ছে শাকিল। চলুন আমরা যেখান থেকে এসেছি সেখানে চলে যাই।

শাকিল শাওয়ার নিয়ে নিচে গিয়ে দেখে তার বাবা মা খাবার টেবিলে বসে আছে।তারপর খাওয়া শেষ হলে তার বাবা মা দুজনই তার সাথে কলেজে যায়।আবার কলেজ শেষে তার বাবা মা নিয়ে আসে।

এভাবে চলতে চলতে তার ইন্টার পরিক্ষা শেষ হল।সে ভাল রেজাল্ট করায় ঢাকা ভাল ইউনিভার্সিটিতে চান্স পায়।সেখানে তার বাবা মা সাথে যাওয়ায় তার ক্লাসমেটরা সবাই তাকে নিয়ে হাসে।তাই তার লজ্জা লাগে তার বাবা মাকে বলে,আব্বু আম্মু তুমরা ত আমার ভাল চাও। তুমরা আমার সাথে আর যেও না আমি যেতে পারব।তুমরা আমার সাথে গেলে সবাই হাসে।সবাই হাসাহাসি করলে আমার লেখা পরার ব্যঘাত ঘটে।সো তুমরা আমার সাথে আর যেও না।"

সে দিনের পর থেকে তারা R যায়না।কিন্তু ছেলের সবরকম দায়িত্ব কর্তব্য থেকে পিছিয়ে নেই।

একদিন শাকিলের মা ছেলেকে ভার্সিটি পাঠিয়ে টিভি দেখছে আার তার বাবা খবরের কাগজ পড়ছে।হঠাৎ একজায়গায় তার চোখ আটকে যায়।সে শাকিলের মা কে ডেকে এনে একরাশ আশা নিয়ে পড়তে থাকে ।তারপর তারা সেটা বিশ্বাস না করে ভার্সিটি যাবেন বলে উঠে দাড়ায় এমন সময় টিভিতে ঐ একই সংবাদ।ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের ছাএ শাকিল চৌধুরী আফিম ও গাজায় আসক্ত হয়ে ধরা পরেছে।এবং তার সাথে গাজাও পাওয়া গেছে।একথা শুনে তার মা সেখানেই অচেতন হয়ে পরে।তাদের বাড়ির কাজের বোয়া তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।আর তর বাবা ভার্সিটির প্রিন্সিপালদের কাছে যায়।সেখানে তরাও শাকিলের বাবাকে অপমান করেছে।পাড়া প্রতিবেশী লোক সবাই তার বাবাকে ঘৃনা ও অপমান করে ।তার মায়ের হুশ ফিরলে তারা তাদের ছেলেকে দেখতে জেলে যায়।

সেখানে Sakil মাথা নিচু করে হাটু ভর দিয়ে নিচে বসে তার মা বাবার কাছে ক্ষমা চায়।

বাবাঃক্ষমার অযোগ্য তুমি।তুমাকে যে আশা নিয়ে মানুষ করেছি তুমি তা মাটিচাপা দিয়েছ।আজ থেকে আমাদের কোন সন্তান নাই।তুমি #মহাপাপী,তুমি অপরাধী,তুমার কোন ক্ষমা হতে পারে না।

বলে কাঁদতে কাঁদতে তার মাকে নিয়ে সেই জায়গা  থেকে চলে যায়।

শাকিলও কাদছে। তার বাবার কথাগুলো তার কানে বাজছে এখনো।তুমি # মহাপাপী,তুমি অপরাধী,তুমার কোন ক্ষমা হতে পারে না।
Share:

গরীরের বাসাবাড়ী

গরীরের বাসাবাড়ী
গরীরের বাসাবাড়ী

গরীরের বাসাবাড়ী

আমার যাতাযাত ট্রেনে। কুমিল্লা থেকে নাংগলকোট ৩৭ কিলোমিটার। ট্রেনে আসা যাওয়ার সময় দেখি কত রংঙ্গের মানুষ।কত পেশার মানুষ আমাদের এই ভবনে। কত জন কত কিছু না করে শুধু বেঁচে থাকার জন্য।সকাল থেকে মধ্য রাত। একটানা কাজ। আমাদের হাত,  পা,  চোখ আছে বলে তো আমরা কাজ করি। যাদের চোখ নাই।  হাত নাই।  পা নাই। তাদের কথা একবার চিন্তা করুন।
Share:

আমাদের ভালোবাসার গল্প


আমাদের ভালোবাসার গল্প
আমাদের ভালোবাসার গল্প
২০১০ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি আমাদের প্রথম দেখা, আমার বাবার অফিস icddr,b-এর একটা বনভোজনে।  ওর খালামনিও ঐ অফিসে চাকরি করতো, সেই সুবাদে ওরও যাওয়া হয়েছিল। তারপরই আমাদের গল্প শুরু...
আমি জয়, আর আমার ভালোবাসার মানুষটার নাম পুষ্প। আমাদের সম্পর্কটা যখন শুরু হয় তখন পুষ্প পড়তো ইন্টারমিডিয়েট ফার্স্ট ইয়ারে আর আমি অনার্স ফাইনাল দিয়ে রেজাল্ট এর অপেক্ষায়। তখন icddr,b -এর মিরপুর অফিসে জয়েন করি। আমার বাসা মহাখালী থেকে মিরপুর যেয়ে প্রতিদিন অফিস করতাম। আর ওর বাসা মিরপুর হওয়াতে প্রায়ই অফিস শেষে আমাদের দেখা হতো।

পুষ্পকে যতই দেখতাম ততই অবাক হতাম। অনার্স ফাইনাল দিলেও আমি দেখতে অনেক শুকনা ছিলাম। সবচেয়ে বড় ব্যাপার- আমার উচ্চতা মাত্র ৫' ১’ আর ওরও উচ্চতা ৫' ১’ যা একটা মেয়ের জন্য যথেষ্ট। তারপরও আমার পাশাপাশি ঘুরতে ও কখনও ইতস্তত বোধ করতো না। কখনও যদি এ ব্যাপারটা বলতাম, তখন ও আমাকে সান্ত্বনা দিয়ে বলতো ‘তুমি দেখতে যেমনই হওনা কেন এর জন্য তো তুমি দায়ী নও। সৃষ্টিকর্তা আমাদের যেভাবে তৈরি করেছেন আমরা তেমনই। এটা নিয়ে একদম মন খারাপ করবে না।’

পুষ্প দেখতে পরীর মতো সুন্দরী তা কিন্তু নয়। গায়ের রং সামান্য একটু শ্যামলা কিন্তু খুব মিষ্টি মায়াবী একটা চেহারা। সে অবশ্যই আমার চেয়ে ভালো-সুদর্শন একটা বয়ফ্রেন্ড পাওয়ার যোগ্য। তবু কেন জানি না মেয়েটা আমাকে পাগলের মতো ভালোবাসতো। যেদিন বাসা থেকে খাবার না নিয়ে যেতাম সেদিন নিজ হাতে রান্না করা খাবার অফিসে দিয়ে যেত।
আমাদের মধ্যে শুধু ভালোবাসাই ছিল তা নয়, ঝগড়াও হতো অনেক। বেশির ভাগ ঝগড়ার মূল কারণ ছিল- সময় দিতে না পারা। প্রায়ই আমরা অফিস শেষে মিরপুর-১২ সাগুফতা এলাকায় ঘুরতে যেতাম। কাজের চাপ থাকলে মাঝে মাঝে সময় দিতে পারতাম না। তখন ঝগড়া হতো। ওর রাগগুলো ছিল অভিমান আর ভালোবাসা মেশানো। ধীরে ধীরে রাগগুলো অভিমান হয়ে যেত। বড় ঝগড়া হলে ওর সবচেয়ে কাছের বান্ধবী হিনো আমাদের মিলিয়ে দিতো। তাছাড়া আমি তো দেখতে সুদর্শন নই, অন্যভাবে নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে। তাই অফিসে বসদের সুনজরে পড়ার জন্য মাঝে মাঝে অফিস আওয়ারের পরও কম্পিউটারে কাজ করতাম।
আমি পুষ্পকে বুঝিয়ে বলতাম- ‘দেখো, আমার সাথে যারা চাকরিতে জয়েন করেছেন, ওদের চেয়ে আমি বেশি কাজ করি বলেই তো ওদের চেয়ে ভালো পজিশনে আছি। তুমি কি চাও না আমি আরও বেটার পজিশনে যাই?’
ও ছিল আমার অনুপ্রেরণা।
তবে পুষ্পর ভালোবাসার কাছে আমার ভালোবাসা খুবই নগণ্য। ওর এইচএসসি রেজাল্ট হবার পর শুধু আমার কথা ভেবে ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ভর্তি হয়নি। কারণ আমি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে পাস করা একটা ছেলে। পুষ্প ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ভর্তি হলে ওর পরিবার কোনোভাবেই আমাকে মেনে নেবেন না। তাই ও ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তি হলো না। অনেক বুঝিয়েছিলাম কিন্তু শুনল না। ও ভর্তি হলো মিরপুরের Bangladesh University of Health Science -এর BSC in Laboratory Science. ওর ক্লাসের ছেলেগুলো দেখতে আমার চেয়ে সুন্দর আর স্মার্ট। তবু কখনও ওদের সাথে আমাকে তুলনা করতো না। বরং সবার সাথে আমাকে ওর বয়ফ্রেন্ড হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিল।
২০১১ সালের ডিসেম্বরে হঠাৎ আমার বাবা মারা গেলেন। তখনও আমাকে অনেক সাহস আর সান্ত্বনা দিয়েছিল। ২০১২ এর ডিসেম্বরে চাকরিতে একটা প্রমোশন পেয়ে আমি icddr,b -এর Head Office মহাখালীতে চলে এলাম। সপ্তাহে ২ দিন ছুটি হওয়াতে শুক্রবার-শনিবার দেখা হতো আমাদের। অফিসে কাজের প্রয়োজনে আমি Diploma in Computer Science -এ ভর্তি হলাম। শুক্রবার সারাদিন ক্লাস। সারাদিন দেখা হবে না- এই ভেবে পুষ্পও আমার সাথে ভর্তি হলো।
সময়গুলো খুব ভালোই কাটছিল। ওর 3rd Year শেষ, এবার Internee. সেই সাথে আমাদের Diploma ও প্রায় শেষ। একদিন ও বললো- ‘বাসায় বিয়ের জন্য পাত্র খুঁজছে’।
আমাদের মধ্যে সবকিছু ঠিক থাকলেও বাধ সাধলো দুজনার পরিবার। পুষ্পর বাবা দেশের বাইরে আর ছোট এক ভাই এক বোন নিয়ে মা থাকেন গ্রামে । ঢাকায় অভিভাবক বলতে খালামনিই সব। ক্লাস সেভেন থেকে উনার কাছে থেকেই পড়াশোনা করেছে পুষ্প। খালামনিকে ও খুব ভয় পায়, তাই আমাদের সম্পর্কের কথা তাকে বলতেও পারছে না। বললাম ‘ভয় পেয়ো না, আমি আছি তো’।
২০১৬ জানুয়ারিতে আরেকটা প্রমোশন হলো, যা ছিল আমার জন্য বড় প্লাস পয়েন্ট।
পুষ্প’র খালামনিও icddr,b তে চাকরি করেন, একদিন সাহস নিয়ে দেখা করলাম। আমাদের সম্পর্কের বিষয়টা পাশ কাটিয়ে অন্যভাবে বললাম যে, আমি তার ভাগ্নিকে পছন্দ করি এবং বিয়ে করতে চাই।
উনি আমার পরিবার সম্পর্কে অনেক কিছু জিজ্ঞেস করলেন। পুষ্পকে কিভাবে চিনি, তা জিজ্ঞেস করার পর বললাম, ‘পিকনিকে দেখেছিলাম।’ সেদিন উনি কোনো সিদ্ধান্ত না জানিয়ে পরে জানাবেন বললেন।
খালামনির পর এবার আমার নিজ পরিবার। লজ্জা-শরমের মাথা খেয়ে আম্মুকে বললাম। পুষ্প আমার ছোট বোনের সাথে একবার আমাদের বাসায় এসেছিল। তখন আম্মু ওকে দেখেছিল। যতটুকু বুঝলাম আম্মু রাজি নন। আম্মু আপুদের আর বড় দুলাভাইকে জানালো। তারাও রাজি নন। আমার ছোট ভাইয়েরও পুষ্পকে পছন্দ না।
আমার পরিবার যে সমস্যাগুলো দেখালো, সেগুলো এমন ছিল- ‘মেয়ে তো ফর্সা নয়, শ্যামলা গায়ের রং। আমার উচ্চতা কম, তাই বউ অনেক লম্বা হতে হবে । তাছাড়া পড়াশোনা করে সংসার কীভাবে সামলাবে?’
আমি অনেক বুঝালাম- মানুষের গাঁয়ের রং বা উচ্চতাই সবকিছু নয়, মনটাই আসল।
অন্যদিকে পুষ্প’র পরিবারেও আমাকে নিয়ে অনেক নেতিবাচক আলোচনা হচ্ছিল। যেমন:- ‘ছেলে অসুন্দর, খাটো আর শুকনা। ভবিষ্যতে বাচ্চাকাচ্চা হলে ওরাও এমন হবে।’
পুষ্প কিছু না বললেও আমাদের সম্পর্কের বিষয়টা তারা বুঝতে পেরেছিল। পুষ্প’র বাবা আর মামা বিদেশ থেকে দেশে আসলেন। ওকে অনেক কথা শোনালো- ‘পৃথিবীতে কী ছেলের অভাব পড়েছিল যে এই ছেলেকেই পছন্দ হলো!’ পুষ্প মাথা নিচু করে থাকতো আর নীরবে কান্না করতো।
আমাদের সমাজে সৌন্দর্য্যের মূল্য কত বেশি, আমরা দুজনেই তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছিলাম। ‘অসুন্দর’ এর দোহাই দিয়ে সবাই আমাদের এতদিনের সম্পর্কটাকে ভেঙে দিতে চাইছিল। কিন্তু শেষপর্যন্ত ভালোবাসার কাছে সৌন্দর্য্যের পরাজয় হলো, দুই পরিবারই রাজি হলো।
আমার অফিসের কাজের চাপের কথা বলে বিয়ের তারিখ ঠিক করলাম ২৬ ফেব্রুয়ারি, যা ছিল আমাদের প্রথম দেখা হওয়ার ঐতিহাসিক দিন। বিষয়টা শুধু পুষ্প আর আমিই জানতাম। বাসর রাতে ব্যাপারটা আমরা দুজনেই খুব উপভোগ করলাম, আমাদের প্রথম দেখা আর বিয়ে একই দিনে।
এই ছিল আমাদের ভালোবাসার গল্প। আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ আমাদের বিয়ের ২ বছর, আর ভালোবাসার নয় বছর পূর্ণ হবে। আরও একটি সুসংবাদ- আমাদের ঘরে নতুন অতিথি এসেছে। সবাই দোয়া করবেন- আমাদের বাবুটার  জন্য ।
গল্পটি পড়ার জন্য অশেষ ধন্যবাদ।
❤ Md. Zahirul Islam

Share:

আমি খারাপ

আমি খারাপ -
ভিনদেশী - আপন মন
আমিকি কখনোই মানুষ হবোনা
কোনদিন কি জাগবে আমার বিবেক?
 আমি এমন কেন,
 আমি তেমন কেন আমি খারাপ কেন ,
আমি অবুঝ কেন আমি ভন্ড কেন ,
আমি প্রতারক কেন আমি উল্টো কেন ,
আমি বিভৎস কেন
 আমি কষ্ট দেই নষ্ট করি মন
আমি আমি আঘাত দিয়ে ভেঙে দেই জীবন
 আমি ঝড় হয়ে যাই পাল্টে ফেলি সব
 আমি ধ্বংসী বকি পাগলের প্রলাপ
 আমি বিষাক্ত,
আমি সাপ
আমি কঠিন নাইতো বিষাধ হা হা হা এসবই
আমি হ্যাঁ আমি আমার কথায় না লোকে বলে তুমিও বলো ...
Share:

বললাম তো ভালবাসি !!

 বললাম তো ভালবাসি !!
বললাম তো ভালবাসি !!

 বললাম তো ভালবাসি !!

-রিমি দেখ! ওই ছেলেটা বারবার তোর দিকে তাকাচ্ছে
-কোন ছেলেটা?
-আমাদের পিছনে
-ও ওই ছেলেটা? ও আসলে তোর দিকে তাকাচ্ছে
-মোটেই আমার দিকে না, তোর দিকে
-আমি কালও লক্ষ্য করেছি। ও তোর দিকেই তাকিয়ে ছিল
-আমার দিকে না। আমাদের দিকে
-মানে?
-আমরা দুজন তো একসাথে থাকি। কার দিকে তাকায় বুঝবো কি করে?
-তাই তো! তাহলে এখনই পরীক্ষাটা করে ফেলি। একজন ঐ পাশে চলে যাই
-গুড আইডিয়া! আমিই যাচ্ছি
ইরা আর রিমি। দুজন সেই হাইস্কুল থেকে একসাথে আছে। খুব ভাল বন্ধু তারা। এরপর একই কলেজে; কাকতালীয়ভাবে হলেও তারা এখন একই বিশ্ববিদ্যালয়ে এপ্লাইড কেমিস্ট্রি নিয়ে পড়ছে। দুষ্টর শিরমনি যেন ওরা দুজন। সারাক্ষণ একজন আর একজনের পিছে লেগে থাকবেই।

আবীর। সাদামাটা ছেলে। অনেকটা একাই থাকে। অল্প কয়েকজন বন্ধু আছে তার। তাদের সাথে ক্যাম্পাসের সময়টুকু কাটায়। বাকি সময় নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত থাকে। পড়াশুনার বইয়ের জগৎ আর ফেসবুকের ভার্চুয়াল জগতেই সীমাবদ্ধ সে। এভাবে একাকিত্বের মধ্যে কাটিয়েই এবছর একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইকোলজি বিভাগে ভর্তি হতে পেরেছে সে। মেয়েলি ব্যাপার তার মাথায় আসে না। একটা প্রেমও জোটেনি কপালে। মেয়েদের দিকে ভালো করে তাকায়ই না, প্রেম জুটবে কি করে?

ভার্সিটিতে কিছু দিন পার করতেই একটা মেয়েকে মনে ধরল তার। চেহারা যে খুব আহামরি, তা কিন্তু না। বেশ সুন্দর করে হাসতে পারে মেয়েটা। আবীরের মনে হচ্ছে এই হাসির জন্য সে সব কিছু করতে প্রস্তুত। বেশ বন্ধুসুলভ মেয়েটা। সারাক্ষণ বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেয় আর হাসি ঠাট্টায় মেতে থাকে। এ ধরনের মেয়েদের সাধারনত একাধিক বয়ফ্রেন্ড থাকে। কসমেটিকস বদলানোর মত বয়ফ্রেন্ড চেঞ্জ করে এরা। খোজ নিয়ে আবীর জানতে পারল মেয়েটার নাম রিমি। এপ্লাইড কেমেস্ট্রি, ফার্স্ট ইয়ারে পড়ে। যতটুকু জানা যায়, এখনও প্রেম করেনি ও। একটু যেন আশার আলো দেখতে পায় আবীর।
কিন্তু ম্যানেজ করবে কি করে?
এসব ব্যাপারে তো একেবারেই আনারি ও।
তাই ওর দিকে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না আবীরের।

Whats Appএ মেসেজ আসলো। ইরা পাঠিয়েছে। Whats App এর ভাল একটা সুবিধা আছে। ওয়ারলেস ফোনের মত কাজ করা যায়। মেসেজটা পড়া দরকার।
-কি রে, কিছু বুঝলি?
-বুঝবো কি করে? গাধাটা বোধহয় টের পেয়ে গেছে। এখন কোন দিকেই তাকাচ্ছে না। স্ট্যাচু হয়ে আছে।
-হুম তাই তো দেখছি। আবার মাঝে মাঝে দু’দিকেই তাকাচ্ছে।
-ও যে কাকে ফলো করে তাই তো বুঝতে পারছি না। ট্যারা নয় তো?
-এই সেরেছে? তাহলে ও আমার দিকে না, তোর দিকে তাকাচ্ছিল!
-একদম বদমায়েশী করবি না। ধুর ছাই! স্যার আসার আর সময় পেল না। চল ক্লাসে যাই।
-চল যাই।
***

প্রায় দু’সপ্তাহ হয়ে গেল। ক্লাস শেষে বারান্দায় এলেই ছেলেটাকে দেখা যায়। আগের মতই চুরি করে ওদের দিকে তাকায় মাঝে মাঝে। কিন্তু কোনদিন কাছে এসে কিছু বলে না। আর গেট-আপের কি শ্রী! ঢিলে জামা, ঢোলা প্যান্ট, মাথায় তেল দিয়েছে প্রায় আধা লিটার। মুখে আবার পাউডারও মেখেছে দেখছি...। দুই বান্ধবী এভাবে আবীরকে নিয়ে মজা করে আর হাসাহাসি করে, যা হয়ত আবীর বুঝতেও পারে না। সে শুধু মুগ্ধ নয়নে রিমির হৃদয়ে ঝড় তোলা হাসির দিকে তাকিয়ে থাকে।

নাহ্ এমন সুহাসিনি মেয়েকে কিছুতেই হারানো যাবে না। যে কোন মূল্যেই ওকে আমার চাই। কিন্তু কিভাবে? এসব মেয়ে পটানোর কাজ তো আমাকে দিয়ে হবে না। অন্তত ভালবাসার কথাটাতো জানানো দরকার। কি যে করি? ভাবছে আবীর।

এত সময় নেয়া ঠিক হবে না। তখন দেখা যাবে অন্য কেউ নিয়ে নিবে আর আমি তাকিয়েই থাকব। আর কিছু না পারি, আমার ভালবাসার কথাটাতো ওকে জানানো দরকার। তাহলেও অন্তত নিজেকে সান্তনা দিতে পারব যে, আমার যা করার আমি করেছি। এরপরও পাইনি।

সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলল আবীর। আজই জানাবে রিমিকে ওর ভালাবাসার কথা। এজন্য নিশ্চয়ই রিমি ওকে শূলে চড়াবে না।
-রিমি, একটু এদিকে আসবে?
রিমি কিছুটা অপ্রস্তুত হয়ে যায়। ইরা আবার ওকে খোঁচা মেরে বলে-
-হয়ে গেল তোর?
-এত এ্যাডভান্স হতে যাস না। হয়ত তোকে ম্যানেজ করার জন্য আমাকে ডেকেছে।
-যা ভাগ! তোর ডালিম কুমার দাড়িয়ে আছে যা।
-যাচ্ছি।

-হ্যা ভাইয়া, বলুন।
-
-কি ব্যাপার, ডেকেছেন কেন? বলুন।
-আমি তোমাকে প্রথম দেখাতেই ভালবেসে ফেলেছি। আমি জানিনা এটা সম্ভব কিনা। তবুও....
পুরোটা না শুনেই সেখান থেকে চলে আসে রিমি। কেন যেন খুব রাগ হচ্ছে ওর। কি অদ্ভুত ছেলে! কোন প্রিপারেশন নাই, ইমপ্রেস করার চেষ্টা নাই, পরিচিত হওয়ার কথা নাই... হুট করে বলে দিল ভালবাসি। এটা কি “শর্টকাট” নাটক পেয়েছে নাকি? অন্তত বন্ধু হওয়ার প্রস্তাব করতে পারত।
-কিরে এত রাগার কি আছে?
-জানিনা। কিন্তু এটা জানি ওকে এখন আমার চিবিয়ে খেতে ইচ্ছা করছে। আমড়া কাঠের ঢেকি একটা।
-নিজের মনের কথা এভাবে সরাসরি বলার মত সাহসী ছেলে খুব কমই আছে।
-সাহসী না ছাই। গিয়ে দেখ, এখনও হাত পা কাপছে ওর।
-ছেলেটা কিন্তু তোকে সত্যিই ভালবাসে রে।
-বাসুক। তাতে আমার কি? আমি তো বাসি না।
-এমন ভালবাসা হেলায় ফিরিয়ে দিবি?
-হ্যা দেবো। কেউ এসে আমাকে বলবে ‘ভালবাসি’, আর আমিও ‘ভালবাসি’ বলে তার গলায় ঝুলে পড়ব নাকি?
-যা ইচ্ছা কর। তবে এমন কিছু করিস না, যাতে তোর মনে হয় জীবনে বড় কিছু মিস করেছিস।
এখন কেন যেন ইরার কথাগুলোও বিষের মত লাগছে রিমির কাছে। তাই কিছু না বলে বাড়ি চলে আসে রিমি।

রাতে ফেসবুকে লগ ইন করতেই মেসেজ পায় রিমি। পাঠিয়েছে “Innocent Abir”। মেসেজটা ওপেন করে রিমি-
Innocent Abir
হয়ত তোমার সাথে আমার একদমই যায় না
হয়ত তোমার পাশে আমাকে একটুও মানায় না
হয়ত তোমার স্বপ্নের প্রেমিকের সাথে আমার মিল নেই কোন
তবুও তোমার কাছে আমার একটাই চাওয়া
ভালবাসবে আমায়???
2/13, 1:39am . Sent from Mobile
এবার বুঝতে পারে ইনোসেন্ট আবীর কে? নামটা ইনোসেন্ট আবীর না হয়ে মিচকে শয়তান আবীর হলে ভাল হত। ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠিয়েছে আবার! কেন যেন আবারও রেগে যাচ্ছে রিমি। করবো না রিকুয়েস্ট একসেপ্ট। বাসব না ভাল ওকে। আবার কাব্যি ছাড়া হচ্ছে। কবি হয়েছে একজন। কবি তো না, যেন ছড়াকার। কি সাহস! আবার ফ্রেন্ড রিকুয়েস্টও পাঠায়। ওর আইডি এখনই সিন্ধুকে পাঠিয়ে দেব। গো টু ব্লকলিস্ট। একি! আমার চোখে আবার পানি আসলো কখন? ধ্যাত, কিছু ভাল লাগেনা। ফেসবুক লগ আউট করে শুয়ে পড়ে রিমি।

এরপর ক্যাম্পাসে গেলে রিমি বারান্দায় এলে দেখা যেত, দূর থেকে আবীর ওর দিকে করুন দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। কি জানি, হয়ত নিরবে কাঁদছে ছেলেটা। প্রথম প্রথম ওকে দেখলে বারান্দায় আসতো না রিমি। এরপর আবীরকে কষ্ট দিতে ইচ্ছে হলো ওর। তাই সুযোগ পেলেই ওর সামনে ঘোরাফেরা করত। আর দেখত আবীর বেচারা কিভাবে ওর দিকে তাকাচ্ছে। এভাবেই ধীরে ধীরে মায়া পড়ে যায় আবীরের প্রতি। কি জানি, হয়ত ভালই বেসে ফেলেছে আবীরকে।
***

তিন-চার মাস পর।
একদিন মার্কেটে গিয়ে আবীরকে দেখতে পেল রিমি। শার্টের দোকানের সামনে। সম্ভবত ঈদের কেনাকাটা করবে। এগিয়ে গেল রিমি। হুম, যা ভাবছে তাই। সেই ঢিলে শার্ট কেনার প্রস্তুতি নিচ্ছে। দেখে রিমির গা জ্বলে যাচ্ছে যেন। নাহ্ আজ ওকে সাইজ করেই ছাড়বো।
-এই যে ভাইয়া, শার্ট কিনছেন বুঝি?
-হুম। কিন্তু পছন্দ করে উঠতে পারছি না।
-আপনি পারবেনও না। আমার সাথে এদিকে আসুন।
নিয়ে গেল অন্য একটি দোকানে। নামালো বেশ কিছু শার্ট। কোনটার রং নষ্ট হওয়া, কোনটা তালি মারা, কোনটা ছেড়া, কোনটা আবার অধিক উজ্জ্বল রঙের। রিমি বলছে এগুলোর মধ্য থেকে পছন্দ করতে। বুঝলো আবীর, তার কপালে খারাবী আছে। তাই পছন্দ করার ভারটাও রিমির উপর ছেড়ে দিল। রিমি একটা শার্ট, জিন্সের প্যান্ট, টি শার্ট প্যাক করিয়ে আবীরের হতে ধরিয়ে দিলো।
-আমি তো এধরনের শার্ট পরি না।
-এখন থেকে পরবেন।
-জি আচ্ছা।
-আর শুনুন এরকম যদি দেখি আর ঢিলেঢালা পুরোনো আমলের শার্ট প্যান্ট কিনতে, তাহলে আপনাকে আমি ডোবার পানিতে চুবিয়ে মারবো।
-জি আচ্ছা।
-কিসের জি আচ্ছা? এ কোন ধরনের চুল কাটা? বাউল কবি হতে চান নাকি? আমার সাথে আসুন তো।
সেলুনে নিয়ে চুল কাটিয়ে নিয়ে তারপরই ছাড়ল আবীরকে। আবীর তো বিশ্ময়ের ঘোড় কাটিয়েই উঠতে পারছে না।

রাতে ফেসবুকে মেসেজ পেল আবীর। রিমির মেসেজ।
Dreamgirl Rimi
শার্টগুলো পছন্দ হয়েছে তো? পরে দেখেছেন?
6/20, 1:19am
কোন রিপ্লে দিলো না আবীর। ওই দিন ওকে ব্লক করায় রিমির উপর একটু অভিমান জমেছে ওর। কেন ব্লক করবে আমায়? আমি কি ওকে খুব ডিস্টার্ব করতাম? বারবার মেসেজ করতাম? ব্লক করার মত কি এমন করেছি আমি? ইচ্ছে হল ব্লক করে দিলো, এখন আবার ভাব জমাতে এসেছে।

তিন-চার দিন পর।
রিমির মেসেজ গুলো ওপেন করল আবীর।
Dreamgirl Rimi
ভাইয়া কেমন আছেন?
6/26, 1:19am

Dreamgirl Rimi
কি ব্যাপার? কোন রিপ্লে নেই! হাতে ব্যাথা নাকি? :p
7/6, 6:14pm

Dreamgirl Rimi
আপনার সাথে কিছু কথা ছিল। শোনার সময় হবে?
7/7, 10:14pm

Dreamgirl Rimi
কিছু বলবেনা তুমি? রাগ করেছ না কি?
7/8, 4:14am

Dreamgirl Rimi
আর রাগ করে থেকো না প্লিজ। আমি সরি বলছি।
7/13,11:39pm

Dreamgirl Rimi
সরি বললাম তো! এবার তো কিছু বলো।
7/13, 1:49am

Dreamgirl Rimi
এখনও রিপ্লে দিলে না তুমি!
7/14, 2:39am . Sent from Messenger

মেসেজগুলো পড়ে আবীর ভাবছে, আপনি থেকে তুমি! আর রাগ করা ঠিক হবে না। তবে এত সহজেও ছাড়ছি না আমি। যা হোক! কালই দেখা করব আমি। মেসেজ করে স্থান ও সময় জানিয়ে দিল রিমিকে।
***

পার্কে একটা বেঞ্চিতে দুজন পাশাপাশি বসে আছে। রিমির দিকে তাকাতে পারছে না আবীর। রিমির মন আজ ভীষণ খুশি। আজ সে আবীরকে বলবে ওর মনের কথা। ভালবাসার কথা। ভালবাসে যে আবীরকে ও।
-আবীর
-হম
-কি ব্যাপার? কোন কথা বলছ না যে?
-কি বলব?
-কিছু বলার নেই? ও দিকে তাকিয়ে আছ কেন? তাকাও আমার দিকে।
আবীর তাকালো রিমির দিকে। সেই হাসি মুখ। যার জন্য সবকিছু করতে প্রস্তুত ছিল আবীর। আবার মুখ ঘুড়িয়ে নিল।
-কি ব্যাপার! তুমি কি রাগ করেছ আমার উপর?
-না। রাগ করবো কেন?
-তাহলে কোন কথা বলছ না কেন? তাকাচ্ছও না আমার দিকে।
-
-দেখ আমি সরি বলছি। সত্যিই সরি। তোমার ভালবাসায় সাড়া দেইনি তখন। হেলায় ফিরিয়ে দিয়েছিলাম আমি সব।
-
-কি ব্যাপার কিছু বলবে না? ভুল তো মানুষ করে। করে না?
ভুল কি গরু-ছাগল করে? ফেরেস্তা করে? মানুষ তো
মানুষ তো
ভালবাসতাম তো
বুঝি নাই তো
ভালবাসি আমি। আমি বুঝি নাই।
একবার ফিরে তাকাও। এই দেখ আমি কান ধরছি। তবুও এরকম করো না প্লিজ। সরি বললাম তো।
-সরি
-সরি! কিসের সরি? তুমি কেন সরি বলছ? ক্ষমা করবে না আমায়? ভালবাসবে না আমায়?

আবির তাকালো রিমির দিকে। রিমি কাঁদছে। আবীর তো এ মেয়ের কান্না দেখার জন্য ওকে ভালবাসেনি। ভালবাসছে হূদয়ে ঝড় তোলা হাসি দেখার জন্য। তাহলে ওকে কাঁদাচ্ছে কেন আবির?
-রিমি
-হুম
-তুমি একাই সব বলে যাবে? আমি কিছু বলব না?
-না
-ভালবাসবে আমায়?
-কখনও না।
বলেই আবীরের বুকে ঝাপিয়ে পড়ল রিমি।
এ কি! রিমি এখনও কাঁদছে কেন? ভালবাসি বললাম তো!

Share:

যৌনরোগ থেকে সাবধান

যৌনরোগ থেকে সাবধান
যৌনরোগ থেকে সাবধান

যৌনরোগ থেকে সাবধান

 বিশ্বজুড়ে প্রতিবছর যে পরিমাণ লোক যৌনরোগে আক্রান্ত হয় তার পরিমাণ আনুমানিকভাবে ২৫ কোটি। তার মধ্যে একমাত্র গনোরিয়ায়ই আক্রান্ত হয় সাড়ে ছয় কোটিরও বেশি। বলা হয় ২ কোটিরও বেশি যুবক-যুবতী বতর্মান বিশ্বে এইডস ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর অপেক্ষায় দিন গুনছেন। সম্প্রতি এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যুক্তরাষ্ট্রেই প্রতিবছর সিফিলিসে আক্রান্ত হয় প্রায় ১০ লাখ নর-নারী। তাই এ যৌনরোগ প্রতিরোধকল্পে সবার্ত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করতেই হবে। যৌনরোগ যেমন সিফিলিস, গনোরিয়া বা এইডস তা কিন্তু নয়। প্রায় ২৫টি মতো রোগ আছে যা যৌনপথে বিস্তার লাভ করে। তার মধ্যে এইডস ছাড়াও জন্ডিসের মতো মারাত্মক রোগের অন্তভুর্ক্ত।

যা কিছুদিন আগেও মানুষ মনে করত এটা কোনো সঙ্গতজনিত রোগ নয়। যৌনরোগের ক্ষেত্রে চিকিৎসা নয় প্রতিরোধই হচ্ছে অন্যতম ব্যবস্থা। তাই যুবক-যুবতীদের মধ্যে এ শিক্ষা আমাদের পৌঁছে দিতে হবে যে কী করে তারা নিজেদের রক্ষা করতে পারবে। আমাদের একটি কথা মনে রাখতে হবে আমরা ঘৃণা করব রোগকে, রোগীকে নয় কিন্তু বস্তুত আমাদের দেশে হচ্ছে তার উল্টো। আমরা যৌনরোগ এবং যৌন রোগী উভয়কেই যেন ঘৃণার চোখে দেখি। তাই আসুন, আমরা লক্ষ্য করি কী করে এ রোগের বিস্তার প্রতিরোধ করা যায়।

১. যুব সমাজের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে হবে, তাদের জানতে দিতে হবে যে এগুলো প্রতিরোধযোগ্য রোগ এবং তাদের এও জানতে হবে যে এ রোগে আক্রান্ত হলে তার মৃত্যুও হতে পারে।

২. কলেজ, ইউনিভািিসর্ট লেবেলের পাঠ্যসূচিতে যৌন রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে অন্তভুর্ক্ত করতে হবে যাতে প্রতিটি যুবক-যুবতী এ রোগগুলোর ভয়াবহতা সম্পকের্ নূন্যতম জ্ঞান লাভে সক্ষম হয়।

৩. আক্রান্ত হলে রোগ নিণর্য় ও চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে থানা, উপজেলা, জেলা পযোর্য় পৌঁছে দিতে হবে যেন আক্রান্ত মানুষ দ্রুত চিকিসার সুযোগ পায়।

৪. কেউ আক্রান্ত হলে তার সঙ্গী বা উভয়েরই চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে এবং স্বামী-স্ত্রী হলেও উভয়ের ক্ষেত্রেই রোগ নিণর্য় এবং একই সঙ্গে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। তা না হলে সাময়িকভাবে সুস্থ হলেও আবার স্বামীর থেকে স্ত্রী বা স্ত্রীর থেকে স্বামী আক্রান্ত হবেই এবং কনডম ব্যবহারের সুনিদির্ষ্ট পদ্ধতিও বহুগামী লোকদের শেখাতে হবে এবং তাদের বহুগামিতার পথ পরিত্যাগ করার জন্য উৎসাহিত করতে হবে।

৫. কনডম ব্যবহার করতে হবে। এবং কনডম ব্যবহারের সুনিদির্ষ্ট পদ্ধতিও বহুগামী লোকদের শেখাতে হবে এবং তাদের বহুগামিতার পথ পরিত্যাগ করার জন্য উৎসাহিত করতে হবে।

৬. কনডম সব যৌনরোগ প্রতিরোধে সক্ষম নয় এ কথা জনগণকে জানাতে হবে। অনেকে মনে করেন কনডম ব্যবহার করলেই আর যৌনরোগ হতে পারবে না এ ধারণা নিয়ে যারা বহুগামিতায় বিশ্বাস করেন তাদের প্রতিহত করতে হবে এবং যৌনরোগের ভয়াবহতা সম্পকের্ তাদের জ্ঞান দিতে হবে।

৭. শিক্ষিত জনগণ যেন মাঝেমধ্যে তাদের জননেন্দ্রিয় পরীক্ষা করেন তা তাদের জানাতে ও শেখাতে হবে।

৮. বহু যৌন রোগ উপসগির্বহীন অবস্থায় থাকতে পারে। যেমন গনোরিয়া মহিলাদের বেলায় অধিকাংশ ক্ষেত্রেই উপসগির্বহীন অবস্থায় থাকতে পারে। কাজেই উপসগর্ নেই তাই যৌন রোগ নেই এ কথা ভাবা ঠিক নয়। আবার সিফিলিসে ক্ষত চিকিৎসা না করলেও এমনিতেই কিছুদিন পর ক্ষত শুকিয়ে যায় তার মানে এই নয় যে সে রোগমুক্ত হয়ে গেছে। এ জীবাণু তার দেহে দীঘর্স্থায়ী রূপ নিল এবং চিকিৎসা না হলে বিভিন্ন ধরনের জটিলতার সৃষ্টি করতে পারে এমনকি তার জীবনও বিপন্ন হতে পারে।

৯. অপরের দাঁত মাজার ব্রাশ ও দাড়ি কাটার ব্লেড ব্যবহার করা উচিত নয়। সেভ করার সময় কেটে যেতে পারে বা দাঁত মাজার সময় দাঁত থেকে রক্ত বের হতে পারে এবং সেই রক্তে জীবাণু থাকতে পারে তা সহজেই অন্য ব্যবহারকারীর দেহে চলে যেতে পারে।

১০. এইডস বা যৌনরোগে আক্রান্ত ব্যক্তি সামাজিকতার ভয়ে চেপে যান, অনেকে মনে করেন এইডস হয়েছে জানলে চিকিৎসক পুলিশে খবর দিয়ে ধরিয়ে দিতে পারে সেই ভয়ে তারা এইডসের পরীক্ষা করাতে চান না। ধারণাটি আদৌ সত্য নয়।

১১. জাতীয় ও জেলা পযোর্য় যৌনরোগ প্রতিরোধ কমিটি গঠন করতে হবে এবং তার বিস্তার রোধে বলিষ্ঠ ভূমিকা নিতে হবে।

১২. রক্ত গ্রহণ বা প্রদানের আগে এইডস, হেপাটাইটিস-বি ও সিফিলিসের পরীক্ষা অবশ্যই করাতে হবে। এগুলো পাওয়া গেলে সে রক্ত অবশ্যই গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

১৩. শিরাপথে মাদকদ্রব্য গ্রহণকারীদের নিবৃত্ত করার সবার্ত্মক প্রচেষ্টা চালাতে হবে। আর তাদের যদি নিবৃত্ত করা না যায় তাহলে অন্তত তাদের এটুকু শেখাতে হবে যেন একই সুই তারা একাধিকবার ব্যবহার না করেন। করলে এইডস থেকে শুরু করে যে কোনো যৌনরোগ তার দেহে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

সবোর্পরি ধমীর্য় চেতনা জাগ্রত করতে হবে এবং নৈতিকতার উন্নয়ন ঘটাতে হবে। এ ক্ষেত্রে নিজ নিজ পিতামাতা তাদের সন্তানদের নৈতিকতার উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ করতে পারেন।
Share:

ভালোবাসা শুধু শরীর নয়

ভালোবাসা শুধু শরীর নয়
ভালোবাসা শুধু শরীর নয়

ভালোবাসা শুধু শরীর নয়
আজ আপানাদের জন্য একটা ভালোবাসার গল্প।
পড়ুন, ভালো লাগবে।

বাড়িতে এসে, জিজ্ঞাসা করলো, রান্না করি কিনা।
ami বললাম, না আমি ভাল রান্না করতে পারি না।
মিম, মাথা নিচু করে বললো যদি আমি রান্না করে দিই খাবেন?
আমি বললাম খাব না কেন ???
না মানে, এমনি।
বুঝতে পারলাম, ও হয়তো বলতে চাচ্ছে, ও দেহ বিক্রি করে বলে ওর রান্না খাবো না।
আমি বললাম, ফ্রিজে দেখ কি আছে, পারলে রান্না কর, দুজনেই খায়।
মিমের মুখে হাসি ফুটে উঠলো।
মিম রান্না করে, আমি খায়, এভাবেই চলে গেল কয়েক দিন।
হাসপাতালের বিল দিয়ে দিলাম।
মিম জিজ্ঞেস করলো, আমি এত গুলো টাকা দিলাম, এত কিছু কেন করলেন?
দেখ মিম, আমারতো মা নেই, তোমার মা কি আমার মা হতে পারে না।
মিম আর কোন কথা বলেনি।
এভাবে কেটে যাই কয়েক দিন।
হঠাৎ এক দিন, মিমের মা মারা যান।
মায়ের মৃত্যুর পর মিম যেন কেমন হয়ে গেল।
বুঝতে পারলাম, ও বেচে থাকতে চায় না।
মরে যেতে চাই, যে কারনেই হোক, মিম আজ দেহ ব্যাবসায়ি।
তার স্থান এই সমাজে নেই।
যে সমাজ বিপদের দিনে হাত গুটিয়ে ন্যায়, অথচ, সুযোগ বুজে ধিক্ষার দিতেও দিধাবোধ করে না।
সেই সমাজে মীম বেঁচে থাকতে চাই না।
মিমের কেউ নেই, কার কাছে থাকবে, বাড়ি বলতে ঝুপড়ি।।
এদিকে, দাদা বৌদি চলে আসছে।
আমি বৌদিকে সব বললাম (শুধু মিমের অনৈতিক কাজের কথা বাদে)।
বৌদি বললো মেয়েটিকে নিয়ে আসতে।
আমি মিম কে নিয়ে আসলাম।
বৌদি আমাকে ডেকে বললো, মীম, মেয়েটি অনেক ভাল।
তুমি কি মীমের প্রেমে পড়ে গেছ। বিয়ে করতে চাও?
বৌদির কথায়, আমি হতভম্ব হয়ে গেলাম।
আমি কখনো এভাবে ভাবিনি। বৌদি শুনতে চাইলেন।
আমি কি বলবো, ভেবে না পেয়ে বললাম, ভেবে দেখবো।
রাতে, খবর এল, আমার চাকরি হয়ে গেছে, কিন্ত আমাকে যেতে হবে অনেক দূরে,।
ওখানেই হবে আমার পোস্টিং।
যেতে হবে ৭ দিনের মধ্যে।
রাতে, বাগানের ভেতর বসে ভাবছি, কি করবো, এই অসহায় মেয়েটিকে কি তার ভাগ্যের উপর ছেড়ে
দেবো।
যদি তাই দিই, তাহলে হয়তো ও মরে যাবে, না হয়তো সারা জীবন, নিশিদ্ধ পল্লিতেই কাটাতে হবে।
কি করবো, মাথায় আসছে না।
হঠাৎ লক্ষ করলাম কে যেন, গেটের বাহিরে যাচ্ছে।
ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখি রাত ১১.৩৫ , এত রাতে কে, যায়?
পিছু নিলাম, বাহিরে গিয়ে বুঝতে পারলাম, মীম যাচ্ছে।
আম বাগানের ভিতর দিয়ে, আমিও পেছন পেছন যাচ্ছি, মীম কি করতে চাচ্ছে, বুঝতে চেস্টা করছি, দেখলাম জংগলের ভেতর যাচ্ছে, আমি আড়াল থেকে দেখছি।
কিছুক্ষণ পর মিম একটি আম গাছের নিচে আসলো, তার পর গা থেকে কাপড় খুলে দড়ির মত পাক
দিল।
বুজতে পারলাম, মীম মরতে চাচ্ছে।
আমার কেন জানি খুব রাগ হল, গাছের দিকে এগোতে থাকলাম।
যখই গাছে উঠবে, সামনে দাঁড়িয়ে দিলাম এক চড়।
মীম কিছু বলচ্ছে না, কাপড়ের গিট খুলে দিলাম।
এটা কি করতে যাচ্ছিলে?
মরে গেলেই সব কিছু শেষ।
মীম কাঁদছে, কি হল,কাদছেন কেন??
মীম বললো, বৌদির কথা আমি সব শুনেছি।
বুজতে পারলাম কেন মরতে চাচ্ছে।
এই সমাজ, ওর অতিত জানলে মেনে নেবেনা, মেনে নেবেনা কোন পুরুষ।
নির্ভরতার হাত কেউ হয়তো বাড়িয়ে দেবেনা।
কিছু না ভেবেই, মীমের হাত ধরলাম।
বলেই ফেললাম, যাবে আমার সাথে, এখান থেকে বহুদূরে।
আমার সাথে বাকি জীবনটা কাটাবে?
মীম আমার পা জড়িয়ে ধরে,,, এ হয় না, আমি কে কি আপনি ভাল করেই জানেন, আমি অসতি।
আমাকে মাফ করবেন। ছেড়ে দিন ভাগ্যের হাতে।
আমি মীম কে উঠিয়ে, জড়িয়ে ধরে বললাম, আর কোন কথা বলবা না। আমি যা করবো, তুমি শুধু পাশে থেকো, হতে পারো তুমি অন্যের কাছে অসতি, আমার কাছে নয়..।
মীম কে নিয়ে বিয়ে করে গ্রামে আসলাম।
বাড়ি থেকে, আমার সৎ মা আমাদের মেনে নিলেন না।
বাধ্য হয়ে, চলে গেলাম।
গিয়ে,সেই প্রথম রাতে, মিম কে বলেছিলাম,আমি কখনো, কারো কাছে ভালবাসা পায়নি, তুমি শুধু একটু ভালবাসা দিও।
মীম, পা জড়িয়ে ধরে,বলেছিল, আপনার পায়ের নিচে আমাকে একাটু ঠায় দেবেন, আর কিছু চায় না।
আজ ৩ বছর হল,ক্যান্সারে আর্কান্ত হয়ে মীম আমায় ছেড়ে চলে গেছে, না ফেরার দেশে।
রেখে গেছে, ২টি সন্তান।
একজন আমার মা, অন্যজন আমার বাবা।
আমি আজও মীমের কথা, মনে করে, চোখের জলে ভাসি।
কত ভালবাসতো আমায়, কখনো বলে বোঝাতে পারবো না।
আজ সন্তানেরা বড় হয়ে গেছে। আমি ওদের নিয়েই আছি।
আজ মেয়েটার বিয়ে হয়ে, শশুর বাড়ি চলে গেল, মীম আজ তুমি থাকলে আমি আরো অনেক বেশি খুশি হতাম।
এখনো অনেক মিস করি তোমায়............!
Share:

free WIFI Love story

free WIFI Love story

free WIFI Love story
আজ একটা Love Story তোমাদের জন্য।
তবে অন্য টাইপের, মজার।
তাহলে শুরু করি
 মেয়েটা প্রতিদিন কোচিং থেকে ফেরার সময় এক ছেলেকে তার বাড়ির সামনে অপেক্ষা করতে দেখতো।
.
আর এভাবেই দেখতে দেখতে প্রায় মাস খানেক
চলে গেল। মেয়েটি এবার বুঝতে পারল ছেলেটি তার জন্যই প্রতিদিন কষ্ট করে অপেক্ষা করে। তাই মেয়েটিও ছেলেটির প্রতি দূর্বল হতে লাগলো !...
.
ছেলেটি মুখ ফুটে সাহস করে কিছুই বলত না, শুধু বাড়ির সামনে পায়চারি করতো আর নয়তো ফোন হাতে নিয়ে সময় কাটাতো।
.
মেয়েটি বুঝতে পারলো এই ছেলে খুব লাজুক,  তাই যা করার নিজেকেই করতে হবে...!!
হঠাৎ একদিন মেয়েটি ছেলেটিকে গিয়ে বললো, "আর কত দিন এভাবে কাটাবে?
বলো তুমি কি বলতে চাও।
আমি রাজি আছি।"
.
একথাটা শুনে ছেলেটির চোখে মুখে রাজ্য জয়ের ভাবমুর্তি ফুটে উঠলো। আর সব ভয় জয় করে সে বলল...
.
.
.
.
.
.
.
.
.
.
"দিদি...
আপনাদের বাড়ির wifi এর পাসওয়ার্ড দেওয়া নেই, তাই
নেট use করতে এখানে আসি।
আপনাদের wifi এর speed আরেকটু fast করতে পারেন না!? ভিডিও ডাউনলোড করতে দিলে অনেকক্ষন দাঁড়িয়ে থাকতে হয়....!!"
Share:

গল্পটি পড়লে কাঁদে ফেলবেন If you read the story,

গল্পটি পড়লে কাঁদে ফেলবেন

গল্পটি পড়লে কাঁদে ফেলবেন


নিপা কলেজ এর খুব মেধাবি ছাত্রি
তার বাবার ও অনেক টাকা।
একে তো ভাল ছাত্রী আরও বড় লোক বাবার
একমাত্র মেয়ে
তাই একটু অহংকারী টাইপ এর মেয়ে
আর এদিকে কলেজ এর আর একটা ছেলে শিপন
নামের
নিপা কে ভালবাসত।
গরিব এর ছেলে বলে নিপা কে কখনো তার
ভালবাসার কথা বলে নি।
কিন্তু নিপা কলেজ এর আর একটা ছেলের সাথে
প্রেম করত
তবে ওই ছেলের চরিত্র এত ভাল না
আর এই কথা টা নিপার বান্ধবি রা অনেক
বুঝানোরর পরেও নিপা বুঝত না।
আর শিপন তো পাগলের মত করে নিপা কে
ভালবাসত
নিপা জানতো এই কথা।
কিন্তু শিপন গরিব বলে পাত্তা দিত না
শিপন একদিন সাহস করে কলেজ এর বারান্দায়
একটা ফুল নিয়ে দাড়িয়ে রইল যে আজ যেভাবে
হোক নিপা কে তার মনের কথা জানাবে।
আর নিপা কাছে আসতেই।।
শিপন: নিপা তোমাকে একটা কথা বলার ছিল।
নিপা: বল
শিপন: তোমাকে অনেক দিন আগ থেকেই আমি
ভালবাসি
প্রথম দেখার পর থেকেই
কখন যে তোমাকে ভালবেসে ফেলেছি আমি জানি
না
আমি তোমাকে অনেক ভালবাসি অনেক।
নিপা: রাগান্বিত হয়ে দেখো আমি অন্য কাও কে
ভালবাসি
আর তুমি আমাকে ভালবেসে দিতে পারবেই বা কি?
থাকো তো বস্তির মাঝে
আর ভালবাস আমাকে?
হাহাহা সত্ত্যি খুব হাসি পাচ্ছে
তোমার কথা শুনে।।।
শিপন: মন টা খারাপ করে নিচু স্বরে বলল দেখো
নিপা
জানি আমি গরিব কিন্তু গরিব বলে কি আমার
ভালবাসার অধিকার নেই?
আর তুমি আমাকে ভাল নাই বা বাসো
তবে তুমি যাকে ভালবাস সেই ছেলে টা ভাল না
তোমাকে কষ্ট দেবে
আর আমি চাই না কখনো তুমি কষ্ট পাও।
নিপা: আরও রেগে গিয়ে বলল আমার বেপারে
তোকে না ভাবলেও চলবে।
শিপন এর হাত থেকে ফুল টা নিয়ে ছুরে ফেলে দিল
এরপর থেকে যখনি শিপন কে দেখত তখনি নিপা
অপমান করত।
সবার সামনে অপমান করলেও শিপন কিছু বলত না
উলটা বলত আমি যে তোমাকে খুব ভালবাসি
তাই তুমি আমাকে যতই অপমান কর একটুও কষ্ট হয় না।
সব সময় নিপার পিছে ঘুরত শিপন আর বলত পৃথিবীতে
আমার চেয়ে বেশি তোমাকে কেও ভালবাসতে
পারবে না। এটা আমি একদিন বুঝিয়ে দেব তোমায়।।
নিপা তখন বলল যে যদি আমাকে এতই ভালবাস
তাহলে আমার সামনে কখনওই আসবি না তুই।
সেইদিন নিপার বয়ফ্রেন্ড শিপন কে কলেজ এর
মাঠে অনেক মেরেছে
শিপন তার কোন প্রতিবাদ করে নি
কারন নিপা কষ্ট পাবে বলে।
পরে নিপা তার বাবা কে বলে শিপন কে কলেজ
থেকে বার করিয়ে দেয়।
আর দেখা যায় নি শিপন কে সেইদিন এর পর।
কয়েক বছর কেটে গেল।
একদিন নিপা অসুস্থ হয়ে পড়ে।
হসপিটাল এ admit হবার পর জানতে পারে যে
নিপার দুই কিডনী ই নষ্ট হয়ে
গেছে।
তার বাবার তো টাকারর অভাব নাই।
সব জায়গা তেই খুজতেছে কিন্তু কোথাও পেল না।
নিপার তো হুশ নেই।
পরে আছে বিছানায়
আর এইদিকে ডাক্তার বলল তাড়াতাড়ি যদি কিডনী
না দেয়া যায়
তাহলে নিপাকে বাচানো যাবে না।
অবশেষে কিডনী পাওয়া গেল।
অপারেশন এর পর নিপা সুস্থ হল
যখন নিপার হুশ আসতেই চারিদিকে দেখতে লাগল।
তার মা – বাবা সবাই কে দেখতে পেল কিন্তু তার
ভালবাসার মানুষটি কে না দেখেই নিপার বুকে
যেন কেপে উঠল।
তার ভালবাসার মানুষ টা তাকে বাচানোর। জন্যে
কিডনী দিয়ে দিল বলে।
পাগলের মত হয়ে উঠে নিপা
ডাক্তার কে বলল
আমাকে কিডনী কে দিল?
তখন ডাক্তার নিপা কে নিয়ে গেল
সেই লাশ এর সামনে
নিপার শক্তি নাই লাশ এর মুখের থেকে সাদা
কাফন টা সরানোর,,,,,
সাহস করে যখন কাফন টা সরালো
নিপা কান্নায় মাটিতে লুটে পড়ল।
কথা বলার শক্তি হারিয়ে ফেলল নিপা।
কারন এই লাশ তো শিপন এর।
যাকে সে সারা জীবন শুধু অপমান করেছে। ক
এরপর ডাক্তার নিপা কে বলল আপনার ভালবাসার
মানুষ টি আপনাকে একটি
বারের জন্যেও দেখতে আসে নি
আর শিপন এর দেয়া একটা
চিঠি দিল,,,,,,
চিঠি তে লিখা ছিল,,,,,,,,,
তুমি তো আমার মুখ কখনো দেখতে চাও নি।।।
জানো তুমি না বলেছিলা সত্যি যদি তোমা কে
ভালবেসে থাকি তোমার সামনে যেন কখনো না
আসি।
দেখলে তো কত টুকু ভালবাসি তোমায়
একটি বারের জন্যেও তোমার সামনে আসি নি।
জানো তোমাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেছিলাম
আর সেই তুমি তো কখনো আমার ভালবাসা কে বুঝ
নি,,
বলতে পারো কি করব এই জীবন দিয়ে যেই জীবনে
তোমাকে পাব না…….
আর তাই তো চিরবিদায় নিলাম।
আর কখনো তোমার সামনে এসে বলব না
ভালবাসি তোমায়
অনেক বেশি ভালবাসি তোমায়।
আমার একটা শেষ ইচ্ছে পুরন করবে?
একটি বার এর জন্যে আমাকে বুকে জড়িয়ে ধর না,,,,
চিঠি পড়া শেষ হতেই নিপা শিপন এর লাশ টা বুকে
জরিয়ে কাঁদতে লাগল
আর বলতে লাগল……
শিপন আমাকে ছেড়ে কেন গেলি,,,,,,,,#আপনার অনুভূতি টা জানাবেন
আর ভালো লাগলে friend request দিতে পারেন……
plz add দিবেন post টা ভাল লাগলে!!!
Share:

আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি’-র চাইতেও গুরুত্বপূর্ণ যে ৬ টি কথা 6 things that are more important than I love you

আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি’-র চাইতেও গুরুত্বপূর্ণ যে ৬ টি কথা 6 things that are more important than I love you

‘আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি’-র চাইতেও গুরুত্বপূর্ণ যে ৬ টি কথা
6 things that are more important than I love you
সকলের মতে একটি স্বাভাবিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ কথাটি হচ্ছে ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’। নিঃসন্দেহে এই কথাটির অনেক গুরুত্ব রয়েছে সম্পর্কে, কিন্তু এর চাইতেও বেশ গুরুত্বপূর্ণ কিছু কথা একটি সুস্থ সম্পর্কে থাকা প্রেমিক-প্রেমিকা বা স্বামী-স্ত্রীর বলা উচিত।
 সকলের মতে একটি স্বাভাবিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ কথাটি হচ্ছে ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’। নিঃসন্দেহে এই কথাটির অনেক গুরুত্ব রয়েছে সম্পর্কে, কিন্তু এর চাইতেও বেশ গুরুত্বপূর্ণ কিছু কথা একটি সুস্থ সম্পর্কে থাকা প্রেমিক-প্রেমিকা বা স্বামী-স্ত্রীর বলা উচিত। ভালোবাসার কথাটি যেমন মনে প্রশান্তি এনে দেয় তেমনই অন্যান্য সকল কথা সম্পর্ককে দৃঢ়তার সাথে ধরে রাখতে সহায়তা করে। কারণ প্রেমে পড়া যতোটা সহজ ভালোবাসা ধরে রাখাটা ঠিক ততোটাই কঠিন।
১) ‘আমি তোমার সাথে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ’
আমি তোমাকে ভালোবাসি কথাটির চাইতেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ কথাটি হচ্ছে প্রতিজ্ঞার কথা। একে অপরের সাথে চিরজীবন বিনা দ্বিধায় থাকার প্রতিজ্ঞা। এই প্রতিজ্ঞার রক্ষা দিয়েই এগিয়ে যায় ভালোবাসা ও সম্পর্ক।
২) ‘আমি সব সময় তোমার পাশে আছি’
সম্পর্কে থেকেও যদি বিপদে এবং যখন সাপোর্টের প্রয়োজন তখন নিজেকে একাকী মনে হয় তাহলে সেটি কোনো সম্পর্কের পর্যায়ে পড়ে না। তাই সঙ্গীর ‘আমি তোমার পাশে আছি সবসময়’ কথাটির গুরুত্ব অনেক বেশি ভালোবাসার চাইতেও।
৩) ‘আমি  তোমার সকল সিদ্ধান্তকে সম্মান করি’ এবং তোমাকেও অনেক সম্মান করি।
নিজের সিদ্ধান্ত সঙ্গীর উপর চাপিয়ে দিয়ে এবং নিজেকেই অনেক বেশি যোগ্য মনে করে সঙ্গীকে অবজ্ঞা করলে আমি তোমাকে ভালোবাসি কথাটি তেমন মূল্য রাখে না। এরচাইতে সঙ্গীকে সম্মান করার প্রতিজ্ঞালব্ধ কথাটি অনেক বেশি গুরুত্ব রাখে।
৪) ‘আমি তোমার জন্য কম্প্রোমাইজ করবো’
একজনের কম্প্রোমাইজে সম্পর্ক বেশি দূর এগিয়ে যেতে পারে না। ভালোবাসি কথাটি বলেও সঙ্গীকে ধরে রাখা যায় না যদি আপনি কম্প্রোমাইজ করার মানসিকতা না রাখেন। সঙ্গী এই বিষয়টিই চান আপনার কাছে।
৫) ‘আমি তোমাকে রক্ষা করবো’
যেকোনো বিপদ থেকে রক্ষা করার প্রতিজ্ঞা ভালোবাসি বলার চাইতেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বিপদ শেষে এসে ভালোবাসি কথাটি বললে তা হাস্যকর বিষয় বাদে কিছুই হবে না।
৬) ‘আমি তোমাকে ক্ষমা করবো’
প্রেম মানে হলো ক্ষমা করার মহানতা। আমি তোমাকে অনেক বেশি ভালোবাসি কিন্তু তোমাকে ক্ষমা করতে পারবো না এই বিষয়টি ভালোবাসার সম্পর্ক ধরে রাখতে পারে না একেবারেই।
 সূত্রঃ হাফিংটন পোস্ট
Share:

🗣#আমি_আজও_তোমার_অপেক্ষায় !!😢😢 , 💗[ভালোবাসার গল্প ]💗

🗣#আমি_আজও_তোমার_অপেক্ষায় !!😢😢
, 💗[ভালোবাসার গল্প ]💗
আমি আর মেঘলা মসজিদে আরবি পরতে যেতাম তখন মেঘলার বয়স ছিল ১২ বছর আমার ছিল ১৩ বছর আমরা একই মহল্লার ছিলাম ।
আমি একদিন ভোর সকালে মসজিদে যাওয়ার পথে একটি আম গাছের নিচে একটি আম কূরিয়ে পেলাম
আর আমি আমটি নিয়ে মসজিদে চলে গেলাম ।
তার পর আমি আমটি নিয়ে খেলা করছিলাম মসজিদে বসে তখন মেঘলা আমটি দেখে আমাকে বললো যে আমাকে আমটি দিবে ?
তখন আমি অবাক হয়ে তাকিয়ে ছিলাম তার দিকে ।
কারন আমি তখন তাকে চিনতাম না । কিছু কখন পর সে আবার বললো আমটি দাও না ।আমাদের আম গাছ নেই । সে অনেক সুন্দর ভাবে আমটি চাইছিল। আমার তাকে খুব ভালো লাগে আমি আমটি তাকে দিয়ে দেই । তার পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে মসজিদে জন্য রোউনা দেই। সেই আম গাছের নিচে আবারও একটি আম কূরিয়ে পেলাম । কিন্তু আমটি পেয়ে কেনো জানি অনেক বেশি খুশি হয় সেদিন । আমি আমটি নিয়ে দেরি না করে ।
মসজিদে চলে গেলাম ,,,
আজ আমি আমটি নিয়ে তাকে দেখানোর জন্য চেষ্টা করছিলাম । কিন্তু মেঘলা আমার দিকে তাকাচ্ছিল না । কিছুক্ষণ পর সে আমার দিকে তাকায় ।
আমি তাকে ইশারায় জিজ্ঞাসা করছিলাম আমটি নিবে ?
সে মাথা নারিয়ে বলছিল হ্যাঁ নিব ।
তার পর থেকে রোজ সকালে তা জন্য একটি আম কূরিয়ে নিয়ে যেতাম না পেলে ! গাছে ডিল মেরে আম পেরে নিয়ে যেতাম ।তার পর থেকে তার সাথে খুব ভালো বন্ধুত্ব হয়ে যায় ।
আমরা খুব মজা করতাম ।মেঘলা আমর জুতা লুকিয়ে রাখতো, জুতার উপর ময়লা ফেলে রাখতো মজা করে । কিন্তু আমি তার সাথে এমন টাই করি ঠিক মেঘলা যেমন টা করতো । যখন আমরা এক সাথে আরবি পরতাম মেঘলা মাঝে মাঝে আমার দিকে তাকাতেন আমি তারদিকে তাকিয়ে চোখ মারতাম মেঘলা লজ্জা পেয়ে মুখ ফিরিয়ে নিতেন।
তার জন্য ,,,,
#Regular মসজিদে যেতাম আর শুক্রবার সে দিন তো আরবি পরাতো না । কিন্তু সে জানতো আমি আজ জুমমার নামাজ পড়তে মসজিদে আসবো । তাই মেঘলা মসজিদের পাশে একটি গাছের নিচে এসে দাঁড়িয়ে থাকতেন । তার বাড়ি মসজিদের সাথেই ছিল । আমি যখন নামাজ পরতে মসজিদে আসতাম তার সাথে রাস্তাই দেখা হত ।মেঘলা আমাকে দেখে একটু খুশি হয়ে মুচকি হাসি দিত ,আমি ও তাকে দেখে মুচকি হাসি দিতাম।
এভাবেই চলে গেল একটি বছর ।,,,,
আজ আমার মসজিদ পরিষ্কার করার পালা । প্রতিদিন এক জনের পর এক জনকে পরিষ্কার করতে হতো ।আর সেদিন একটি মেয়ে তার নাম সাদিয়া আমাকে সাহায্য করতে চাইছিল। আমিও তাকে নিষেধ করিনি আর সে সময় সাদিয়া আমাকে বালটি থেকে পানি ছিটাচ্ছে মজা করে আর তখন মেঘলা দেখেছিল ।মেঘলা আগেও নিষেধ করেছিল যে আমি তাকে ছাড়া আর কোনো মেয়েদের সাথে মজা, দুষ্টামি না করি।
মেঘলা অনেক রাগ করত যদি আমি মেয়েদের সাথে কথা বলি । আর মেঘলা সেদিন বরাবরের মতই এখন রাগে ফুঁসছে সে। ফর্সা, গোলগাল চেহারাটা রক্ত বর্ণ ধারণ করেছে। তার পর থেকে তিনদিন আমার সাথে কথা বলেনি মেঘলা আমি তাকে অনেক বার sorry বলেছি তার পরেও মেঘলার রাগ ভাঙাতে পারিনি ।
আমি আমার best Friend সাকিবকে বললাম মেঘলা আমাকে ভালোবাসে মনে হয় । আমাকে মেয়েদের সাথে কথা বলতে দেখলেই রাগ করে। সাকিব বললো যে তুই মেঘলাকে propos করে দেখ মেঘলা কি বলে আমি বললাম ঠিক আছে। কাল শক্তবার আছে কালই চিরকুটে লিখে propos করব।
আজ শুক্রবার জুমমার নামাজ পড়তে আসার সময় চিরকুটে লিখে নিয়ে আসলাম । চিরকুটে লিখাছিল ,,,,,,
I love you মেঘলা আমি তোমাকে খুব ভালবাসি আগে ও অনেক বার বলার try করেছি but বলার সাহস হয়নি !!!
বলতে পারিনি এই ভয়ে যদি
আমাদের ফ্রেন্ডশিপ নষ্ট হয়ে যায় ?
আজ অনেক সাহস করে বলছি আমি তোমাকে ভালবাসি মেঘলা তুমি কি আমাকে ভালোবাসো??
আমি চিরকুটটা তার বান্ধবীর হাতে দিলাম বললাম তুমি মেঘলা দিও । আর বললাম চিরকুটে যা লেখা আছে মেঘলাকে বলবে যে এক ঘণ্টা পর তার উত্তর দিতে । তুমি পরে নিয়ে আসবে আমি নামাজ পড়ে মসজিদের পাশে একটি গাছের নিচে এসে দাঁড়িয়ে থাকব। আর তাকে একটা কিটক্যাট চকলেট দিয়ে চলে আসলাম ।
এক ঘণ্টা পর নামাজ পড়া শেষে মসজিদের পাশে একটি গাছের নিচে এসে দাঁড়িয়ে ছিলাম ।
কিছুক্ষণ পর মেঘলার বান্ধবী একটি চিরকুট হাতে নিয়ে আসে তারপর আমাকে বললো মেঘলা দিয়েছে পরে সে চলে গেল ।
আমি আর দেরি না করে চিরকুট টি খুলে পড়তে শুরু করলাম। চিরকুটটাতে লেখা ছিল আমি তো তোমাকে শুধু ভালো বন্ধু ভাবি আর কিছু না । আর funny Emoji কান্নার ইমোজি লিখে । emoji টা এমন ছিল যে আমি কান্না করতেছি আর কান্নার পানি একটি ক্লাসে পরতেছে ।
এই সব দেখি আমার অনেক রাগ হয় তখন ঐ চিরকুট টা আমি ছিড়ে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে চলে গেলাম। তার পর থেকে আমি মেঘলার উপর রাগ করে আর মসজিদে আরবি পড়তে যাইনি তাদের বাড়ির পাশেএকটি মাঠ ছিল সেখান খেলা করতে যেতাম সে প্রতিদিন এসে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আমাকে দেখতো কিছু দিন পর মেঘলা একটি চিরকুট তার বান্ধবীকে দিয়ে পাঠায় আমার কাছে । আমি চিরকুটা নিয়ে পরলাম লিখাছিল ?
আরে পাগলা আমি যদি তোমাকে ভালো না বাসতাম তাহলে অন্য মেয়েদের সাথে কথা বললে কি আমি রাগ করতাম ? আর তোমার জন্যই তো আমি মসজিদে আসি আমার কোরআন শরীফ পড়া তো শেষ হয়ে গেছে তারপরও তোমার জন্য আসি তুমি বোঝনা ? আমি এটাও যানি যে তোমার ও পড়া শেষ হয়ে গেছে তুমি ও আমার জন্যই আসতে । আর যদি এখন ও আমাকে ভালোবাসো তাহলে আগামী কাল মসজিদে আসবে আরবি পরতে তাহলেই বোঝা যাবে যে তুমি আমাকে ভালোবাসো আসা করি কাল আসবে ।
তার পর থেকে আগের মতো আমি Regular মসজিদে যেতাম আর আগের চেয়ে অনেক বেশি মজা দুষ্টামি করতাম । আস্তে আস্তে আমাদের ভালোবাসা বৃদ্ধি পাচ্ছিল।
কিছুদিন পর পাড়ার মহল্লার সবাই জানতে পেরে গেল যে আমরা দুজন দুজনকে ভালোবাসি ।
এ কথা যখন মেঘলার মা শুনতে পায় তখন তার মা তাকে মসজিদে আসতে নিষেধ করে দিল ।তারপর থেকে মেঘলা আর মসজিদে আসেনি ।মেঘলা মসজিদে আসতোনা তাই আমিও আর মসজিদে যেতাম না ।
মেঘলা মাদ্রাসাতে পড়তো আমি স্কুলে পড়তাম আমাদের স্কুল আর মাদ্রাসা একসাথেই ছিল আমরা একসাথে রাস্তা দিয়ে হেঁটে যে তাম । বাড়ি ফিড়ার সময়ে ও এক সাথেই আসতাম ।
মেঘলার মাদ্রাসা আগে ছুটি হয়ে যেত মেঘলা আমার জন্য ওয়েট করতো ।
আমি আসলে তারপর দুজনে একসাথে রাস্তা দিয়ে হেঁটে কথা বলতে বলতে বাড়ি যেতাম খুব আনন্দে দিন কাট ছিল মেঘলা কে নিয়ে ।
আমি তিন দিনের জন্য আমার মামার বাড়ি বেড়াতে গিয়েছিলাম ।
ফিরে এসে দেখি মেঘলার কোন খোঁজখবর নেই সে এখন মাদ্রাসা ও যায় না। আমি প্রতিদিন মেঘলা জন্য যাওয়ার পথে ওয়েট করি কিন্তু আমি আর মেঘলার দেখা পেলাম না । আমি কিছু ভেবে না পেয়ে আমি তাদের বাসায় গেলাম তাদের বাসায় গিয়ে তার বান্ধবীর সাথে কথা বললাম সে বলল যে মেঘলা তো আর এখানে নেই । মেঘলা তার ফ্যামিলি নিয়ে লন্ডন চলে গেছে । আর মেঘলা আপনাকে একটা কথা বলতে বলেছেন সে বলেছিল যে আপনি ওয়েট করবেন আপনার মেঘলার জন্য মেঘলা অবশ্যই ফিরে আসবে আপনার কাছে ।আমি আপনাকে অনেক খুঁজেছি এ কথা বলার জন্য but আপনাকে খুঁজে পাইনি তাই বলতে পারিনি ।
আমি মেঘলার বান্ধবীর মুখে এ কথা শুনে অনেক কান্না করেছিলাম সেদিন ।
আমি পাঁচটি বছর ধরে
আজও মেঘলার অপেক্ষায় আছি ।
আমি জানি একদিন তুমি ঠিকই ফিরে আসবে আমার কাছে মেঘলা.....
I LOVE YOU SO MUCH MEGHLA 💗💗
✍Rakib
Share:

কালো মেয়ের প্রেমের গল্প। Black girl love story

কালো মেয়ের প্রেমের গল্প।
Black girl love story


বর্ষা - তোমাকে একটা কথা বলবো
হাবিব - বলো
বর্ষা - আমি তোমাকে ভালোবাসি
হাবিব - কিন্তু আমি তোমাকে ওই ভাবে কখনো
পছন্দ করিনি আর করতেও পারবোনা...
বর্ষা - কেন?
হাবিব - কারন তুমি দেখতে একটুও সুন্দর না...
হাবিব - আমি এমন কারো সাথে সম্পর্ক করতে
চাইনা...
বর্ষা - কিন্তু. এটা তো আমার দোষ না.
হাবিব - আমি এই ব্যাপারে আর কোন কথা বলতে
চাইনা...প্লিজ আমার জীবন থেকে চলে যাও
বর্ষা - আর কিছু না বলে ওখান থেকে চলে
আসে..
বাসায় গিয়ে দেখে কেউ নেই...
সবাই বাইরে...
ও বাথরুমে আয়নার সামনে যায়...
আর মনে মনে বলতে থাকে...”
আমি দেখতে অসুন্দর“
বর্ষা তারপর ও ঠিক করে ফেলে ও কি করবে...
২ঘন্টা পর...সবাই বাসায় ফিরে আসে...
ওর মা ওকে খুজতে যখন ওর রুমে যায় দেখে
বাথরুমের দরজার নিচ দিয়ে পানি আসতেছে আর
দরজা খোলা...
দরজা খুলে ভিতরে গিয়ে দেখে পুরা ফ্লোর
রক্তে ভরে গেছে...
আর বর্ষা মেঝতে পড়ে আছে...ওরপুরা চেহারা,
হাত সবকিছু ছুরি দিয়ে কাটার আর আয়নাতে রক্ত
দিয়ে লেখা.....এখন কি আমি সুন্দর হতে
পেরেছি...
শিক্ষনীয় কথা ঃ- মানুষের চেহারাই সবকিছু না...
ভালো ব্যবহার দিয়ে আপনি আপনার অসুন্দর কে
ঢেকে রাখতে পারেন,
কিন্তু সুন্দর চেহারা দিয়ে আপনি কখনই আপনার
বাজে স্বভাব কে ঢেকে রাখতে পারবেন না।
মনে রাখা উচিৎ চেহারা সুন্দর তো একটা ভইলার
মুরগী ও হয়।
তাই মানুষকে পরখ করতে হয় ব্যক্তিত্ব, মন, ব্যবহার
দিয়ে........চেহারা দিয়ে নয় ।
Share:

মেয়েদের শরীর ছেলেদের থেকে বেশি নরম হয় কেন?

মেয়েদের শরীর ছেলেদের থেকে বেশি নরম হয় কেন?

কথায় বলে মেয়েরা হল কোমল। মনে তো বটেই, শরীরেও। কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন এমনটা কেন? জেনে নিন বিজ্ঞান কী বলছে।

নারী মানেই কোমল, পেলব একটি শরীর। এটা শুধুমাত্র কোনও ধারণা নয়, বাস্তবেও তাই। মেয়েদের শরীর সাধারণত ছেলেদের তুলনায় অনেক বেশি নরম হয়। কিন্তু এমনটা কেন? এর পিছনে বিজ্ঞানের ব্যাখ্যাই বা কী?

বিজ্ঞান বলছে মূলত তিনটি বিষয়ের জন্য এমনটা হয়— জিন, হরমোন এবং জীবনযাপনের ধরন।


হরমোন

মেয়েদের শরীরে ইস্ট্রোজেন হরমোনের প্রাধান্যের জন্য মেয়েদের ত্বক পুরুষদের তুলনায় অনেক বেশি তৈলাক্ত হয় এবং ত্বকের কোমল ভাব অনেক বেশি থাকে। এই কারণে সামগ্রিকভাবেই মেয়েদের শরীর নরম লাগে।

জিন

মেয়েদের কোমল শরীরের পিছনের মূল নিয়ামক কিন্তু জিন। আদিম মানব এবং মানবীরা যতদিন একসঙ্গে শিকার করেছে ততদিন নারী-পুরুষ দুই শরীরই কঠিন এবং পেশীবহুল ছিল। কৃষিভিত্তিক সভ্যতার সূত্রপাতের সঙ্গে সঙ্গে মেয়েদের ভূমিকা পাল্টে যেতে থাকে। অত্যন্ত কঠিন শারীরিক পরিশ্রমের পরিবর্তে অপেক্ষাকৃত হালকা বাড়ির কাজেই অভ্যস্ত হয়ে ওঠে নারী শরীর।

এই অভ্যাসই জিনবাহিত হয়েছে প্রায় দু’হাজার বছর ধরে। তাই আদিম মানবীর জিনগঠনের সঙ্গে আধুনিক মানবীদের জিনগঠনে বহু পার্থক্য, বিশেষ করে শারীরিক কোমলতার নিরিখে। যুগ যুগ ধরে এক প্রজন্ম থেকে আর এক প্রজন্মে বাহিত হওয়া জিনই মেয়েদের শরীরের কোমলতার মূল কারণ। এর কারণেই মেয়েদের মাংসপেশীতে ফ্যাটি টিস্যুর পরিমাণ ছেলেদের তুলনায় অনেক বেশি।

হাড়ের গঠন

মেয়েদের শরীরের হাড় ছেলেদের তুলনায় অনেক বেশি পাতলা হয়। এই কারণেও মেয়েদের শরীর অনেক বেশি নরম লাগে।


জীবনযাপন

কী ধরনের জীবনযাপন করেন একজন মহিলা তার উপরেও নির্ভর করে তার শরীর কতটা কোমল থাকবে। যে মহিলা মাউন্টেনিয়ারিং করেন তাঁর তুলনায় যিনি হোমমেকার তাঁর শারীরিক কোমলতা স্বাভাবিকভাবেই বেশি হবে।
Share:

ভালোবাসার দিবসেই আপনার ভালোবাসা Love your love day

 ভালোবাসা বা প্রেম করা মানুষের জীবনে একটি স্বাভাবিক ঘটনা। ভালোবাসা ছাড়া কোন সম্পর্ক টিকে রাখা সম্ভব নয়। কিন্তু ভালোবাসা সম্পর্ক যখন শুরু হয় তখন একে অপরের যে আকর্ষণ তা কি ভালোবাসার আকর্ষণ না কি কামনার? এ সময় চিন্তায় পড়ে যান, বুঝে উঠতে পারেন না আপনার ভালোবাসা আসলেই কেমন।


ভালোবাসার দিবসেই আপনার ভালোবাসা

ভালোবাসা বা প্রেম করা মানুষের জীবনে একটি স্বাভাবিক ঘটনা। ভালোবাসা ছাড়া কোন সম্পর্ক টিকে রাখা সম্ভব নয়। কিন্তু ভালোবাসা সম্পর্ক যখন শুরু হয় তখন একে অপরের যে আকর্ষণ তা কি ভালোবাসার আকর্ষণ না কি কামনার? এ সময় চিন্তায় পড়ে যান, বুঝে উঠতে পারেন না আপনার ভালোবাসা আসলেই কেমন।

আজ  বিশ্ব ভালোবাসার দিবস। চিন্তা না করে এই দিনেই আপনি আপনার ভালোবাসা বুঝে নিন।

ভালোবাসার প্রতি শ্রদ্ধা জানানো

ভালোবাসার সম্পর্কে কেবল ভালোবাসা দেখানোটাই সবচাইতে বড় ব্যাপার নয়। ভালোবাসার পাশাপাশি আরেকটি বিষয়, যেটি খুব বড় স্থান জুড়ে থাকে, সেটি হলো শ্রদ্ধা। একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ। শুধু ভালোবাসার সম্পর্ক কেন, যে কোন সম্পর্কের ক্ষেত্রেই এটা সত্যি। সত্যিকার ভালোবাসা না থাকলে কোন শ্রদ্ধা থাকে না।

আপনার প্রিয় সঙ্গী যদি আপনাকে শ্রদ্ধা বা সম্মান দিয়ে কথা বলে তাহলে বুঝে নিবেন সে আপনাকে সত্যিই ভালোবাসে।

বাহ্যিক সৌন্দর্যই মুখ্য বিষয়

আপনি লক্ষ্য করবেন, আপনার প্রিয় সঙ্গী যদি সবসময় আপনাকে আরও বেশি স্টাইলিশ হওয়ার কথা বলতে থাকেন, তাহলে বুঝবেন এটি সত্যিকার ভালোবাস নয়। কেননা অনেক বেশি সুন্দর ও স্টাইলিশ কখনোই ভালোবাসার সম্পর্ক হতে পারে না। এটি শুধুই কামনার সম্পর্ক। কারণ ভালোবাসার সম্পর্কে বাহ্যিক সৌন্দর্য মুখ্য বিষয় নয়। 

আপনার কথায় মনোযোগী কি না

আপনার কথা কি প্রিয় সঙ্গী মনোযোগ দিয়ে শোনেন নাকি কখনোই শুনতে চান না। যদি তিনি আপনার কথা কানের ভিতরে প্রবেশ করাতে পচন্দই না করেন তবে বুঝবেন আপনাকে অবহেলা করছেন। কোন রকমের সম্মান তার কাছ থেকে আশা করাই যায় না। যদি সত্যিই ভালোবাসে তাহলে আপনার কথাটাকে সম্মান করা বা শোনা উচিত। যারা প্রিয় সঙ্গীকে ভালোবাসেন বা সম্মান করেন তারা আপনার কথা মনোযোগ দিয়ে শোনবেন এবং জবাবের সময় খুব চিন্তা করেই দিবেন।

যৌক্তিকতা নিয়ে ঝগড়া করবে

প্রত্যেক মানুষের তার সঙ্গীর সঙ্গে মতবিরোধীতা বা ঝগড়া থাকা স্বাভাবিক। তবে লক্ষ্যণীয় হচ্ছে, যে বিষয়ে ঝগড়া করছে তা কতটা যৌক্তিক? আপনি ঝগড়ায় রেগে গেলে আপনার সঙ্গী কিভাবে দেখছেন সেই অবস্থাকে? আপনার রাগ নিয়ন্ত্রণে কতটা ভূমিকা নিচ্ছে? কতটা যৌক্তিক ছিলো তার ঝগড়া? সে কি তার ভুল বুঝতে পেরেছে কি না? কিংবা আপনি না বুঝলেও তিনি আপনাকে কি বুঝিয়ে দিচ্ছেন? এসব অবস্থান থেকেই আপনি বুঝতে পারেন সেই মানুষটি আপনাকে কতটা ভালোবাসে।

আপনার দুঃসময়ে পাশে থাকা

সুসময়ে সকলেই পাশে থাকেন কিন্তু দুঃসময়ে কেউ থাকে না। কথাটা খাটি সত্য। কিন্তু দুঃসময়ে পাশে থাকবে অন্তত আপনার প্রিয়জন। যে আপনাকে সত্যিই ভালোবাসবে সে আপনার দুঃসময়ে বা খারাপ সময় আপনার পাশে ছায়ার মত লেগে থাকবেন। আপনার ভেঙ্গে পড়া মুহুর্তেও আপনাকে সহায়তা করবেন। তাই এই বিষয়ে কঠিন পর্যবেক্ষণ জরুরী।
Share:

মানুষের প্রতি ভালোবাসা Love for people

মানুষের প্রতি ভালোবাসা
Love for people
 
মানুষ আগে নিজেকে ভালোবাসে। সে তার সৃষ্টিকর্তাকেও ভালোবাসে। হূদয়বৃত্তির ব্যাপক একটি ভুবনে মূলত ভালোবাসা দুটি পর্যায়ে বিভক্ত: একটি হলো স্রষ্টার সঙ্গে সৃষ্টির প্রেম, অন্যটি হলো সৃষ্টির সঙ্গে সৃষ্টির প্রেম। নিজের জন্য ভালোবাসার মূল সূত্র ধরেই মানুষ তার বাবা-মা, ভাইবোন, সন্তানসন্ততি, পরিবার-পরিজন, আত্মীয়স্বজন, বন্ধু-বান্ধবকে ভালোবাসে। স্রষ্টা নিজেও তাঁর সৃষ্টিকে ভালোবাসেন এবং সৃষ্টির সেরা জীবের জন্য পৃথিবীকে সুশোভিত করেছেন। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে: ‘allah ভালোবাসেন এবং তারা আল্লাহকে ভালোবাসে।’ (সূরা আল-মায়িদা, আয়াত: ৫৪)
সৃষ্টিজগৎকে না ভালোবাসলে স্রষ্টাকেও ভালোবাসা যায় না। মানুষ প্রকৃতিপ্রেমে নিমগ্ন হয়, অনেকে আপনজনহীন হয়েও একদল অনাত্মীয়ের ভিড়ে সারা জীবন কাটিয়ে দিতে পারে। কেউ অসহায় কোনো মানুষ, শিশু বা জীবজন্তুকেও নিঃস্বার্থভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। মানবপ্রেম সম্পর্কে বলা হয়েছে, ‘আর তিনি (আল্লাহ) তোমাদের মধ্যে পারস্পরিক ভালোবাসা ও দয়া সৃষ্টি করেছেন।’ (সূরা আর-রুম, আয়াত: ২১)
জাগতিক সব কাজকর্ম ও নেক আমল আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা সুদৃঢ় করার উপলক্ষ মাত্র। সৃষ্টিকর্তার ভালোবাসা ও সন্তুষ্টি লাভই ধর্মপ্রাণ মানুষের সর্বোচ্চ মর্যাদার সম্বল। স্রষ্টাপ্রেম অর্জনের সর্বোত্তম পন্থা হচ্ছে তাঁর প্রতি গভীর ধ্যানমগ্নতা, আত্মসমর্পণ ও মনোনিবেশ করা। সমগ্র সৃষ্টি তার স্রষ্টাকে ভালোবাসে, আর স্রষ্টা নিজে তাঁর সর্বোত্তম সৃষ্টি ও সর্বশ্রেষ্ঠ রাসুল বিশ্বনবী (সা.)-কে ভালোবাসেন। মানবীয় গুণাবলির বিকাশসাধন, আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন এবং পরপারে পরিত্রাণ লাভ রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর আদর্শ বাস্তবায়নে ও তাঁর ভালোবাসা অন্তরে স্থান দেওয়া ছাড়া কারও পক্ষে সম্ভব নয়। পবিত্র কোরআনে সুস্পষ্ট দিকনির্দেশনা প্রদান করে ঘোষিত হয়েছে, ‘বলো, তোমরা যদি আল্লাহকে ভালোবাসো, তবে আমাকে অনুসরণ করো, আল্লাহ তোমাদের ভালোবাসবেন এবং তোমাদের অপরাধ ক্ষমা করবেন।’ (সূরা আলে ইমরান, আয়াত: ৩১)
মানবশ্রেণীতে সর্বাধিক ভালোবাসার শ্রেষ্ঠতম পাত্র হচ্ছেন নবীকুল শিরোমণি হজরত মুহাম্মদ (সা.)। উম্মতে মুহাম্মদির প্রতি তাঁর অনুগ্রহ ও অবদান সবচেয়ে বেশি। নবী করিম (সা.)-এর প্রতি ভালোবাসা পোষণ করা একটি অপরিহার্য কর্তব্য, যার অবর্তমানে ইমানই পরিশুদ্ধ হয় না। এ সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘তোমাদের মধ্যে কোনো ব্যক্তি মুমিন হতে পারবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত আমি তার কাছে তার মা-বাবা, সন্তানসন্ততি ও সমগ্র বিশ্ববাসী অপেক্ষা অধিকতর প্রিয় না হব।’ (বুখারি ও মুসলিম) তিনি আরও বলেছেন, ‘তোমরা ইমান না আনা পর্যন্ত বেহেশতে প্রবেশ করতে পারবে না। আবার পরস্পরকে ভালোবাসতে না পারা পর্যন্ত ইমানদার হতে পারবে না। আমি কি তোমাদের এমন একটি বিষয়ের খবর দেব না, যা করলে তোমরা পরস্পরকে ভালোবাসতে সক্ষম হবে? (তা হলো) তোমরা নিজেদের মধ্যে সালামের ব্যাপক প্রচলন করবে।’ (মুসলিম)
মানুষ যে উৎসের পরিপ্রেক্ষিতে একে অন্যকে ভালোবাসে, এ নিয়ে গভীরভাবে বিবেচনা করলে নির্দ্বিধায় বলতে বাধ্য হবে—আমার প্রেম-ভালোবাসা, জীবন-মৃত্যু, আমার সর্বস্ব সেই মহান সত্তার জন্য নিবেদিত, যিনি আমার সৃষ্টিকর্তা, পালনকর্তা; যেমনিভাবে বলেছিলেন মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইব্রাহিম (আ.)। পবিত্র কোরআনের ভাষায়, ‘নিশ্চয়ই আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন ও মরণ—সবকিছুই আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য, যিনি নিখিল বিশ্বের প্রতিপালক।’ (সূরা আল-আনআম, আয়াত: ১৬২) তাই মুমিন মুসলমান হতে হলে অবশ্যই প্রত্যেক মানুষকে তার জীবন, সম্পদ, সন্তানসন্ততি—সবকিছুর চেয়ে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলকে সর্বাধিক ভালোবাসতে হবে। তাঁর বিধি-বিধানগুলো স্রষ্টার প্রতি ভালোবাসার জন্য পালন করতে হবে।
সৃষ্টিকর্তা মানুষের স্বভাব-চরিত্রে যে প্রেমবোধ দিয়েছেন, তা শুধু নিজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়; বরং তা সর্বব্যাপী। তাই মানুষ আপনজনের গণ্ডি ছাড়িয়ে তার ভালোবাসা আশপাশের সুবিস্তৃত পরিবেশমণ্ডলীতে ছড়িয়ে দেয়। ফলে দয়া-মায়া, প্রেম-প্রীতি, ভালোবাসা ও হূদয়ের টান একজন মানুষের পক্ষ থেকে অন্য মানুষ অবশ্যই পেতে পারে। ভালোবাসার পাত্র হতে পারেন সন্তানসন্ততির জন্য তাদের মা-বাবা, মা-বাবার জন্য তাঁদের ছেলেমেয়ে, ভাইয়ের জন্য বোন, বোনের জন্য ভাই এবং অপরাপর আত্মীয়-অনাত্মীয় যেকোনো আপনজন। একজন মানবের ভালোবাসা একজন মানবীও পেতে পারেন। তবে সে ভালোবাসা হতে হবে বৈধ ও অনুমোদিত। স্ত্রীর প্রতি স্বামীর ভালোবাসা, স্বামীর প্রতি স্ত্রীর ভালোবাসা কেবল শরিয়তের অনুমোদনের গণ্ডিতেই আবদ্ধ নয়; বরং তা বহুবিধ পুণ্যময় কাজ। ভালোবাসা পোষণ ও প্রকাশের বৈধ কোনো সম্পর্ক ছাড়া ইসলামে একজন মানব-মানবীর মধ্যে হূদয়ের কোনো টান থাকা এবং প্রেমকে আরও গভীর করার কোনো সুযোগ নেই।
সুতরাং ইহকাল ও পরকালে সুখ-শান্তির জন্য আল্লাহ ও রাসুলকে ভালোবাসতে হবে এবং সৎ পথে চলতে হবে। কথায়, কাজে, চিন্তায়, বিশ্বনবী (সা.)-এর পরিপূর্ণ অনুসরণ সম্ভবপর হলেই সফলকাম হওয়া যাবে। যে বা যারা মা-বাবা, ভাইবোন, স্বামী-স্ত্রী, ছেলেমেয়ে, আত্মীয়স্বজন, গরিব-দুঃখীজন ও অন্য সবাইকে মানবতার দৃষ্টিতে যথারীতি ভালোবাসে; সে মূলত আল্লাহর হুকুমেরই তাঁবেদারি করে এবং সব মানুষের প্রতি ভালোবাসা ও দায়িত্ব-কর্তব্য যথাযথ পালন করা বস্তুত স্রষ্টাপ্রেমের নামান্তর। তবে বিবাহবহির্ভূত প্রেম-ভালোবাসা প্রকাশের প্রতিযোগিতায় জঘন্য পাপাচার, ব্যভিচার ও অশ্লীলতায় নিমজ্জিত হওয়ার চেয়ে মনকে প্রকৃত অর্থে মানবপ্রেমের উপযোগী করে গড়ে তোলার প্রচেষ্টা একান্ত কর্তব্য হওয়া উচিত।

Share:

Search This Blog

Labels

Blog Archive

Recent Posts

Label